• Home
  • »
  • News
  • »
  • south-bengal
  • »
  • Arijit Singh: করোনা রোগীদের পাশে অরিজিৎ সিং ! মাকে হারিয়ে এখন মুর্শিদাবাদের ত্রাতা তিনি

Arijit Singh: করোনা রোগীদের পাশে অরিজিৎ সিং ! মাকে হারিয়ে এখন মুর্শিদাবাদের ত্রাতা তিনি

Photo source collected

Photo source collected

করোনা রোগীদের কথা মাথায় রেখে এগিয়ে এলেন অরিজিৎ।

  • Share this:

    #মুর্শিদাবাদ:  অরিজিৎ সিং (Arijit Singh) । বলি থেকে টলির জনপ্রিয় গায়ক তিনি। মুর্শিদাবাদের ছেলে সম্প্রতি মাকে হারিয়েছেন। করোনা আক্রান্ত হয়েছিলেন তাঁর মা। সেরে যাওয়ার পরে ব্রেন স্ট্রোক, ভেন্টিলেশন, একমো সাপোর্ট তবুও পারেননি মাকে বাঁচাতে। মাকে হারানোর যন্ত্রণা বুকে নিয়েই মুর্শিদাবাদের মানুষের পাশে দাঁড়ালেন অরিজিৎ।

    করোনা মোকাবিলায় অক্সিজেনের ঘাটতি প্রায় সব জায়গাতেই দেখা যাচ্ছে। অক্সিজেন না পেয়ে বহু মানুষ মারা যাচ্ছেন। হাসপাতালে গিয়েও জুটছে না অক্সিজেন। করোনা রোগীদের কথা মাথায় রেখে এগিয়ে এলেন অরিজিৎ। মুর্শিদাবাদ জেলা স্বাস্থ্য দপ্তরকে পাঁচটি হাই ফ্লো নেজাল অক্সিজেন থেরাপি মেশিন দিয়ে সাহাযয় করলেন অরিজিৎ। 'ধৃতী ফাউন্ডেশন'-র মাধ্যমে মুর্শিদাবাদ জেলা মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক চিকিৎসক প্রশান্ত বিশ্বাস এর হাতে এই মেশিন তুলে দেন তিনি। অরিজিতকে কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন চিকিৎসক। মুর্শিদাবাদ মেডিক্যাল কলেজের অধীনে সরকারি হাসপাতালে করোনা চিকিৎসায় এই মেশিন ব্যবহার হবে।

    তবে এটাই প্রথম নয়। করোনার দ্বিতীয় ঢেউ আসার পর থেকে বিভিন্ন ভাবে মানুষের পাশে থেকেছেন তিনি। আর মুর্শিদাবাদ তাঁর নিজের মাটি। সেখানকার মানুষের পাশে তাঁকে সব সময় থাকতে দেখা গিয়েছে। বলিউডের জনপ্রিয় গায়ক হলেও মাটির টান ভোলেননি অরিজিৎ। এবার অক্সিজেন দিয়ে নজির গড়লেন তিনি। ভবিষ্যতে সব রকম ভাবে পাশে থাকবেন তিনি মুর্শিদাবাদের মানুষের। করোনাকে যেভাবেই হোক অতিক্রম করতে হবে। তবে অরিজিৎ কখনই প্রচার করতে চান না, তাঁর এই কাজ। মানুষের জন্য তিনি যা করেন সবটাই রাখতে চান মিডিয়ার আড়ালে। শুধু মুর্শিদাবাদ নয় গোটা কলকাতার কাছে গর্ব তিনি। মাকে হারানো থেকে শুরু করে একের পর জীবন যুদ্ধ তাঁর লেগেই আছে। তবুও হেরে যাননি তিনি। বলিউডে সলমন খানের সঙ্গে তিনিই পারেন প্রকাশ্যে ঝামেলা করে ফেলতে। কারণ তিনি জানেন, বলিউডে মাটি পেতে কতটা কষ্ট করতে হয়েছে তাঁকে। নিজের কাজ ও মানুষের ভালোবাসা নিয়েই থাকতে চান অরিজিৎ।

    Published by:Piya Banerjee
    First published: