যৌনাঙ্গে লঙ্কা-গুঁড়ো, নাবালিকার ওপর নির্মম অত্যাচারের অভিযোগ দমদম হোমে

যৌনাঙ্গে লঙ্কা-গুঁড়ো, নাবালিকার ওপর নির্মম অত্যাচারের অভিযোগ দমদম হোমে

আশঙ্কাজনক অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে ৯ বছর বয়সী ওই কিশোরীকে। ক্যানিং থানা ও দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলা চাইল্ড লাইনে খবর দেওয়া হয়েছে।

আশঙ্কাজনক অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে ৯ বছর বয়সী ওই কিশোরীকে। ক্যানিং থানা ও দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলা চাইল্ড লাইনে খবর দেওয়া হয়েছে।

  • Share this:

    #কলকাতা : লিলুয়ার পর দমদম। আবারও অকথ্য মানসিক এবং শারীরিক নির্যাতনের অভিযোগ উঠল শহরের শিশু-হোমে। খুন্তি দিয়ে আঘাত, হাতে সেফটিপিনের ক্ষত, সারা শরীরে দগদগে ঘা আর সেই ঘায়ের মধ্যে 'সিনিয়র'দের নাম লেখা, এমনকি যৌনাঙ্গে লঙ্কার গুঁড়ো লাগিয়ে দেওয়ারও অভিযোগ উঠল। দমদমের হোমের বিরুদ্ধে এই অভিযোগ এনেছে নির্যাতিতার পরিবার। নির্যাতিতার বাড়ি দক্ষিণ ২৪ পরগনার ক্যানিংয়ে। আশঙ্কাজনক অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে ৯ বছর বয়সী ওই কিশোরীকে।

    সূত্রের খবর, বাবা মা মারা যাওয়ার পর ক্যানিং-র তালদি এলাকায় মাসির বাড়িতেই থাকতেন বছর ৯ -এর নির্যাতিতা কিশোরী এবং তাঁর বোন। আচমকাই একদিন কাউকে কিছু না জানিয়ে তাদের দমদমের হোমে রেখে আসেন তাদের মেসো। এরপর প্রায় চার মাস পর একপ্রকার জোর করেই তাদের মাসি স্বামীকে নিয়ে বোনের মেয়েদের দেখতে দমদমের সেই হোমে যান।সেখানে গিয়ে দেখেন বারান্দার এক কোণে ভয়ে সিটিয়ে পড়ে রয়েছে ওই কিশোরী। শুধু তাই নয়, তার সারা শরীরে ক্ষত চিহ্ন দেখে দুই বোনকেই বাড়িতে ফিরিয়ে আনেন তাদের মাসি। আশঙ্কাজনক অবস্থায় ক্যানিং মহকুমা হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য ভর্তিও করা হয় ওই কিশোরীকে।

    ওই দুই নাবালিকার মাসি-মেসো প্রতিবেশিদের কিছু না জানালেও, তাঁরা কিছুটা আন্দাজ করতে পেরে ক্যানিং থানা ও দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলা চাইল্ড লাইনে খবর দেয়। পুলিশ আধিকারিকরা জানান, ঘটনা দমদম এলাকায় হওয়ায়, ওখানকার থানায় অভিযোগ দায়ের করতে হবে।

    Published by:Sanjukta Sarkar
    First published:

    লেটেস্ট খবর