মুখ দিয়ে রক্ত উঠে ছটফট করতে করতে পরিযায়ী শ্রমিকের রহস্যমৃত্যু, সকাল থেকে রাত পড়ে রইল দেহ

পূর্ব বর্ধমানের আউসশগ্রামের বিল্বগ্রামে এক পরিযায়ী রাইসমিল শ্রমিকের রহস্য মৃত্যু ঘিরে চাঞ্চল্য চরমে পৌঁছয় ।

পূর্ব বর্ধমানের আউসশগ্রামের বিল্বগ্রামে এক পরিযায়ী রাইসমিল শ্রমিকের রহস্য মৃত্যু ঘিরে চাঞ্চল্য চরমে পৌঁছয় ।

  • Share this:

#আউশগ্রাম: বুধবার সকাল দশটা থেকে গ্রামে পড়ে রয়েছে এক ব্যক্তির মৃতদেহ ! তার ধারেকাছে যেতে নারাজ কেউই । পূর্ব বর্ধমানের আউসশগ্রামের বিল্বগ্রামে এক পরিযায়ী রাইসমিল শ্রমিকের রহস্য মৃত্যু ঘিরে চাঞ্চল্য চরমে পৌঁছয় । পরিবারের সদস্যদের দাবি , ওই ব্যক্তির মৃত্যুর পিছনে বড় রহস্য রয়েছে । প্রতিবেশীরা  অবশ্য আতঙ্কিত অন্য কারণে । তাঁরা এই মৃত্যুর পেছনে সংক্রামক রোগ থাকতে পারে বলেও আশঙ্কা করছেন । এলাকার বাসিন্দাদের দাবি, কী কারণে ওই ব্যক্তির মৃত্যু হল তা খতিয়ে দেখুক পুলিশ ও স্বাস্থ্য দফতর । পুলিশ দেহ তুলে নিয়ে গিয়ে ময়না তদন্তে পাঠাক ।

পূর্ব বর্ধমানের আউশগ্রামের বিল্বগ্রামের কবিরাজ মাড্ডি বাঁকুড়ার একটি রাইস মিলে কাজ করত । দুই মাস আগে সে কাজে যোগ দেয় । তারপর থেকে লকডাউনের জেরে আর বাড়ি ফিরতে পারেনি । বুধবার সকালে হঠাৎই তার সহকর্মী পরিচয় দিয়ে দু'জন ব্যক্তি তাকে গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় নামিয়ে দিয়ে যায় । বাড়ির সামনে সে ছটফট করতে থাকে । তাঁর মুখ দিয়ে রক্ত উঠছিল । কিছুক্ষণ পরেই সে মারা যায় ।ততক্ষণে তার সঙ্গীরা চম্পট দিয়েছে । এলাকায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে । ওই শ্রমিক মারণ করোনাভাইরাসে বা অন্য কোনো দুরারোগ্য রোগে আক্রান্ত ছিল কিনা তা জানা যায়নি । স্বাভাবিকভাবেই এই ঘটনায় রহস্য দানা বাঁধছে । গ্রামবাসীরা অবিলম্বে এই ঘটনার উপযুক্ত তদন্ত দাবি করেছেন । গ্রামে পুলিশ এবং স্বাস্থ্য দফতরের টিমও আসে । তবে মৃতদেহ সরানো হয়নি ।

বেলা দশটা থেকে রাত পর্যন্ত মৃতদেহ পড়ে ছিল সেখানেই । পুলিশ ও মেডিকেল টিম গ্রামে যায় । অভিযোগ উঠেছে অনেকটা দূর থেকে তাঁরা দেহ পরীক্ষা করে । তারপর গ্রামবাসীদের আশ্বস্ত করে দাহ করতে বলা হয় । কিন্তু গ্রামের বেশিরভাগ মানুষ এই দায়সারা কাজে সন্তুষ্ট নন । এরপর বৃষ্টি হয় । জলকাদার মধ্যেই দেহ পড়ে রয়েছে । কাছে যেতে সকলেই নারাজ ।

Saradindu Ghosh

Published by:Shubhagata Dey
First published: