একবার বা দু’বার নয়, লালুর জেল যাত্রা এই নিয়ে নবম বার !

Siddhartha Sarkar | News18 Bangla
Updated:Dec 23, 2017 06:00 PM IST
একবার বা দু’বার নয়, লালুর জেল যাত্রা এই নিয়ে নবম বার !
Photo: ANI
Siddhartha Sarkar | News18 Bangla
Updated:Dec 23, 2017 06:00 PM IST

রাঁচি: জেলে যাওয়াটা এখন প্রায় অভ্যাসে পরিণত করে ফেলেছেন লালু প্রসাদ যাদব ৷ শনিবার পশুখাদ্য কেলেঙ্কারির দেওঘর ট্রেজারি মামলায় দোষী সাব্যস্ত হয়েছেন আরজেডি প্রধান লালু প্রসাদ যাদব-সহ ১৫ জন ৷ মামলায় বেকসুর খালাস আরেক প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী জগন্নাথ মিশ্র-সহ ৭ জন ৷ আগামী ৩ জানুয়ারি সাজা ঘোষণা হবে লালুর ৷ ততদিন পর্যন্ত তাঁকে হেফাজতে নিল পুলিশ ৷ অর্থাৎ ৩ জানুয়ারি পর্যন্ত রাঁচির বিরসা-মুণ্ডা সেন্ট্রাল জেলই ঠিকানা হতে চলেছে আরজেডি প্রধানের ৷

লালুর জেলে যাওয়া অবশ্য একই প্রথমবার নয় ৷ এর আগে একবার নয়, দু’বার নয়, মোট ন’বার জেলযাত্রা করেছেন লালু ৷ রাঁচির বিরসা মুণ্ডা সেন্ট্রাল জেলে অবশ্য এই নিয়ে তিন বার যাচ্ছেন লালু ৷ জেলে আসছেন বিহারের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী ৷ নিরাপত্তা ব্যবস্থাও তাই বাড়ানো হয়েছে ৷ ১৯৯০-র পর লালুর সব সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করার রায় দিয়েছে রাঁচির সিবিআই আদালত ৷ এদিন RC 64A/96 নম্বর মামলায় লালুকে দোষী সাব্যস্ত করে সিবিআইয়ের আদালত ৷ নিজের ৪০ বছরেরও বেশি রাজনৈতিক কেরিয়ারে এর আগেও বহুবার জেলে গিয়েছেন লালু ৷ তাঁর আইনজীবী চিত্তরঞ্জন প্রসাদ সিং News18-কে জানান, শুধুমাত্র পশুখাদ্য কেলেঙ্কারি সংক্রান্ত মামলাতেই পাঁচবার এর আগে জেলে গিয়েছেন লালু ৷

পশুখাদ্য কেনার ভুয়ো বিল দেখিয়ে চাইবাসা, দেওঘরের মতো বিভিন্ন সরকার ট্রেজারি থেকে টাকা লোপাটের দায়ে একাধিক মামলা রয়েছে লালু-সহ তাঁর আমলের বেশ কিছু মন্ত্রী-আমলার বিরুদ্ধে। ২০১৩ সালে চাইবাসা ট্রেজারির মামলায় লালু দণ্ডিত হওয়ার পরে তাঁর বিরুদ্ধে ঝুলে থাকা অন্য মামলাগুলি রদ করে দেয় রাঁচি হাইকোর্ট। তখন হাইকোর্টের বক্তব্য ছিল, একটি মামলায় দণ্ডিতের বিরুদ্ধে একই নথিপত্র ও একই রকম সাক্ষীর ভিত্তিতে একই ধরনের অন্য মামলাগুলি চালানোর কোনও প্রয়োজন নেই। এরপর ২০১৪ সালের এই রায়ের বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টে যায় সিবিআই। চলতি বছরের মে মাসে সুপ্রিম কোর্ট হাইকোর্টের রায়কে খারিজ করে প্রতিটি মামলার আলাদা আলাদা শুনানি চালানোর নির্দেশ দেয়। এরপর গত কয়েক মাস ধরে লাগাতার শুনানি চলছে। দেওঘর ট্রেজারি থেকে ৮৫ কোটি তছরুপের মামলার শুনানি পর্ব শেষ হয়। এ দিন তারই রায় ঘোষণা হয়। এই মামলায় মোট অভিযুক্তের সংখ্যা ছিল ৩৪। তার মধ্যে ১১ জন মারা গিয়েছেন।

First published: 05:04:13 PM Dec 23, 2017
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर