corona virus btn
corona virus btn
Loading

সোশ্যাল মিডিয়ায় করোনা নিয়ে ভুল তথ্য ছড়ানোয় গ্রেফতার বর্ধমানের শিক্ষক !

সোশ্যাল মিডিয়ায় করোনা নিয়ে ভুল তথ্য ছড়ানোয় গ্রেফতার বর্ধমানের শিক্ষক !

সোশ্যাল মিডিয়ায় করোনা ভাইরাস নিয়ে গুজব রটানোর অভিযোগে গ্রেফতার হলেন শিক্ষিক!

  • Share this:

#বর্ধমান:  সোশ্যাল মিডিয়ায় করোনা ভাইরাস নিয়ে গুজব রটানোর অভিযোগে গ্রেফতার হলেন শিক্ষিক! বর্ধমানে এমনই ঘটনা ঘটেছে। ওই শিক্ষককে গ্রেফতারের পর এদিন বর্ধমান আদালতে তোলা হয়। জেলা পুলিশের সাইবার ক্রাইম শাখা এখন সর্বক্ষণ সোশ্যাল মিডিয়ায় নজরদারি চালাচ্ছে। তারই জেরে এই গ্রেফতার। জেলা প্রশাসনের বক্তব্য, এই সময়টা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে সরকার তথা প্রশাসন সব রকম প্রচেষ্টা চালাচ্ছে। তাই গুজবে কান না দিয়ে বাসিন্দাদের উচিত সরকার ও স্বাস্থ্য দফতরের বিধি নিষেধ মেনে চলা।

ফেসবুকে করোনা ভাইরাস নিয়ে ভুয়ো তথ্য প্রচার করার অভিযোগে বর্ধমানের ওই ব্যক্তিকে গ্রেফতার করা হয়েছে বলে জানিয়েছে জেলা পুলিশ। ধৃত ব্যক্তির বাড়ি বর্ধমান শহরের কাঞ্চননগর এলাকায়। ওই ব্যক্তির  নাম অবনিতোষ সরকার। তিনি পেশায় শিক্ষক।

পুলিশ সুত্রে জানা গেছে, করোনা ভাইরাস সম্পর্কে চীনের ইউহান এলাকার এক নাগরিকের দাবি বলে একটি বক্তব্য ফেস বুকে পোস্ট করেন ওই শিক্ষক।  সেখানে বলা হয়, করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হলে ডাক্তারের পরামর্শ না নিলেও চলবে। তার বদলে দিনে তিন থেকে চারবার গরম জল,গরম চা বা গরম দুধ নিয়ম করে খেলে কিছুদিনের মধ্যে সুস্থ হয়ে উঠবেন করোনা আক্রান্ত  ব্যক্তি। সোশ্যাল মিডিয়ায় এই পোস্ট দ্রুত ছড়াতে থাকে।

বিষয়টি জানতে পারার পরই নড়েচড়ে বসে পুলিশ। ওই ব্যক্তির ঠিকানা জেনে সেখানে পৌঁছে যায় পুলিশ। সোশ্যাল মিডিয়ায় মিথ্যা তথ্য ছড়ানোর অভিযোগে তাকে আটক করা হয়। বিস্তারিত জিজ্ঞাসাবাদের পর  বিপর্যয় মোকাবিলা আইন-২০০৫ অনুসারে করোনা নিয়ে ভুয়ো পোষ্ট ও মন্তব্য করার অভিযোগে  তাঁকে গ্রেফতার করা হয়।

পুলিশ জানিয়েছে, সম্প্রতি করোনা সম্পর্কে যে কোনো ধরণের বিষয় সোশ্যাল মিডিয়ায় পোষ্ট করায় নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে।  সেই নির্দেশকে লঙ্ঘন করে অবনিতোষ সরকার এই পোষ্ট করেন। তারই জেরে এই গ্রেফতার। এই ঘটনায় এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। শহরের বাসিন্দাদের অনেকেই বলছেন, একজন শিক্ষকের কাছে এই সময় ভুয়ো খবর ছড়ানো কখনোই কাঙ্ক্ষিত নয়। বাকিদেরও সোস্যাল মিডিয়ায় বিভিন্ন তথ্য ছড়ানোর আগে তা কতটা যুক্তিযুক্ত ভেবে দেখা উচিত। এই ঘটনার জেরে সোস্যাল মিডিয়ায় কোনো কিছু পোষ্ট করার আগে সতর্ক অনেকেই।

SARADINDU GHOSH 

First published: April 3, 2020, 5:25 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर