দক্ষিণবঙ্গ

corona virus btn
corona virus btn
Loading

চিকিৎসার বদলে হাসপাতালে মানসিক ভারসাম্যহীন যুবককে ‘বেধড়ক মারধর’, অপসারিত ৪ নিরাপত্তারক্ষী

চিকিৎসার বদলে হাসপাতালে মানসিক ভারসাম্যহীন যুবককে ‘বেধড়ক মারধর’, অপসারিত ৪ নিরাপত্তারক্ষী
প্রতীকী ছবি

হাসপাতালে একটি টেবিলের কাচ ভেঙে ফেলায় বছর বাইশের মানসিক ভারসাম্যহীন যুবককে বেধড়ক মারধর করা হয়।

  • Share this:

#মুর্শিদাবাদ: ছেলে মানসিক ভারসাম্যহীন। ফলে সারাবছরই কোনও না কোনও অসুস্থতায় ভোগে। চলে নিয়মিত চিকিৎসা। কিন্তু শনিবার হঠাৎই ছেলের শারীরিক অবস্থা খারাপ হওয়ায় অসহায় বাবা-মা তাকে মুর্শিদাবাদ মেডিক্যাল কলেজে নিয়ে যান ছুটতে ছুটতে। আর সেখানেই চূড়ান্ত অমানবিকতার শিকার হন তাঁরা।

অভিযোগ, হাসপাতালে একটি টেবিলের কাচ ভেঙে ফেলায় বছর বাইশের ওই যুবককে বেধড়ক মারধর করা হয়। বাবা-মায়ের কাতর আবেদন সত্বেও রেয়াত করা হয়নি তাঁদের মানসিক ভারসাম্যহীন সন্তানকে। আর এই সম্পূর্ণ ঘটনায় অভিযোগের তির হাসপাতালের নিরাপত্তারক্ষীদের বিরুদ্ধে। অসুস্থ যুবক গুরুতর আহত অবস্থায় বর্তমানে মুর্শিদাবাদ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি। পরিবারের দাবি, সন্তানকে মারধরের ঘটনায় পুলিশের সামনেই ঘটেছে। কিন্তু কোনরকম পদক্ষেপ নেওয়া হয়নি।

কিন্তু কী কারণে এই অমানবিক ঘটনা? জানা গিয়েছে, ছেলেকে হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নিয়ে গিয়েছিলেন সারগাছি রামকৃষ্ণ মিশনের সহকারী প্রধান শিক্ষক সুদীপ্ত চক্রবর্তী। ছেলের সপ্তর্ষি মানসিক ভারসাম্যহীন। এ দিন হাসপাতালে নিয়ে আসার পরে জরুরি বিভাগের টেবিলের ওপরে রাখা একটি টর্চ দিয়ে টেবিলের কাজ ভেঙে ফেলে ওই যুবক। অভিযোগ, সেই সময় হাসপাতালে সিকিউরিটি গার্ডরা ছুটে এসে বেধড়ক মারধর শুরু করে সপ্তর্ষিকে। বাবা-মায়ের কাতর আবেদন সত্বেও রেহাই পায়নি তাঁদের সন্তান। পুলিশের সামনেই মারধর করা হয়েছে বলে অভিযোগ। ওই ঘটনার জেরে যুবক এতটাই অসুস্থ হয়ে পড়েন যে তাকে হাসপাতালে ভর্তি করে চিকিৎসা করাতে হয়।

মুর্শিদাবাদ মেডিক্যাল কলেজের সুপার শর্মিলা মল্লিক বলেন, ঘটনাটি জানার পরেই চারজন নিরাপত্তারক্ষীকে শনাক্ত করা হয়েছে। তাদের কাজ থেকে অপসারণ করা হয়েছে।

Published by: Shubhagata Dey
First published: August 1, 2020, 4:49 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर