corona virus btn
corona virus btn
Loading

২৪ ঘন্টায় পূর্ব বর্ধমানে করোনা আক্রান্ত আরও ২১, বাড়ছে আতঙ্ক!

২৪ ঘন্টায় পূর্ব বর্ধমানে করোনা আক্রান্ত আরও ২১, বাড়ছে আতঙ্ক!

পরিযায়ী শ্রমিক আসার সঙ্গে সঙ্গে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়তে থাকায় আতঙ্কিত পূর্ব বর্ধমান জেলার বাসিন্দারা।

  • Share this:

#বর্ধমান: গত চব্বিশ ঘণ্টায় পূর্ব বর্ধমান জেলায় করোনা আক্রান্ত  হয়েছেন ২১  জন। তাঁদের প্রত্যেকেই পরিযায়ী শ্রমিক বা সেই পরিবারের সদস্য বলে জানা গিয়েছে। ভাতারে এক দু বছরের শিশু করোনা আক্রান্ত হয়েছে। ওই শিশু সম্প্রতি তার বাবা মায়ের সঙ্গে বাইরের রাজ্য থেকে ফিরেছিল।

পূর্ব বর্ধমান জেলার মাধবডিহিতে চারজন করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। মঙ্গলকোটে আক্রান্ত হয়েছেন পাঁচ জন। কাটোয়া পুরসভা এলাকা, বর্ধমান শহর ও কালনা শহরে একজন করে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন।

পূর্ব বর্ধমানের জেলাশাসক বিজয় ভারতী জানান, এখনও পর্যন্ত  ৫৫ জন বাসিন্দা করোনা আক্রান্ত হয়েছেন বলে রিপোর্ট মিলেছে। তাঁদের বেশির ভাগই মহারাষ্ট্র দিল্লি থেকে সম্প্রতি বাড়ি ফিরেছেন। তাদের সংস্পর্শে আসা পরিবারের সদস্য ও প্রতিবেশীদের কোয়ারেন্টাইন সেন্টারে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। সেখানে তাঁদের নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য পাঠানো হচ্ছে। যেখানেই আক্রান্তের হদিস মিলছে সেইসব এলাকাকে কন্টেইনমেন্ট জোন হিসেবে ঘোষণা করা হচ্ছে। তার আশপাশের এলাকাকে বাফার জোন হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে।

কন্টেইনমেন্ট জোনের বাসিন্দারা যাতে এলাকার বাইরে না-যেতে পারেন তা নিশ্চিত করতে এলাকায় সর্বক্ষণের পুলিশি টহল চলছে। আক্রান্তের বাড়ি ও তার আশপাশ এলাকা জীবাণুমুক্ত করা হচ্ছে।

পরিযায়ী শ্রমিক আসার সঙ্গে সঙ্গে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়তে থাকায় আতঙ্কিত পূর্ব বর্ধমান জেলার বাসিন্দারা। তাঁরা বলছেন,  ভিন রাজ্য থেকে আসা বাসিন্দাদের চিহ্নিত করে তাঁদের কোয়ারেন্টাইন সেন্টারে রাখা নিশ্চিত করা হোক। অনেকেই নিজেদের উদ্যোগে গাড়ি ভাড়া করে জেলায় ঢুকছেন। অনেকেই বাড়ি ফিরে এসেছেন। তাঁদেরও যাতে ১৪ দিন কোয়ারেন্টাইন সেন্টারে রাখা হয় তা নিশ্চিত করার দাবি তুলছেন অনেকেই।

প্রশাসন জানিয়েছে, ব্যাপক ভাবে করোনা আক্রান্ত রাজ্যগুলি থেকে কেউ এলে তাদের অবশ্যই কোয়ারেন্টাইন সেন্টারে থাকতে হবে। ব্লক স্তর পর্যন্ত তেমনই নির্দেশ পাঠানো হয়েছে। সেইসঙ্গে বর্ধমান মেডিকেল কলেজে করোনার নমুনা পরীক্ষার পরিকাঠামো বাড়াতে তৎপর জেলা প্রশাসন। সেজন্য কী কী যন্ত্র প্রয়োজন বর্ধমান মেডিকেল কলেজের কাছে জানতে চাওয়া হয়েছে। জেলাশাসক বিজয় ভারতী জানান, প্রয়োজনে বাইরে থেকে আসা যাত্রীদের বেশ কয়েক জনের  নমুনা একত্রিত করে পরীক্ষা করা হবে। তাতে নমুনা পরীক্ষায় গতি আসবে বলে মনে করা হচ্ছে।

Published by: Arindam Gupta
First published: May 28, 2020, 10:43 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर