মায়ের স্নেহ থেকে বঞ্চিত তারা, মকর সংক্রান্তিতে পেল পিঠেপুলির স্বাদ

মায়ের স্নেহ থেকে বঞ্চিত তারা, মকর সংক্রান্তিতে পেল পিঠেপুলির স্বাদ

রনি মোল্লা কিংম্বা বিনয় আদতে ফুটপাত থেকে উদ্ধার হওয়া কিশোর ও শিশু।ঠিকানা এখন বারাসাতের কিশলয়। শীতের এই ভর মরশুমে মকরের বিকালে স্বাদ পেল পিঠেপুলির ৷

  • Share this:

RAJARSHI ROY

#বারাসত: ওদেরও ছিল নিজের ঘরবাড়ি । একদিন ওদের অনেকেই মায়ের হাতে তৈরি করা পিঠে খেয়ে ছিল চেটে পুটে । আজ তারা ঘর থেকে দূরে । কেউ পথ ভুলে হারিয়েছে , কেউ ছোটো ভুলের মাশুল দিয়েছে , কেউ বা বড়দের সঙ্গে দেশের ভৌগোলিক সীমারেখা অতিক্রম করেছে । কোনও উৎসব ওদের সেভাবে স্পর্শ করে না ।  অথচ স্নেহের পরশ পেতে ওরাও প্রত্যাশী ।

বারাসত কিশলয় হোমের ঘর ছাড়া, অনাথ, দুঃস্থ শিশুরা শিশু উন্নয়নের আওতায়  থাকলেও ঘরের ছোঁয়া পায় না । উত্তর চব্বিশ পরগনার বারাসতে কিশলয় আবাসিক হোমের অনাথ দুঃস্থ শিশুদের জীবনে এ বছর এক ঝলক আলো আর টাটকা মুক্ত বাতাস নিয়ে এল একটি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন । প্রতিটি খুদে আবাসিক পিঠে পুলির স্বাদ পেল এই মকর সংক্রান্তিতে। ঘরের মত না হলেও, মকর সংক্রান্তিতে মন ভালর স্বাদ এটি।

পোঙ্গল, বিহু বা উত্তরায়ণ যেমন সারা ভারতের বিভিন্ন রাজ্যে উৎসবমুখর একটি দিন, ঠিক সেভাবেই পৌষ সংক্রান্তি বা মকর সংক্রান্তির দিনটি বাঙালিদের জীবনে উৎসবের মোড়কে ঘেরা । ঘরে ঘরে এদিন পুণ্যলগ্নে পিঠে পুলির  আয়োজন । ঘরে ঘরে পাটিসাপটা , চিতই পিঠে , ভাপা পিঠে বা আসকে পিঠের আয়োজন যখন চলছে , শহরের দোকানে রাশি রাশি পিঠে থরে থরে সাজানো তখন কার্যত গৃহে পরবাসী হয়ে থাকা দুঃস্থ, ঘরছাড়া শিশুদের মনের কোণে উঁকি দিয়ে যায় পৌষ পাবণের উৎসব। যা তারা হারিয়ে এসেছে ।

তাই স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা ‘ভরসা’ দিয়ে গেল ভরসা ৷ ছোট হাতগুলিতে পিঠে তুলে দিয়ে হাসি এনে দিল ওদের মুখে। এই উৎসবে আবাসিকদের সঙ্গে একাত্ম হয়ে মানবিক বার্তা বয়ে নিয়ে এলেন উত্তর চব্বিশ পরগণা জেলা পরিষদের পূর্ত কর্মাধ্যক্ষ নারায়ণ গোস্বামী । উপস্থিত ছিলেন তৃণমূল নেতা ও বারাসত পৌরসভার পুরপ্রধান সুনীল মুখোপাধ্যায় । রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বরা রাজনৈতিক কচকচির মধ্যে না ঢুকতে চেয়ে ফুটিয়ে তুললেন মানবিক আবেদনের তুলির ছোঁয়া যার স্পর্শে একদিনের জন্য হলেও জীবনকে ঘরোয়া ভাবে খুঁজে পেল কিশলয় হোমের ঘরছাড়া ১২০ জন আবাসিক । পুণ্যলগ্নের পুণ্যছোঁয়া পেয়ে পূর্ণ হল অনাথ ও দুঃস্থ জীবন ।

First published: 08:47:23 PM Jan 15, 2020
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर