জামালপুরে তৃণমূল কংগ্রেস কর্মীর রহস্য মৃত্যুকে ঘিরে  উত্তেজনা, বিক্ষোভ

দলের সক্রিয় কর্মীকে বিধানসভা নির্বাচনের আগে বিজেপি আশ্রিত দুষ্কৃতীরা পরিকল্পিতভাবে খুন করেছে বলে অভিযোগ তুলে বিক্ষোভ দেখায় স্থানীয় তৃণমূল কংগ্রেস নেতৃত্ব।

দলের সক্রিয় কর্মীকে বিধানসভা নির্বাচনের আগে বিজেপি আশ্রিত দুষ্কৃতীরা পরিকল্পিতভাবে খুন করেছে বলে অভিযোগ তুলে বিক্ষোভ দেখায় স্থানীয় তৃণমূল কংগ্রেস নেতৃত্ব।

  • Share this:

#বর্ধমান: বুধবার সাত সকালে পূর্ব বর্ধমানের জামালপুরে তৃণমূল কর্মীর রহস্য মৃত্যুকে ঘিরে চাঞ্চল্য দেখা দিল। এদিন সকালে এক তৃণমূল কংগ্রেস কর্মীর গাছে ঝুলন্ত মৃতদেহ উদ্ধার হয়। তাদের দলের সক্রিয় কর্মীকে বিধানসভা নির্বাচনের আগে বিজেপি আশ্রিত দুষ্কৃতীরা পরিকল্পিতভাবে খুন করেছে বলে অভিযোগ তুলে বিক্ষোভ দেখায় স্থানীয় তৃণমূল কংগ্রেস নেতৃত্ব। তবে এই ঘটনায় তাদের জড়িত থাকার অভিযোগ অস্বীকার করেছে বিজেপি। ঘটনাকে ঘিরে উত্তেজনা থাকায় এলাকায় পুলিশ টহল চলছে। পুলিশ মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য বর্ধমান মেডিকেল কলেজ মর্গে পাঠিয়েছে। পুলিশ জানিয়েছে, ময়না তদন্তেই মৃত্যুর প্রকৃত কারণ জানা যাবে।

মৃত তৃণমূল কর্মীর নাম গৌতম ঘোষ। মাঝ বয়সী এই ব্যক্তির বাড়ি জামালপুরের বিষ্ণুবাটি গ্রামে। পাশের গ্রামবসন্তবাটিতে তাঁর ঝুলন্ত মৃতদেহ উদ্ধার হয়। মাঝবয়সী এই ব্যক্তিকে খুন করার পর মৃতদেহ গাছে ঝুলিয়ে দেওয়া হয় বলে অভিযোগ তৃণমূল কংগ্রেসের। প্রতিবাদে জামালপুরের চকদিঘী এলাকায় মেমারি তারকেশ্বর রোড অবরোধ করে বিক্ষোভ দেখায় তৃণমূল কংগ্রেস। টায়ারে আগুন ধরিয়ে বিক্ষোভ দেখানো হয়। পুলিশ মৃতদেহ উদ্ধার করতে গেলে তাদের ঘেরাও করে বিক্ষোভ দেখায় গ্রামবাসীরা। পুলিশের কাছে অবিলম্বে এই খুনের ঘটনায় জড়িতদের গ্রেফতারের দাবি জানান গ্রামবাসীরা।ঘটনার উপযুক্ত তদন্তের আশ্বাস দিয়ে মৃতদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

স্থানীয় তৃণমূল কংগ্রেস নেতৃত্বের অভিযোগ, এলাকায় দলের সক্রিয় কর্মী হিসেবে পরিচিত ছিলেন গৌতম ঘোষ। তাই তাঁকে বিধানসভা ভোটের আগে পরিকল্পিতভাবে খুন করল বিজেপি আশ্রিত দুষ্কৃতীরা। রাতের অন্ধকারে তাকে খুন করে মৃতদেহ গাছে ঝুলিয়ে দেওয়া হয়। অবিলম্বে দোষীদের গ্রেপ্তারের দাবি জানিয়েছে তারা। অন্যদিকে বিজেপি নেতৃত্বের বক্তব্য, ওই ব্যক্তি গলায় দড়ি দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন বলে স্থানীয় সূত্রে খবর মিলেছে। তাকে খুন করা হয়েছে কিনা তা পুলিশি তদন্ত ও ময়না তদন্তের রিপোর্টে পরিষ্কার হয়ে যাবে। খুন হয়ে থাকলে তৃণমূলের গোষ্ঠী কোন্দলের কারণে এই খুন হয়ে থাকতে পারে। এই ঘটনার সঙ্গে বিজেপির কর্মী-সমর্থকদের কোনও যোগ নেই।

Published by:Dolon Chattopadhyay
First published: