West Bengal Police: অকারণ বাইরে ঘোরাঘুরি, পুলিশের গাড়ি দেখেই ভাগীরথীতে ঝাঁপ দুই ব্যক্তির!

কী কাণ্ড!

সকাল থেকেই শান্তিপুরে পুলিশি কড়াকড়ি নজরে পড়ে। দোকানপাট বন্ধ হয়ে যাওয়ার পর পুলিশের গাড়ি দেখতে পেয়ে বেগতিক বুঝে দুই ব্যক্তি ভাগীরথীর জলে ঝাঁপ দেন বলে খবর।

  • Share this:

    #শান্তিপুর: রাজ্যে কিছুতেই রোখা যাচ্ছে না করোনা সংক্রমণ (Corona in West Bengal)। শনিবার একদিনে রাজ্যে করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয়েছে ১৪৪ জনের। শনিবার সংখ্যাটা ছিল ১৩৬। এই পরিস্থিতিতে সংক্রমণের চেন ভাঙতে রবিবার থেকে ৩০ মে পর্যন্ত কার্যত লকডাউনের পথেই হেঁটেছে রাজ্য সরকার। রবিবার থেকেই তাই গৃহবন্দি বাংলা। যদিও সকাল সাতটা থেকে সকাল দশটা পর্যন্ত খোলা থাকছে বাজার। কিন্তু তারপর থেকেই বাইরে থাকলেই ধরছে পুলিশ। এই চিত্র শুধু কলকাতায় নয়, গোটা বাংলাতেই এক দৃশ্য। এরই মধ্যেই নদিয়ার শান্তিপুরে পুলিশের মুখে পড়ে অভূতপূর্ব কাণ্ড ঘটালেন দুই ব্যক্তি।

    এদিন সকাল থেকেই শান্তিপুরে পুলিশি কড়াকড়ি নজরে পড়ে। দোকানপাট বন্ধ হয়ে যাওয়ার পর পুলিশের গাড়ি দেখতে পেয়ে বেগতিক বুঝে দুই ব্যক্তি ভাগীরথীর জলে ঝাঁপ দেন বলে খবর। ঘটনাটি ঘটেছে শান্তিপুর পুরসভার ১৬ নম্বর ওয়ার্ডে। এরপর পুলিশের ধমকেই তাঁদের পারে উঠে আসতে হয়। যদিও পুলিশের তরফে ওই দুই ব্যক্তিতে ঘরে থাকার প্রয়োজনীয়তা বুঝিয়ে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।

    অপরদিকে, কার্যত লকডাউনের প্রথম দিনই কলকাতায় কড়া হয়েছে পুলিশি অভিযান। দুপুর ১২ টা পর্যন্ত কলকাতা থেকে গ্রেফতার করা হয়েছে ২৩ জনকে। তাঁদের বিরুদ্ধে মহামারী আইনে পদক্ষেপ করা হয়েছে। অপরদিকে, দুপুর ১২টা পর্যন্ত শুধু কলকাতাতে ৫৯টি গাড়ি বাজেয়াপ্ত করেছে পুলিশ। কোন জরুরি কারণ ছাড়াই গাড়ি নিয়ে বেরোনোর অভিযোগে বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে গাড়িগুলি।

    অন্যদিকে, পুরুলিয়া শহরে সরকারি নির্দেশ উপেক্ষা করেই দশটার পরও খোলা ছিল দোকান বাজার। পুলিশ গিয়ে তা বন্ধ করে। তবে, দোকানের কর্মচারী, এমনকী মালিকদেরও এর জন্য শাস্তি দিয়েছে পুলিশ। আর সেই শাস্তি হল, দশটি করে ডনবৈঠক। আসানসোলের মহিশীলা কলোনিতেও পুলিশ অভিযান চালায় বলে খবর। এমনকী, সকাল দশটার পরও সব্জি বাজার খোলা থাকায় লাঠিচার্জ করে তা বন্ধ করায় পুলিশ। রানিগঞ্জেও লাঠি উঁচিয়ে দোকান বন্ধ করতে দেখা যায় পুলিশকে। একইসঙ্গে টোটো ও অটো চালকদেরও সতর্ক করে দেওয়া হয়।

    Published by:Suman Biswas
    First published: