শান্তিনিকেতনে পৌষমেলার নিরাপত্তার দায়িত্বে ১০০ জন প্রাক্তন সেনাকর্মী

শান্তিনিকেতনে পৌষমেলার নিরাপত্তার দায়িত্বে ১০০ জন প্রাক্তন সেনাকর্মী

বিশ্বভারতী সূত্রে জানা গিয়েছে, পৌষমেলায় চারদিন এরা মেলা চত্বর ও মেলা সংলগ্ন বিশ্বভারতীর নিরাপত্তাব্যবস্থা দায়িত্বে থাকবেন। এছাড়াও মেলা শেষ হয়ে যাওয়ার পর এই প্রাক্তন সেনা কর্মীদের বিশেষ ভূমিকা থাকবে।

  • Share this:

Supratim Das

#বোলপুর: শান্তিনিকেতনের পৌষ মেলাতে এবার ১০০ জন প্রাক্তন সেনাকর্মী নিরাপত্তার দায়িত্বে। বিশ্বভারতী কর্তৃপক্ষ বেশ কয়েকদিন আগেই প্রধানমন্ত্রীর দফতরে চিঠি দিয়ে নিরাপত্তা বাড়ানোর বিষয়টি-সহ মেলা মাঠের বর্জ্য পদার্থ নষ্ট করা ও বেশ কয়েকটি বিষয় আবেদন জানান চিঠির মাধ্যমে। চিঠির উত্তর এসেছিল কয়েকদিন আগেই ৷ পৌষ মেলা শুরুর আগেই তাই ১০০ জন প্রাক্তন সেনা কর্মী এসে পৌঁছল শান্তিনিকেতনে।

বিশ্বভারতী সূত্রে জানা গিয়েছে, পৌষমেলায় চারদিন এরা মেলা চত্বর ও মেলা সংলগ্ন বিশ্বভারতীর নিরাপত্তাব্যবস্থা দায়িত্বে থাকবেন। এছাড়াও মেলা শেষ হয়ে যাওয়ার পর এই প্রাক্তন সেনা কর্মীদের বিশেষ ভূমিকা থাকবে।

1126_IMG-20191220-WA0114

তবে শুধু প্রাক্তন সেনা কর্মীরাই নয় পৌষ মেলাতে থাকছে প্রচুর পরিমাণে রাজ্য পুলিশ আর তার সাথে প্রচুর পরিমাণে সিসিটিভি ক্যামেরা। এখনও পর্যন্ত জানা গিয়েছে, এই প্রাক্তন সেনা কর্মীরা রাজ্য পুলিশের সঙ্গে সংযোগ রেখেই নিরাপত্তার দায়িত্ব পালন করবেন। এইবারই প্রথম পৌষ মেলাতে থাকছে উপাচার্যের অস্থায়ী অফিস, যে অফিসে উপাচার্য মেলার দিন গুলিতে থাকবেন বলে জানা গিয়েছে। উল্লেখ্য, আর কয়েকদিন পরেই ২৪ ডিসেম্বর থেকে শান্তিনিকেতনে শুরু হতে চলেছে পৌষ মেলা। মেলা চলবে ২৮ ডিসেম্বর পর্যন্ত। মেলা কদিন পর্যটকেরা ভিড় করে থাকে। দিনে তো বটেই, রাতেও বিশ্বভারতী চত্বর এবং মেলা চত্বরের নিরাপত্তাব্যবস্থার দায়িত্ব প্রাক্তন সেনা কর্মীরা অনেকটাই নেবেন বলে জানা গিয়েছে।

তবে স্থানীয় বাসিন্দারা অনেকেই মনে করছেন, দেশের সামগ্রিক পরিস্থিতি আর তার সাথে এই মেলাতে প্রাক্তন সেনা কর্মীদের নিরাপত্তা রক্ষার দায়িত্ব পর্যটকদের অনেকটাই আশ্বস্ত করবে ৷ নিশ্চিন্তে মেলা ঘুরতে পারবেন তারা। সেই কারণে অনেকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন বিশ্বভারতী কর্তৃপক্ষকে।

First published: December 21, 2019, 10:30 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर