আসানসোলের খুদে গানওয়ালা, দেশাত্মবোধক গানে মজেছেন মেয়র

যার হাতে দেশের ভবিষ্যৎ, তার গলায় দেশভক্তির গান...

Bangla Editor | News18 Bangla
Updated:Aug 30, 2019 03:38 PM IST
আসানসোলের খুদে গানওয়ালা, দেশাত্মবোধক গানে মজেছেন মেয়র
Photo- Video Grab
Bangla Editor | News18 Bangla
Updated:Aug 30, 2019 03:38 PM IST

#আসানসোল: আমার ছেলের গান শুনবেন মেয়র সাহেব? আসানসোলের মেয়র জিতেন্দ্র তিওয়ারি চমকে উঠেছিলেন। এমন দাবি নিয়ে তো কেউ আসে না। জামুরিয়া থেকে ছেলেকে নিয়ে মেয়রের কাছে গিয়েছিলেন মা। এগারো বছরের সোহেল তনভীরের গান শুনে অবাক তিনি। কিন্তু খুদে গানওয়ালাকে গান শেখানোর কেউ নেই। বাড়িতে যে অভাব। তাই সমস্ত দায়িত্ব নিয়েছেন জিতেন্দ্র তিওয়ারি।

যার হাতে দেশের ভবিষ্যৎ, তার গলায় দেশভক্তির গান...আসানসোলের খুদে গানওয়ালা। যার গান শুনলে বলতে ইচ্ছে করে, আরেকটা গান গাও।জামুরিয়ার সোহেল তনভীর। বয়স এগারো বছর। তবে সুরের ভাঁজে যেন পরিণত সংগীতশিল্পী। েদশাত্মবোধের মত ভারী শব্দটা হয়ত বোঝারও বয়স হয়নি। তবুও ছোট ছেলের পছন্দ দেশের জন্য গান। ছোট বেসরকারি সংস্থায় কাজ করা বাবার সাধ্য নেই ছেলেকে গান শেখানোর। মোবাইলে বা প্রতিবেশীদের বাড়িতে শুনে শুনে গান শিখেছে সোহেল। ছেলেকে মেয়রের কাছে নিয়ে গিয়ে মা বলেন, ছেলের গান শুনবেন? রেশন কার্ড, বার্ধক্য ভাতা। কত লোক কত দাবি নিয়ে আসে। এই দাবি শুনে অবাক হন তিনি। দাবি মিটিয়ে বুঝতে পারেন, ভুল করেননি। ছোট্ট গায়কের গান শেখার সমস্ত দায়িত্ব নেন জিতেন্দ্র তিওয়ারি।

আরও পড়ুন - গোপন কথাটি রবে না গোপনে...বলি নায়িকার সঙ্গে প্রেমটা চুটিয়ে করছেন কেএল রাহুল!!!

ছেলে নন্ডী হাইস্কুলে ক্লাস ফাইভে পড়ে। মাস্টাররা ডাকে শিল্পী বলে। সংসার সামলে ছেলের সঙ্গে গলা মেলান মাও।দেশের ভবিষ্যতের পাশে দাঁড়িয়ে খুশি মেয়রও।ছোটবেলা মানেই রঙ পেনসিল। আঁকার খাতা। ছোটবেলা মানেই কিচ্ছুতে নেই মানা। সোহেলের স্বপ্নগুলো গানের ভুবনে মেলছে ডানা...

Loading...

আরও দেখুন

First published: 03:38:17 PM Aug 30, 2019
পুরো খবর পড়ুন
Loading...
अगली ख़बर