corona virus btn
corona virus btn
Loading

বর্ধমানে রান্নাঘরের মেঝের গর্ত থেকে বেরিয়ে এল ৩২টি বিষধর গোখরো! 'আরও আছে,' আশঙ্কা স্থানীয়দের

বর্ধমানে রান্নাঘরের মেঝের গর্ত থেকে বেরিয়ে এল ৩২টি বিষধর গোখরো! 'আরও আছে,' আশঙ্কা স্থানীয়দের
এই সেই সাপগুলি-- ছবি: প্রতিবেদক

আরও সাপ রয়েছে এই আশঙ্কায় সিঁটিয়ে রয়েছেন বাড়ির লোকজন, পাড়া-প্রতিবেশীরা। বন দফতর এসে খুঁজে পেতে বাকি সাপগুলোকেও ধরে নিয়ে যাক সেটাই এখন চাইছেন বাসিন্দারা।

  • Share this:

#বর্ধমান: ঘরের ভেতর থেকে এক এক করে বেরিয়ে  আসছে বিষধর গোখরো৷  সব মিলিয়ে ৩২টি বিষধর গোখরো! এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে যারপরনাই আতঙ্কিত এলাকার বাসিন্দারা। পূর্ব বর্ধমানের জামালপুর থানার বেরুগ্রামের ঘটনা৷

আরও সাপ রয়েছে এই আশঙ্কায় সিঁটিয়ে রয়েছেন বাড়ির লোকজন, পাড়া-প্রতিবেশীরা। বন দফতর এসে খুঁজে পেতে বাকি সাপগুলোকেও ধরে নিয়ে যাক সেটাই এখন চাইছেন বাসিন্দারা।

এই বাড়ির রান্নাঘর থেকেই সাপগুলি বেরিয়েছে এই বাড়ির রান্নাঘর থেকেই সাপগুলি বেরিয়েছে

মঙ্গলবার বেলা তখন ১২টা। রান্না ঘরে বসে কাজ করছিলেন বেরুগ্রাম শিবতলার বাসিন্দা মৌসুমী ধারা। মৌসুমীদেবী বলেন,  'রান্নার ফাঁকে হঠাৎ লক্ষ্য করি পিছনের দিক থেকে একটি সাপ বেরিয়ে আসছে। ভয় পেয়ে সেখান থেকে পালিয়ে যাই। আমার চিৎকারে বাড়ির অন্যান্যরা ছুটে আসে। কিছুক্ষণ পর দেখা যায় একটি নয়, তিনটি সাপ বেরিয়ে আসছে ঘরের মেঝের গর্ত থেকে। তারপর তো দলে দলে বের হতে লাগলো। ভয়ে শরীর ঠান্ডা হয়ে যাচ্ছে। '

বাড়ির বাসিন্দা কার্তিক ধারা বলেন,  'বাড়িতে সাপ তাড়ানোর জন্য কার্বোলিক অ্যাসিড ছিল। গর্তের কাছে সেই অ্যাসিড দিয়ে দিই এবং তারপরই দলে দলে বিষধর সাপেরা বেরিয়ে আসতে থাকে। তবে সাপগুলি ছোট। সেগুলি গোখরো সাপের বাচ্চা। ৩২টি সাপ বেরিয়ে আসে। তাদের একটি বালতিতে রাখা হয়। পরে সেই সাপগুলিকে বনদফতরের হাতে তুলে দেওয়া হয়। ঘরে যে এতো সাপ রয়েছে তা আগে টের পাইনি। '

গ্রামের বাসিন্দা মৃত্যুঞ্জয় মালিক বলেন,   'বাড়ির ভেতর গর্ত খুঁড়ে বিষধর গোখরো যে বাধা বাসা বেঁধেছিল তা আগাম টের পাওয়া যায়নি।সেই সাপের বাচ্চা এগুলি। বড় সাপগুলিও তাই সেখানে রয়েছে বলে মনে করা হচ্ছে। আর এতেই ভয় পাচ্ছি আমরা। আমরা চাই বন দফতরের কর্মীরা এসে গর্ত খুঁড়ে বড় সাপ গুলোকেও ধরে নিয়ে যাক। '

এক সঙ্গে অনেক গোখরো বেরতে থাকায় বাড়ির সামনে ভিড় করে উৎসাহীরা।

SARADINDU GHOSH

Published by: Arindam Gupta
First published: June 30, 2020, 5:35 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर