corona virus btn
corona virus btn
Loading

করোনা রুখতে ১০২৩ বছরের পুরোনো মহাকালী মৃন্ময়ী মায়ের পুজো শুরু হল বিষ্ণুপুরে !

করোনা রুখতে ১০২৩ বছরের পুরোনো মহাকালী মৃন্ময়ী মায়ের পুজো শুরু হল বিষ্ণুপুরে !

কথিত আছে আজ যে জায়গায় মৃন্ময়ী মন্দিরের অবস্থান সেখানেই একটি বটগাছের নিচে ক্লান্ত হয়ে বসে পড়েন রাজা জগৎমল্ল । তারপর একের পর এক দৈব ঘটনা ঘটতে থাকে রাজা জগৎমল্লর সঙ্গে ।

  • Share this:

#বিষ্ণুপুর: আজ থেকে এক হাজার তেইশ বছর আগে প্রাচীন মল্ল রাজধানী বিষ্ণুপুরে এক দৈব ঘটনার মধ্য দিয়ে শুরু হয়েছিল মৃন্ময়ীর পুজো । তারপর বিষ্ণুপুরের পাশ দিয়ে বয়ে যাওয়া বিড়াই নদী দিয়ে বয়ে গেছে বহু জল । কালের নিয়মে হারিয়ে গেছে দাপুটে মল্ল রাজাদের রাজ্যপাট । কিন্তু প্রাচীন সেই রীতি মেনে আজ একের পর এক মোট ন’বার তোপধ্বনীর মধ্য দিয়ে সূচীত হল দেবী মৃন্ময়ীর পুজো । আর তার সাথে সাথেই প্রাচীন মল্ল গড়ে শুরু হয়ে গেল দুর্গাপুজা ।

সময়টা ৯৯৭ খ্রিষ্টাব্দ । মল্ল রাজত্বের তৎকালীন রাজধানী প্রদ্যুম্নপুর থেকে শিকারের উদ্যেশ্যে বেরিয়ে বাঁকুড়ার বন বিষ্ণুপুরে আসেন রাজা জগৎমল্ল । কথিত আছে আজ যে জায়গায় মৃন্ময়ী মন্দিরের অবস্থান সেখানেই একটি বটগাছের নিচে ক্লান্ত হয়ে বসে পড়েন রাজা জগৎমল্ল । তারপর একের পর এক দৈব ঘটনা ঘটতে থাকে রাজা জগৎমল্লর সঙ্গে । কথিত আছে একাধিক দৈব ঘটনার সম্মুখীন হয়ে রাজা জগৎমল্ল্র সামনে দেবী মৃন্ময়ী আবির্ভূতা হয়ে ওই বট গাছের নিচে তাঁর মন্দির স্থাপনের নির্দেশ দেন । এরপর রাজা জগৎমল্লর উদ্যোগেই তৈরি হয় মৃন্ময়ীর মন্দির । ধীরে ধীরে প্রদ্যুম্নপুর থেকে মল্ল রাজাদের রাজধানী সরে আসে বন বিষ্ণুপুরে । মৃন্ময়ী মন্দিরের অদূরেই তৈরি হয় রাজ প্রাসাদ ।মৃন্ময়ীকেই কুলদেবী হিসাবে গ্রহণ করেন মল্ল রাজ পরিবার । ধুমধামে শুরু হয় মৃন্ময়ীর পুজো । রাজার পুজো । তাই কালের অমোঘ নিয়মে এই পুজোর রীতি নীতি ও আচারে মিশে গেছে প্রাচীনত্ব ও আভিজাত্য । কিন্তু আজ থেকে ১০২৩ বছর আগে যে বলী নারায়নী পুঁথি অনুযায়ী শুরু হয়েছিল মৃন্ময়ীর পুজোয় আজও সেই নিয়ম রয়েছে অব্যাহত । আজও নিয়ম মেনে জীতাষ্টমীর পরের দিন অর্থাৎ আজ নবমীর শুভ লগ্নে স্থানীয় গোপাল সায়ের থেকে প্রাচীন মৃন্ময়ীর মন্দিরে আনা হল বড় ঠাকুরানীকে । এই বড় ঠাকুরানী আসলে মহাকালী । রীতি মেনে  গোপাল সায়েরে বড় ঠাকুরানীর রূপী পটকে পুজো করে আনা হল মন্দিরে ।

সুপ্রাচীন রীতি মেনে দেবীর আগমনী বার্তা ঘোষিত হয় ন’বার তোপধ্বনীর মধ্য দিয়ে । নিয়ম মেনে এরপর প্রতিদিন মন্দিরে পুজীতা হবেন বড় ঠাকুরানী ।এরপর দুর্গা ষষ্ঠীতে মন্দিরে আসবেন মেজ ঠাকুরানী অর্থাৎ মহা লক্ষ্মী ও ছোট ঠাকুরানী অর্থাৎ মহা সরস্বতী ।ইতিহাসের অলিগলি বেয়ে সময় পেরিয়ে গেছে হাজার বছর । রাজ প্রাসাদ মিশে গেছে মাটিতে ।সেই আভিজাত্যও আজ নেই । তবু মৃন্ময়ী আছেন । মৃন্ময়ী আছেন প্রাচীন মল্ল রাজগড়ে । একসময় মল্ল ভূম জুড়ে কলেরা মহামারী ঠেকাতে মৃন্ময়ীর পুজোর অন্যতম অঙ্গ হিসাবে মল্ল রাজারা চালু করেছিলেন খচ্চরবাহিনীর পুজো ।তারপর থেকে তা চলে আসছে । ফের একবার বিশ্বজুড়ে শুরু হয়েছে মহামারী । বিষ্ণুপুরের রাজ পরিবার থেকে সাধারণ মানুষ সকলেরই বিশ্বাস তাদের প্রাণের দেবী মৃন্ময়ী ফের একবার এই বিশ্ব মহামারী থেকে উদ্ধার করবেন বিশ্ব বাসীকে ।

Mritunjoy Das 

Published by: Piya Banerjee
First published: September 11, 2020, 10:09 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर