• Home
  • »
  • News
  • »
  • south-bengal
  • »
  • মিতার পর এবার মানসী মিস্ত্রি, ফের পণের দাবিতে খুনের অভিযোগ

মিতার পর এবার মানসী মিস্ত্রি, ফের পণের দাবিতে খুনের অভিযোগ

বাপেরবাড়ি থেকে পণের টাকা আনতে অস্বীকার করায় ডায়মণ্ডহারবারের মানসী মিস্ত্রিকে পিটিয়ে জোর করে বিষ খাওয়ানোর অভিযোগ উঠল শ্বশুরবাড়ির বিরুদ্ধে।

বাপেরবাড়ি থেকে পণের টাকা আনতে অস্বীকার করায় ডায়মণ্ডহারবারের মানসী মিস্ত্রিকে পিটিয়ে জোর করে বিষ খাওয়ানোর অভিযোগ উঠল শ্বশুরবাড়ির বিরুদ্ধে।

বাপেরবাড়ি থেকে পণের টাকা আনতে অস্বীকার করায় ডায়মণ্ডহারবারের মানসী মিস্ত্রিকে পিটিয়ে জোর করে বিষ খাওয়ানোর অভিযোগ উঠল শ্বশুরবাড়ির বিরুদ্ধে।

  • Pradesh18
  • Last Updated :
  • Share this:

    #দক্ষিণ ২৪ পরগণা:  ফের পণের দাবিতে মহিলা খুনের অভিযোগ। যাদবপুরের পর এবার ডায়মণ্ডহারবারে। বাপেরবাড়ি থেকে পণের টাকা আনতে অস্বীকার করায় ডায়মণ্ডহারবারের মানসী মিস্ত্রিকে পিটিয়ে জোর করে বিষ খাওয়ানোর অভিযোগ উঠল শ্বশুরবাড়ির বিরুদ্ধে। মৃত্যুকালীন জবানবন্দিতে এই অত্যাচারের কথা নিজেই জানিয়ে যান মানসী। ডায়মণ্ডহারবারের সরিষার ঘটনায় গ্রেফতার স্বামী ও দেওর।

    মিতা মণ্ডলের পর এবার মানসী মিস্ত্রি। মিতার মৃত্যুর রেশ কাটতে না কাটতেই পণের দাবিতে মানসীকে খুনের অভিযোগ উঠল স্বামী সহ শ্বশুরবাড়ির আত্মীয়দের বিরুদ্ধে। বেধড়ক মারধর করে জোর করে মুখে বিষ ঢেলে দেওয়ার কথা নিজেই মৃত্যুকালীন জবানবন্দিতে জানিয়ে যান মানসী।

    মাত্র ১৭ মাস আগে উস্তির শেরপুরের বাসিন্দা মানসীর সঙ্গে ডায়মণ্ডহারবার সরিষার বাসিন্দা নীলরতন মিস্ত্রির বিয়ে হয়। তারপর থেকেই শুরু হয় অত্যাচার। বাপেরবাড়ি থেকে পণের টাকা আনার জন্য অকথ্য অত্যাচার চলত মানসীর উপর। কিছুদিন আগে দেওরের চাকরির জন্য বাপেরবাড়ি থেকে দশ লক্ষ টাকা আনার জন্য চাপ দেওয়া শুরু হয়। সেই টাকা আনতে অস্বীকার করায় মানসীকে বেধড়ক মারধর করে মুখে বিষ ঢেলে দেয় স্বামী ও শ্বশুরবাড়ির লোকজন। এমনটাই দাবি মানসীর আত্মীয়পরিজনের।

    দিন দশেক আগের ঘটনা। অসুস্থ মানসীকে এসএসকেএমে ভর্তি করে তাঁর বাপের বাড়ির আত্মীয়রা। সেখানেই শনিবার মৃত্যু হয় মানসীর। শোকের ছায়া নামে উস্তির গ্রামে। ইতিমধ্যেই মানসীর স্বামী ও দেওরকে গ্রেফতার করেছে ডায়মণ্ড হারবার থানার পুলিশ।

    মানসীর পরিবারের অভিযোগ, ঘটনায় শ্বশুর, শাশুড়ি, ননদ, ননদাইও জড়িত । তাদের বিরুদ্ধে পুলিশ কোনও ব্যবস্থা নিচ্ছে না। বরং অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে লঘু ধারায় মামলা দায়ের হয়েছে। বিচারের আশায় এবার মিতার পরিবারের মতই তাঁরাও মুখ্যমন্ত্রীর দ্বারস্থ হতে চান ।

    First published: