Home /News /south-24-parganas /
South 24 Paraganas: নাব‍্যতা কমছে কাকদ্বীপ মৎসবন্দরের, অসুবিধায় মৎসজীবীরা

South 24 Paraganas: নাব‍্যতা কমছে কাকদ্বীপ মৎসবন্দরের, অসুবিধায় মৎসজীবীরা

ফিশিং

ফিশিং হারবারে দাঁড়িয়ে ট্রলার 

সামুদ্রিক মৎস্যজীবীদের জন্য রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে দক্ষিণ ২৪ পরগনাতে তিনটি মৎস্য বন্দর গড়ে তোলা হয়েছিল। এরমধ্যে সমস্ত সুবিধাযুক্ত সবথেকে বড় বন্দরটি হল কাকদ্বীপ মৎস্যবন্দর।

  • Share this:

    #কাকদ্বীপ : সামুদ্রিক মৎস্যজীবীদের জন্য রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে দক্ষিণ ২৪ পরগনাতে তিনটি মৎস্য বন্দর গড়ে তোলা হয়েছিল। এরমধ্যে সমস্ত সুবিধাযুক্ত সবথেকে বড় বন্দরটি হল কাকদ্বীপ মৎস্যবন্দর। কিন্তু বর্তমানে এই মৎসবন্দরটি একাধিক সমস‍্যায় জর্জরিত। নদীতে পলি পড়ার কারণে মৎসবন্দরের নাব‍্যতা কমার পাশাপাশি মৎসবন্দরের ড্রাই ডক ও হিমঘর বেহাল অবস্থায় থাকার কারণে অসুবিধায় পড়েছেন মৎসজীবীরা। কাকদ্বীপের পূর্ব গঙ্গাধরপুরে কালনাগিনী নদীর পাশেই এই বন্দর গড়ে ওঠে বাম আমলে। এই কালনাগিনী নদীর সংযোগকারি খালের সঙ্গে যুক্ত মুড়িগঙ্গা নদী। লাগোয়া খাল ও নদীতে নিয়মিত ড্রেজিং না হওয়ায় বর্তমানে ভরা জোয়ার ছাড়া ট্রলার ঢুকতে পারে না বন্দরে। এর ফলে অসুবিধায় পড়েছেন মৎসজীবীরা। নদীর নাব‍্যতা কম থাকায় প্রতিনিয়ত মৎসবন্দরে ট্রলার ঢুকতে বের হতে বেশ অসুবিধার সৃষ্টি হয়।

    ২০১৬ সালে তৎকালীন মৎস্যমন্ত্রী চন্দ্রনাথ সিংহ একটি হিমঘর ও ড্রাই ডকের উদ্বোধন করেন এই মৎসবন্দরে। তবে উদ্বোধনের পর কেটে গিয়েছে বেশ কয়েক বছর। কিন্তু এখনও পর্যন্ত কোন পরিষেবা চালু হয়নি বলে অভিযোগ মৎস্যজীবীদের। হিমঘর গড়ে না ওঠায় দামী মাছ সংরক্ষণ করা যায়না। অনেক সময় মাছে পচন ধরে। লোকসানের মুখে পড়তে হয় মৎস্যজীবীদের।

    আরও পড়ুনঃ ঘোড়ামাড়াতে শিক্ষা সংকট দূর করতে খোলা হল পঞ্চায়েতের পাঠশালা

    ড্রাই ডকটি তৈরী করা হয়েছিল ট্রলার মেরামতির জন্য। সেটিও নির্মাণে ত্রুটি থাকায় ট্রলার মেরামত করা যায়না। এই বন্দর ব্যবহার করে হাজারের বেশী ট্রলার। প্রায় লক্ষাধিক শ্রমিক, মৎস্যজীবী এই বন্দরের ওপর নির্ভরশীল। মৎসবন্দরের সমস‍্যাগুলি দ্রুত সমাধান করা না হলে ভবিষ‍্যতে আরও সমস‍্যা বাড়বে বলে মনে করছেন মৎসজীবীরা।

    আরও পড়ুনঃ গৃহবধূর উপর পাশবিক অত‍্যাচার! শরীরে গরম রডের ছ‍্যাঁকা দেওয়ার অভিযোগ

    এই সমস্যা নিয়ে কাকদ্বীপের মৎসজীবী ইউনিয়নের সম্পাদক সতীনাথ পাত্র জানান কাকদ্বীপ মৎসবন্দরে একাধিক সমস্যা তৈরী হয়েছে। বিশেষ করে হিমঘরের সমস্যার কারণে দামী মাছ সংরক্ষণ করা যাচ্ছেনা। ফলে কম দামেই মাছগুলি বিক্রি করে দিতে হচ্ছে। দ্রুত সমস‍্যার সমাধান হলে মৎসজীবীরা খুবই উপকৃত হবেন।

    Nawab Mallick
    Published by:Soumabrata Ghosh
    First published:

    Tags: Kakdwip, South 24 Parganas

    পরবর্তী খবর