উদয়নের গোপন কথা জেনে ফেলেই খুন আকাঙ্খা, জানাল বাঁকুড়া পুলিশ

উদয়নের গোপন কথা জেনে ফেলেই খুন আকাঙ্খা, জানাল বাঁকুড়া পুলিশ

আকাঙ্খা খুনের কিনারা করল বাঁকুড়া পুলিশ।

  • Share this:

#বাঁকুড়া: আকাঙ্খা খুনের কিনারা করল বাঁকুড়া পুলিশ। উদয়নের সব গোপন কথা জানতে পারে আকাঙ্খা। এর ফলেই নিজের জীবন দিয়ে মূল্য চোকাতে হয় তাঁকে ৷ তদন্তের পর সাংবাদিক সম্মেলনে এমনটাই জানালেন বাঁকুড়ার পুলিশ সুপার ৷

উদয়নের মা-বাবার জাল পাসপোর্টও দেখে ফেলে আকাঙ্খা। একই সঙ্গে দেখে উদয়নের মায়ের ডেথ সার্টিফিকেট। সন্দেহ হওয়ায় প্রশ্ন করে উদয়নকে।

বাঁকুড়ার পুলিশের মতে, ‘বাবা-মায়ের খুনের কথা চাপা দিতেই আকাঙ্খাকে খুন করে উদয়ন ৷ পরিকল্পনা করেই আকাঙ্খাকে খুন করেছে উদয়ন, জেরায় এমনটাই জানিয়েছে সে ৷’

উদয়ন প্রথমে আকাঙ্ক্ষাকে জানিয়েছিল, তাঁর মা-বাবা আমেরিকায় থাকে। জাল পাসপোর্ট ও মায়ের ডেথ সার্টিফিকেটটি দেখেই আকাঙ্ক্ষা বুঝতে পারে উদয়নের পুরোটাই জালিয়াতি। এরপরই শুরু হয় উদয়নের সঙ্গে তুমুল ঝামেলা। নিজের ভুল বুঝতে বাড়ি ফিরে আসতে চায় আকাঙ্খা। ২৩ জুলাইয়ের ট্রেনে বাঁকুড়ার টিকিট কাটে আকাঙ্খা ৷ বিপদ বুঝে তখনই আকাঙ্খাকে ঘর বন্দি করে ফেলে উদয়ন। ঠান্ডা মাথায় খুনের ছক বানায় ৷ ১৫ জুলাই এই ঝগড়ার মধ্যেই গলা টিপে খুন করে নিজের প্রেয়সী আকাঙ্ক্ষাকে।

এদিন বাঁকুড়ার পুলিশ সুপার জানান, জেরায় নিজের অপরাধ কবুল করেছে উদয়ন ৷ সে নিজেই জানিয়েছে, ‘আকাঙ্খাকে গলা টিপে খুন করে ৷ মৃত্যু সুনিশ্চিত করতে প্লাস্টিক দিয়ে মুখ বেঁধে দেয় ৷ এরপর ট্রাঙ্কের মধ্যে আকাঙ্খার দেহ ভরে ফেলে ৷’ পুলিশের কাছে জেরায় উদয়ন স্বীকার করেছে, সিমেন্ট কিনে ট্রাঙ্কের মধ্যে নিজেই ঢালে ৷ স্থানীয় মিস্ত্রিকে ডেকে বেদি বানাব বলে মাটি খোঁড়ায় ৷ সেই গর্তে আকাঙ্খার দেহ পুঁতে দেয় ৷

First published: 05:31:23 PM Feb 14, 2017
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर