Home /News /south-bengal /
Bangla News: "স্বামীর সঙ্গে থাকতে চাই...", প্ল্যাকার্ড হাতে শ্বশুরবাড়ির দরজায় গৃহবধূ!

Bangla News: "স্বামীর সঙ্গে থাকতে চাই...", প্ল্যাকার্ড হাতে শ্বশুরবাড়ির দরজায় গৃহবধূ!

স্বামীর বাড়ির দরজায় ধর্নায় গৃহবধূ প্রতীকী ছবি।

স্বামীর বাড়ির দরজায় ধর্নায় গৃহবধূ প্রতীকী ছবি।

বুধবার ফিরোজাকে ডিভোর্স নোটিশ পাঠানো হয়। আর এরই প্রতিবাদে বৃহস্পতিবার শ্বশুরবাড়ির গেটের সামনে হাতে প্ল্যাকার্ড নিয়ে ধর্নায় বসেন ফিরোজা।

  • Share this:

রঘুনাথগঞ্জ: পণের দাবিতে বাবা মায়ের চাপে স্ত্রীকে ডিভোর্স নোটিশ পাঠালো স্বামী। প্রতিবাদে বৃহস্পতিবার শ্বশুরবাড়ির সামনে ধর্নায় বসলেন গৃহবধূ। ফিরোজা খাতুনের অভিযোগ, বিয়ের কয়েক মাস পর থেকেই পণের দাবিতে শ্বশুর ও শাশুড়ি অত্যাচার শুরু করে ও তাকে বাড়ি থেকে বের করে দেয়। কিন্তু স্বামী সইদুল শেখ ফিরোজা খাতুনের সঙ্গেই থাকতে ইচ্ছুক বলেই জানান। শ্বশুর ও শাশুড়ির চাপেই জোরপূর্বক স্বামীকে দিয়ে ডিভোর্স নোটিশ পাঠানো হয়েছে বলে অভিযোগ। স্ত্রী ফিরোজা খাতুনের দাবি তাকে শান্তিপূর্ণভাবে শ্বশুরবাড়িতে থাকতে দিতে হবে, না হলে তিনি ধর্না থেকে উঠবেন না।

আরও পড়ুন : ফুচকাকে ইংরেজিতে কী বলে জানেন? ৯৯% মানুষই দিয়েছে ভুল উত্তর! আপনার কি জানা আছে?

বছর দেড়েক আগে রঘুনাথগঞ্জ থানার কৃষ্ণসাইলের বাসিন্দা ফিরোজা খাতুনের সঙ্গে সম্মতিনগর কালিতলার বাসিন্দা সইদুল সেখের বিয়ে হয়। শ্বশুর আলাউদ্দীন সেখ রেশন ডিলার। অভিযোগ বিয়ের কয়েক মাস পর থেকেই পণের দাবিতে ফিরোজাকে শারীরিক ও মানসিক অত্যাচার শুরু করে শ্বশুর আলাউদ্দীন সেখ ও শাশুড়ি আকতারা বিবি। এবং তাঁকে শ্বশুরবাড়ি থেকে বের করে দেওয়া হয় বলেও অভিযোগ। কিন্তু স্বামী সইদুল সেখ স্ত্রী ফিরোজা খাতুনের সঙ্গেই থাকতে চায়।

অভিযোগ বুধবার ফিরোজাকে ডিভোর্স নোটিশ পাঠানো হয়। আর এরই প্রতিবাদে বৃহস্পতিবার শ্বশুরবাড়ির গেটের সামনে হাতে প্ল্যাকার্ড নিয়ে ধর্নায় বসেন ফিরোজা। ফিরোজা খাতুনের মা বানী বেগম বলেন, "বিয়ে ঠিক হওয়ার পরেই একটা উড়ো ফোনে আমাদের জানানো হয় এই পরিবারে মেয়ের বিয়ে না দিতে। আমরা রাজি না হলেও ওরা জোর করেই আমার মেয়ের সঙ্গে ছেলের বিয়ে দেয়। কিন্তু বিয়ের তিনমাস পর থেকেই আমার মেয়ের উপর ওর শ্বশুর শাশুড়ি শারীরিক ও মানসিক অত্যাচার শুরু করে। আমার মেয়েকে ওরা খেতে দিত না। বাড়ি থেকে ওকে বের করে দিয়েছিল। গ্রামের মোড়লরা মীমাংসা করতে বসলেও সমস্যার কোনও সমাধান হয়নি। কিন্তু আমার জামাই আমার মেয়ের সঙ্গে সংসার করতে চায়। আমি এই সমস্যার সুরাহা চাই। আমার মেয়ে যেন শান্তিতে সংসার করতে পারে।"

আরও পড়ুন : সর্ষে-বাদাম-সহ ভোজ্যতেলের দামে 'মহাপতন'! ১ লিটারের দর কত আজ? দেখুন তালিকা

ফিরোজা খাতুন বলেন, "আমার আর আমার স্বামী মধ্যে কোনও সমস্যা নেই। শ্বশুর শাশুড়ি জোর করে আমার স্বামীকে দিয়ে সই করিয়ে ডিভোর্স পেপার পাঠিয়েছে। আর আমার স্বামীর দ্বিতীয় বিয়ে ঠিক করেছে। কিন্তু আমি এটা মেনে নেব না। আমি শান্তিপূর্ণভাবে আমার স্বামীর সঙ্গে থাকতে চাই। আমার দাবি মানা না হলে আমি ধর্না থেকে উঠব না।"

Published by:Sanjukta Sarkar
First published:

Tags: Bangla News

পরবর্তী খবর