• Home
  • »
  • News
  • »
  • south-bengal
  • »
  • Air Purifier: দূষণে ঘরকে সুরক্ষিত রাখে এয়ার পিউরিফায়ার; কেনার আগে এই ১০ গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে অবশ্যই সতর্ক থাকুন

Air Purifier: দূষণে ঘরকে সুরক্ষিত রাখে এয়ার পিউরিফায়ার; কেনার আগে এই ১০ গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে অবশ্যই সতর্ক থাকুন

Air Purifier: এয়ার পিউরিফায়ার কেনার সময় এই ১০টি জিনিস অবশ্যই পরীক্ষা করে কিনতে হবে।

Air Purifier: এয়ার পিউরিফায়ার কেনার সময় এই ১০টি জিনিস অবশ্যই পরীক্ষা করে কিনতে হবে।

Air Purifier: এয়ার পিউরিফায়ার কেনার সময় এই ১০টি জিনিস অবশ্যই পরীক্ষা করে কিনতে হবে।

  • Share this:

    #কলকাতা: শীত শুরু হওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই বায়ুর গুণমান ধীরে ধীরে খারাপ হতে শুরু করেছে। সে ক্ষেত্রে সুস্বাস্থ্যের কথা ভেবে এয়ার পিউরিফায়ার ব্যবহার করা বিবেচনার কাজ হবে। কিন্তু এয়ার পিউরিফায়ার (Air Purifier) কেনার সময় এই ১০টি জিনিস অবশ্যই পরীক্ষা করে কিনতে হবে।

    ১. ঘরের আকার বিবেচনা করা - আমাদের ঘরের আকার যদি বড় হয় তবে উচ্চ ক্ষমতাযুক্ত মডেল পিউরিফায়ারই উপযুক্ত হবে।

    ২. ফিল্টার নির্বাচন - এয়ার পিউরিফায়ার (Air Purifier) ব্যবহার করার আগে ফিল্টারের ধরণ সম্পর্কে অবহিত থাকতে হবে। ফিল্টারটিকে অবশ্যই ধুলো, ধোঁয়া, গন্ধ এবং অন্যান্য ক্ষতিকারক দূষণকারী নিবারক হতে হবে।

    আরও পড়ুন - ১০ হাজার টাকার কমে এয়ার পিউরিফায়ার খুঁজছেন? রইল তালিকা

    ৩. ফিল্টারের কার্যকারিতা নির্ধারণ করতে বায়ু পরিবর্তনের হার সম্পর্কে সচেতন হওয়া - বায়ু পরিবর্তনের হার নির্দেশ করে যে এয়ার পিউরিফায়ারটি এক ঘণ্টায় কতবার সম্পূর্ণ ঘরের বাতাস পরিষ্কার করেছে। সুতরাং, একটি ভালো মানের ফিল্টারে বায়ু শোধনের জন্য, ৫ থেকে ৬ ACH রেটিং থাকা বাঞ্ছনীয়।

    ৪. এয়ার পিউরিফায়ার কেনার আগে CADR রেটিংয়ে চোখ রাখা - CADR মানে ক্লিন এয়ার ডেলিভারি রেট (Clean Air Delivery Rate)। এটি নির্ণয় করে যে ডিভাইজটি এক মিনিটে কত ঘনত্ব ফুট বাতাস ফিল্টার করতে পারে। যে ফিল্টারের CADR নম্বর বেশি তার বায়ু শোধনের ক্ষমতা বেশি। সে ক্ষেত্রে অপারেটিং স্পেস যত বড় হবে তত উচ্চতর CADR রেটিং যুক্ত এয়ার পিউরিফায়ার ব্যবহার করতে হবে।

    ৫. অ্যাক্টিভেটেড কার্বন ফিল্টার - এয়ার পিউরিফায়ার কেনার সময় অ্যাক্টিভেটেড কার্বন লেয়ার যুক্ত ফিল্টার কেনাই ভালো। এটি বাতাসে উপস্থিত সমস্ত ক্ষতিকারক গ্যাস এবং রাসায়নিক শোষণ করে এবং দুর্গন্ধমুক্ত বাতাস সরবরাহ করে।

    আরও পড়ুন - ১৫ দিন ব্যবহার করে ফেরত দিলেও ফুল রিফান্ড; Flipkart নিয়ে এল নতুন প্রোগ্রাম ‘লাভ ইট অর রিটার্ন ইট’

    ৬. কোন মডেল নেওয়া উচিত হবে না - UV বা ionization এয়ার পিউরিফায়ার মডেলগুলি এড়িয়ে চলা উচিত, কারণ সেগুলি স্বাস্থ্যের জন্য ভালো নাও হতে পারে৷

    ৭. ডেসিবেলের বিষয়ে সতর্ক থাকা - ৪৫ থেকে ৫০ ডেসিবেলের উপরে যে কোনও মডেল রাতে ঘুমের ব্যাঘাত ঘটাতে পারে।

    ৮. গ্রাহক পরিষেবার খরচ বিবেচনা করা - নতুন এয়ার পিউরিফায়ার কেনার সময় ফিল্টার পরিবর্তনের জন্য গ্রাহক পরিষেবার খরচ মাথায় রাখা ভালো।

    ৯. সার্টিফিকেশন এবং ওয়ারেন্টি - এয়ার পিউরিফায়ারের জন্য দু'টি মান আছে- AHAM এবং চায়না স্ট্যান্ডার্ড। অন্য যে কোন ইলেকট্রনিক ডিভাইজের মতোই এই ক্ষেত্রে দেওয়া ওয়ারেন্টির সমস্ত শর্তাবলী পরীক্ষা করে কেনাই ভালো।

    ১০. একটি AQI মনিটর যুক্ত মডেল - একটি অন্তর্নির্মিত AQI মনিটর থাকার অর্থ হল ডিভাইজটি চলাকালীন গ্রাহক বাতাসের গুণমান পরীক্ষা করতে সক্ষম হবেন। এছাড়াও, একটি হালকা ওজনের এবং সহজেই বহনযোগ্য মডেল কেনাই উচিত হবে।

    Published by:Ananya Chakraborty
    First published: