• Home
  • »
  • News
  • »
  • south-bengal
  • »
  • মরণোত্তর দেহ দান করলেন বীরভূমের সিভিক ভলেন্টিয়ার দেবায়ন

মরণোত্তর দেহ দান করলেন বীরভূমের সিভিক ভলেন্টিয়ার দেবায়ন

পুলওয়ামাকাণ্ডে শহিদদের বর্ষপূর্তিকে মাথায় রেখে মরণোত্তর দেহদানের অঙ্গীকার করে নজির সৃষ্টি করলেন সিভিক ভলেন্টিয়ার দেবায়ন ভট্টাচার্য।

পুলওয়ামাকাণ্ডে শহিদদের বর্ষপূর্তিকে মাথায় রেখে মরণোত্তর দেহদানের অঙ্গীকার করে নজির সৃষ্টি করলেন সিভিক ভলেন্টিয়ার দেবায়ন ভট্টাচার্য।

পুলওয়ামাকাণ্ডে শহিদদের বর্ষপূর্তিকে মাথায় রেখে মরণোত্তর দেহদানের অঙ্গীকার করে নজির সৃষ্টি করলেন সিভিক ভলেন্টিয়ার দেবায়ন ভট্টাচার্য।

  • Share this:

#বীরভূম: মরণোত্তর দেহদানের অঙ্গীকার করলেন বীরভূমের এক সিভিক ভলেন্টিয়ার। পুলওয়ামাকাণ্ডে শহিদদের বর্ষপূর্তিকে মাথায় রেখে মরণোত্তর দেহদানের অঙ্গীকার করে নজির সৃষ্টি করলেন সিভিক ভলেন্টিয়ার দেবায়ন ভট্টাচার্য। বীরভূমের রামপুরহাট মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের ডেপুটি সুপার শর্মিলা মৌলিকের হাতে দেহদানের অঙ্গীকার পত্র তুলে দেন দেবায়ন।

দেবায়ন বলেন, “পুলওয়ামাতে ৪২জন সেনা শহিদ হয়েছিলেন। তাঁদের স্মরণ করেই আমার এই সিদ্ধান্ত”। হাসপাতালের সুপার শর্মিলা মৌলিক বলেন, “এমন একটা দিনে দেহদানে অঙ্গীকার করে আমাদের অনুপ্রানিত করলেন ওই সিভিক ভলেন্টিয়ার। তাঁর এই উদ্যোগে অনেক মানুষকে অনুপ্রাণিত করবে। দেবায়নকে আমরা স্যালুট জানাই”।

তবে মরণোত্তর দেহদান করে খুব বেশি কিছু হেলদোল নেই রামপুরহাট থানার সিভিক ভলেন্টিয়ার দেবায়ন ভট্টাচার্যের। তাঁর মতে প্রত্যেক মানুষেরই মৃত্যুর পর তাঁর দেহ মাটিতে পুঁতে ফেলা হয় বা আগুনে দাহ করা হয়। এই দেহদান করে যদি তা চিকিৎসা বিজ্ঞানের কাজে লাগে তাহলে সেটাই ভাল। কারণ চিকিৎসাবিজ্ঞানে তাঁর দেহ নিয়ে যদি কোন গবেষণা করা যায় তাহলে মৃত্যুর পর অনেকেই দেহদাতাকে মনে রাখবে।

Supratim Das

Published by:Shubhagata Dey
First published: