দক্ষিণবঙ্গ

  • associate partner
corona virus btn
corona virus btn
Loading

আইপিএল বেটিং কাণ্ডে পূর্ব বর্ধমান জেলায় গ্রেপ্তার ১০ , বাজেয়াপ্ত টাকা ও মোবাইল ফোন

আইপিএল বেটিং কাণ্ডে পূর্ব বর্ধমান জেলায় গ্রেপ্তার ১০ , বাজেয়াপ্ত টাকা ও মোবাইল ফোন

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, আইপিএল বেটিং চক্রে আরও কয়েকজন রাঘব বোয়াল জড়িত। তাদের সন্ধানে পুলিশ জোরদার তদন্ত চালাচ্ছে।

  • Share this:

#বর্ধমান: আই পি এল বেটিং চক্রের তদন্ত যতই এগোচ্ছে ততই বাড়ছে বেটিং চক্রে যুক্তদের সংখ্যা। গত কয়েকদিনে আইপিএল বেটিং চক্রে মেমারি ও বর্ধমান থানা এলাকা থেকে দশ জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

বর্ধমান থানা এলাকায় সেখ কামালউদ্দিন নামে একজনকে গ্রেফতার করা হয়। তাকেজিজ্ঞাসাবাদ করে রবিবার রাতে আরও দুজনকে গ্রেপ্তার করেছে বর্ধমান থানার পুলিশ। ওই দুজনের নাম সোহম রায় এবং খোকন দেবনাথ। এর মধ্যে সোহমের বাড়ি বর্ধমান শহরের কালনা গেট এলাকায় এবং খোকন দেবনাথের বাড়ি কাঞ্চননগরের উদয়পল্লী এলাকায়। ধৃতদের কাছ থেকে পুলিশ দুটি মোবাইল বাজেয়াপ্ত করেছে।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, আইপিএল বেটিং চক্রে আরও কয়েকজন রাঘব বোয়াল জড়িত। তাদের সন্ধানে পুলিশ জোরদার তদন্ত চালাচ্ছে। আইপিএল বেটিং চক্রে পূর্ব বর্ধমানে আগেই সাত জনকে গ্রেফতার করেছিল। ছ জনকে গ্রেপ্তার করে মেমারী থানার পুলিশ। চার জনকে গ্রেপ্তার করল বর্ধমান থানার পুলিশ।

৩০  সেপ্টেম্বর আইপিএল বেটিং চক্রে জড়িত থাকার অভিযোগে মেমারি থানার পুলিশ তিন জনকে গ্রেপ্তার করে। উদ্ধার হয় ৬০ হাজার টাকা ও কয়েকটি মোবাইল। তাদের পুলিশি হেফাজতে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করে আরও ছ জনের নাম জানতে পারে পুলিশ। শনিবার রাতে মেমারি শহরের বিভিন্ন জায়গায় অভিযান চালিয়ে পুলিশ ওই তাদের গ্রেপ্তার করে। উদ্ধার হয় বেশ কয়েকটি মোবাইল।

পাশাপাশি বর্ধমানের দেওয়ানদিঘী এলাকায় জুতোর দোকানের আড়ালে আইপিএল বেটিং চক্র চালানোর অভিযোগে বর্ধমান থানার পুলিশ কামালউদ্দিন সেখ নামে এক যুবককে গ্রেপ্তার করে।ধৃতের কাছ থেকে উদ্ধার হয় তিনটি মোবাইল ও নগদ ৬ হাজার ৫০০ টাকা।চক্রের সাথে জড়িত মূলপান্ডাদের খোঁজে তল্লাশী শুরু করেছে পুলিশ।পাশাপাশি বেটিং চক্রে টাকার উৎসের খোঁজ চালাচ্ছে পুলিশ। তদন্তকারী পুলিশ অফিসাররা জানিয়েছেন, এই চক্র অনেক দূর পর্যন্ত বিস্তৃত। এরমধ্যে বেশ কয়েকজন রাঘববোয়াল জড়িত রয়েছে। তাদের হদিশ পাওয়ার চেষ্টা চালানো হচ্ছে।

Saradindu Ghosh

Published by: Elina Datta
First published: October 5, 2020, 10:07 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर