৩৫০ বছরের পুরোন পুজো, স্মৃতির কলম আঁকড়ে খুশি আছে নন্দীবাড়ির পুজো

ঢাকের শব্দে, ঐতিহ্যের জৌলুসে গমগম করত নন্দীবাড়ি। হই হুল্লোড়ে আড্ডাগুলো খিলখিল করে হাসত।

Bangla Editor | News18 Bangla
Updated:Sep 25, 2019 03:55 PM IST
৩৫০ বছরের পুরোন পুজো, স্মৃতির কলম আঁকড়ে খুশি আছে নন্দীবাড়ির পুজো
Bangla Editor | News18 Bangla
Updated:Sep 25, 2019 03:55 PM IST

#মেদিনীপুর: ৩০০ বছরের জমিদার বাড়ির পুজো। তবে জমিদারির সম্পত্তি থেকে আয় ধীরে ধীরে কমেছে। সঙ্গে মূল্যবৃদ্ধি। মেদিনীপুর শহরের নন্দীবাড়ির পুজোয় জৌলুস কমেছে। তবে প্রথা মেনে পুজো চালিয়ে যাচ্ছে নন্দী পরিবার।

একসময় পুজোর আড়ম্বর ছিল বিশাল। তখন দুর্গা দালানে জাঁকজমকের বোল ছিল। ঢাকের শব্দে, ঐতিহ্যের জৌলুসে গমগম করত নন্দীবাড়ি। হই হুল্লোড়ে আড্ডাগুলো খিলখিল করে হাসত।

এসব ৩৫০ বছর আগের কথা। এখন এসবের কিছুই নেই। মেদিনীপুর শহরের নন্দীবাড়িটার গায়ে সময়ের বোঝা। ইটের পাঁজরে মলিন ছাপ। তবে পুজোটা আছে। ঘরের মেয়েকে ভোলেনি নন্দীবাড়ি।

দশ পুরুষের পুজো। বর্ধমানের জমিদার রামচাঁদ নন্দী এই পুজো শুরু করেন। আদিবাড়ি বর্ধমান। প্রথমে ওড়িশা, পরে সেখান থেকে মেদিনীপুরের চিড়িমারসাই এলাকায় থাকতে শুরু করেন। সম্পত্তি, প্রতিপত্তি ভালই ছিল। তবে জমিদারি সম্পত্তি থেকে যা আয় হত তা ধীরে ধীরে কমেছে। সেইসব সম্পত্তি বেহাত হয়ে গিয়েছে। এছাড়াও চড়া মূল্যবৃদ্ধি। পুজোয় তাই কিছু আয়োজনের কাটছাঁটও হয়েছে।

পুজো নিয়ে নন্দীবাড়ির কোণায় কোণায় স্মৃতির লেখাজোখা। স্মৃতির কলম আঁকড়ে খুশি আছে নন্দীবাড়ির পুজো।

First published: 03:55:21 PM Sep 25, 2019
পুরো খবর পড়ুন
Loading...
अगली ख़बर