রাজ্যে আসছেন শাহ, কেন হঠাৎ শান্তিনিকেতনকেই বেছে নিলেন

২০ তারিখ বিশ্বভারতী যাচ্ছেন অমিত শাহ।

সূত্রের খবর, আশু কারণটি ছেড়েও অন্য তাৎপর্য রয়েছে অমিত শাহের শান্তিনিকেতন যাত্রার। রয়েছে পাঁচিল কাণ্ডের রেশ।

  • Share this:

    #কলকাতা: কেউ বলছেন নাড্ডার কনভয়ে জবাব দিতে আসছেন তিনি। কেউ বলছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বনগাঁ-এর সভার পাল্টা কড়া বার্তা দিতেই রাজ্যে পদার্পণ করছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। কিন্তু তাই যদি হবে, তবে শান্তিনিকেতন ‌যাত্রা কেন? রাজ্যের অন্য হটস্পটগুলিকে ছেড়ে কেন বীরভূমকেই পাখির চোখ করলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী? সূত্রের খবর, আশু কারণটি ছেড়েও অন্য তাৎপর্য রয়েছে অমিত শাহের শান্তিনিকেতন যাত্রার। রয়েছে পাঁচিল কাণ্ডের রেশ।

    গত অগাস্ট মাসে পাঁচিল কাণ্ডে ধুন্ধুমার হয় বিশ্বভারতীতে।ভাঙা হয় বিশ্বভারতীর গেট। অস্থায়ী অফিসে হামলা করেন হাজারখানেক মানুষ। জেসিবি দিয়ে ভেঙে দেওয়া হয় পাঁচিলের একাংশ। রাজ্যপাল তখন স্বভাবসিদ্ধভঙ্গিতেই বলেছিলেন, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকার সময় মতো পদক্ষেপ করতে ব্যর্থ হয়। তখন থেকেই বিশ্বভারতীতে কেন্দ্রীয় নিরাপত্তার দাবি উঠছে। বিজেপি চায় রাজ্য পুলিশ বিশ্বভারতীর দায়িত্ব থেকে অব্যহতি নিক, দায়িত্বে আসুক কেন্দ্রীয় বাহিনী।

    বিশ্বস্ত সূত্রের খবর, অমিত শাহের বিশ্বভারতী যাত্রার আসল পটভূমিকা এই। রাজ্য বিজেপির থেকে আগেও শাহ-র কাছে এই নিয়ে দরবার করা হয়েছিল। ফলে তিনি সরেজমিনে পরিস্থিতি বিচার করতে চাইছেন। এদিনই বিশ্বভারতীর উপাচার্যের সঙ্গে দেখা করেছেন কৈলাস বিজয়বর্গীয়। বিশ্বভারতীর উপাচার্যের শাসক ঘনিষ্ঠতা সুবিদিত। একাংশ মনে করছে দলীয় ইচ্ছেকে সরকারি শিলমোহর দিতে চাই শাহর পদার্পণ। সেই কারণেই তাঁকে বীরভূম-অভিমুখে যাত্রায় রাজি করানো হয়েছে। এই সিদ্ধান্ত শাহ নিলে রাজ্য পুলিশকে অনাস্থার একটি বার্তাও দেওয়া হবে, মনে করে রাজনৈতিক মহল।

    পাশাপাশি বীরভূম যাওয়ার পথে একটি স্ট্রিট কর্নারেও অংশ নেবেন শাহ। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাস্তার ধারে বক্তৃতা রাখছেন এমনটা অতীতে দেখা যায়নি। রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন, এই রাজ্যে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ধাঁচেই ময়দানি রাজনীতি করতে মরিয়া শাহ। তাই এই চমক। আর এই জোড়া পরিকল্পনাতেই বেছে নেওয়া শান্তিনিকেতন।

    Published by:Arka Deb
    First published: