Home /News /south-bengal /

দোকানে দোকানে হাত সাফাই ২ পড়ুয়ার, ধরিয়ে দিল সিসিটিভি-র ফুটেজ 

দোকানে দোকানে হাত সাফাই ২ পড়ুয়ার, ধরিয়ে দিল সিসিটিভি-র ফুটেজ 

স্কুটি নিয়ে দোকানে দোকানে বেশ কিছু দিন ধরে চলছিল হাত সাফাই।দুই পড়ুয়াকে ধরিয়ে দিল সি সি টিভি ক্যামেরার ফুটেজ

  • Share this:

#নদিয়া: স্কুটি নিয়ে দোকানে দোকানে বেশ কিছু দিন ধরে চলছিল হাত সাফাই।দুই পড়ুয়াকে ধরিয়ে দিল সি সি টিভি ক্যামেরার ফুটেজ। পুলিশের জালে একাদশ ও দ্বাদশ শ্রেণীর দুই পড়ুয়া।নদিয়া জেলার ওই দুই পড়ুয়াকে গ্রেফতার করল মন্তেশ্বর থানার পুলিশ।

চালচলন,আদব কায়দা ও ঠাঁটবাটই আলাদা।  তা বজায় রাখতে গিয়েই টান পড়ে যাচ্ছিল টাকায়।  সেই টাকা যোগাড় করতেই চুরির ছক কষে দুই পড়ুয়া। যেমন ভাবনা তেমন কাজ। একটি স্কুটিকে সঙ্গী করে খদ্দের সেজে একের পর এক দোকানে অপারেশন। ধরা না পড়ায় সাহস  বাড়ছিল।  দিনেদুপুরেই চলছিল  হাতসাফাই। আজ নবদ্বীপ, গতকাল কালনা তো পরদিন মন্তেশ্বর... কখনও মোবাইল চুরি, কখনও বা অন্য কোনও দামি জিনিস লোপাট ! অপারেশন শেষে চোখের পলকে এলাকা ছাড়া। এটাই নিত্য দিনের  রুটিন হয়ে দাঁড়িয়েছিল দ্বাদশ ও একাদশ শ্রেণীর দুই ছাত্রের।মুজিবর রহমান সেখ নামে ওই পড়ুয়ার সঙ্গী ১৬ বছরের এক নাবালক। কিন্তু শেষরক্ষা হল না।

 পূর্ব বর্ধমানের মন্তেশ্বর থানা এলাকার দুটি দোকান থেকে চুরি যাওয়া দুটি মোবাইলের খোঁজে তদন্ত চালাচ্ছিল পুলিশ। সিসিটিভির ফুটেজ দেখতেই সব পরিষ্কার হয়ে যায়  পুলিশের কাছে। সোমবার ওই দুই পড়ুয়াকে গ্রেফতার করে মন্তেশ্বর থানার পুলিশ। মঙ্গলবার তাদের আদালতে তোলা হয়। সোমবার রাতে মন্তেশ্বর থানার পুলিশ নদিয়া জেলার নবদ্বীপ থানা এলাকায় হানা দিয়ে গ্রেফতার করে মুজিবর রহমান সেখ ও ১৬ বছর বয়সী আর এক পড়ুয়াকে। প্রথম জনের বাড়ি নবদ্বীপ রেল কলোনি ও দ্বিতীয় জনের বাড়ি স্থানীয় তেঘড়ি এলাকায়।মঙ্গলবার মুজিবরকে কালনা মহকুমা আদালতে ও  অপরজনকে পাঠানো হয় বর্ধমানের জুভেইনাল আদালতে।দুজনকেই পুলিশ হেফাজতের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

গত রবিবার মন্তেশ্বর থানার মালডাঙ্গা বাজারে সত্যনারায়ণ নন্দী নামে এক ব্যবসায়ীর মোবাইলের দোকান থেকে একটি স্মার্টফোন চুরি যায়।দোকান মালিক জানান, দুই যুবক তাঁর দোকানে মোবাইলের কভার কিনতে আসে। তিনি পিছন ফিরে মোবাইল কভার বের করার সময় দোকান থেকে একটি দামি ফোন হাত সাফাই করে নিয়ে চম্পট দেয় ওই দুই যুবক। পরে সত্যনারায়ণবাবু তা বুঝতে পেরে মন্তেশ্বর থানায় অভিযোগ জানান। এরপরই পুলিশ ওই এলাকায় থাকা সিসিটিভি ক্যামেরার ফুটেজ দেখে দুজনকে চিহ্নিত করে। এই ঘটনার আগেই মন্তেশ্বর বাজারে নির্মল রায়ের জুতোর দোকান থেকে তার মোবাইল ফোন চুরি যায়। নির্মলবাবু তখন দোকান থেকে কিছুটা দূরে জল আনতে গিয়েছিলেন। সেই সময় তাঁর মোবাইল চুরি যায়। সেই ঘটনাতেও এই দুই পড়ুয়ার যোগ পায় পুলিশ। এরপরই  তাদের পাকড়াও করা হয়। পকেট মানির জন্যই চুরি বলে তারা জেরায় স্বীকার করেছে, এমনটাই দাবি পুলিশের।

Saradindu Ghosh

Published by:Rukmini Mazumder
First published:

Tags: Nadia student

পরবর্তী খবর