Home /News /south-bengal /

Purba Bardhaman: একদিনে আক্রান্ত ৬১০, পূর্ব বর্ধমানেও লাগামছাড়া করোনার সংক্রমণ 

Purba Bardhaman: একদিনে আক্রান্ত ৬১০, পূর্ব বর্ধমানেও লাগামছাড়া করোনার সংক্রমণ 

বর্ধমানের স্টেশনের ভিড়৷

বর্ধমানের স্টেশনের ভিড়৷

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, বাসিন্দাদের সচেতনতার অভাব এর অন্যতম কারণ। এখনও বাজার এবং জনবহুল এলাকায় ভালোই ভিড় লক্ষ্য করা যাচ্ছে (Purba Bardhaman News)।

  • Share this:

#বর্ধমান: পূর্ব বর্ধমান (Purba Bardhaman) জেলায় লাগামছাড়া ভাবে করোনার সংক্রমণ বেড়েই চলেছে। রাজ্য সরকারের পাশাপাশি জেলা প্রশাসনও নানান বিধিনিষেধ আরোপ করেছে। কিন্তু তা সত্ত্বেও এই জেলায় করোনার সংক্রমণ (Covid 19 in Purba Bardhaman) নিয়ন্ত্রণে আনা সম্ভব হচ্ছে না।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, বাসিন্দাদের সচেতনতার অভাব এর অন্যতম কারণ। এখনও বাজার এবং জনবহুল এলাকায় ভালোই ভিড় লক্ষ্য করা যাচ্ছে। বারংবার বলা সত্বেও সঠিকভাবে মাস্ক ব্যবহার করছেন না অনেকেই। শারীরিক দূরত্ব বজায় থাকছে না। এর ফলেই সংক্রমণ বাড়ছে।

আরও পড়ুন: এবার কি ১০ টা থেকে ২টো পর্যন্ত খুলবে ব্যাঙ্ক? আবেদনে সাড়া মিললেই হবে রদবদল

পূর্ব বর্ধমান জেলায় এখন গড়ে প্রতিদিন ছ'শোর কাছাকাছি বা তার বেশি বাসিন্দা করোনা আক্রান্ত হচ্ছেন। গত ২৪  ঘণ্টায় এই জেলায় ৬১০ জন নতুন করে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। জেলায় উদ্বেগজনক ভাবে বাড়ছে অ্যাক্টিভ আক্রান্তের সংখ্যা। বর্তমানে এই জেলায় ৩০২১ জন অ্যাক্টিভ রোগী রয়েছেন।

এ দিন পর্যন্ত পূর্ব বর্ধমান জেলায় ৪৪ হাজার ৯২৬ জন করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। তাদের মধ্যে ৪১হাজার ৪০৬ জন ইতিমধ্যে সুস্থ হয়ে উঠেছেন। এ দিন পর্যন্ত পূর্ব বর্ধমান জেলায় করোনায় আক্রান্ত হয়ে ৪৯৯ জনের মৃত্যু হয়েছে বলে জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গিয়েছে।

আরও পড়ুন: যোগ হল ফিল্টার, করোনা টিকার শংসাপত্র থেকে বাদ মোদির ছবি! তবে...

জেলা স্বাস্থ্য দপ্তরের এক আধিকারিক জানান, আক্রান্তদের বেশিরভাগই উপসর্গবিহীন। হাতেগোনা কয়েকজন এখন পর্যন্ত হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন। তবে প্রত্যেকেরই সতর্ক থাকা জরুরি। কারণ, করোনার এই তৃতীয় ঢেউয়ে শিশুদের আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা অনেক বেশি রয়েছে। তাই সবাইকেই আরও সাবধানতার সঙ্গে চলাফেরা করা প্রয়োজন। আবার নানান শারীরিক সমস্যায় ভুগতে থাকা বয়স্করা করোনা আক্রান্ত হলে তাদের ক্ষেত্রে তা জটিল আকার ধারণ করতে পারে।

জেলা প্রশাসন জানিয়েছে, যেহেতু শহর এলাকাগুলিতে জনঘনত্ব অনেক বেশি, আবার নানান প্রয়োজনে গ্রামীণ এলাকার বাসিন্দাদের শহরে আসতে হয় তাই শহর এলাকাগুলিতে বিধিনিষেধ আরও কড়াকড়ি করা হয়েছে।

বেশ কিছু বাজার ঘিঞ্জি এলাকা থেকে ফাঁকা জায়গায় সরিয়ে নিয়ে যাওয়ার পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। ইতিমধ্যেই কিছু এলাকায় সেই কাজ শুরুও করা হয়েছে। ফাঁকা জায়গায় শারীরিক দূরত্ব বজায় রেখে যাতে কেনাবেচা হয় তা নিশ্চিত করতে পুলিশ ও প্রশাসনের আধিকারিকদের বাড়তি তৎপর থাকতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

Published by:Debamoy Ghosh
First published:

Tags: Covid ১৯, Purba bardhaman

পরবর্তী খবর