Home /News /purba-medinipur /
East Midnapore News: সরকারি নির্দেশে শিল্পাঞ্চলের কারখানা গুলিতে জেলা প্রশাসনের নজরদারি

East Midnapore News: সরকারি নির্দেশে শিল্পাঞ্চলের কারখানা গুলিতে জেলা প্রশাসনের নজরদারি

পূর্ব মেদিনীপুর জেলা প্রশাসন কার্যালয়

পূর্ব মেদিনীপুর জেলা প্রশাসন কার্যালয়

সরকারি নির্দেশে শিল্পাঞ্চলগুলিতে নিয়োগ প্রক্রিয়া থেকে বেতন প্রক্রিয়া সবকিছুতেই নজরদারি শুরু করল জেলা প্রশাসন।

  • Share this:

    #হলদিয়া: সরকারি নির্দেশে শিল্পাঞ্চলগুলিতে নিয়োগ প্রক্রিয়া থেকে বেতন প্রক্রিয়া, সবকিছুতেই নজরদারি শুরু করল জেলা প্রশাসন। বারবার শিল্পাঞ্চলে কারখানায় নিয়োগ প্রক্রিয়া বেতন কাঠামো একাধিক বিষয়ে রাজ্যের শাসক দলের হস্তক্ষেপের অভিযোগ উঠত। টাকার বিনিময়ে কারখানায় শ্রমিক নিয়োগ, আবার কারখানার শ্রমিকদের বেতন নিয়েও অভিযোগ বিস্তর শাসকদলের বিরুদ্ধে। অভিযোগের কেন্দ্র বিন্দুতে শাসক দল পরিচালিত শ্রমিক সংগঠনের নেতারা। এবার আর কারখানায় কর্মী নিয়োগ থেকে কর্মীদের বেতন সবকিছু ওপর শাসকদলের কর্মী সংগঠনের হস্তক্ষেপ নয় বরং জেলা প্রশাসনের নজরদারি শুরু হলো সরকারি নির্দেশে।

    পূর্ব মেদনীপুর জেলার হলদিয়া ও কোলাঘাট শিল্পাঞ্চল এলাকায় কারখানায় শ্রমিকদের বেতন নিয়ে শ্রমিক অসন্তোষের সৃষ্টি হত। কেননা শ্রমিকদের অভিযোগ তাদের প্রাপ্য বেতন থেকে টাকা কেটে নিত শ্রমিক সংগঠন। এছাড়াও কারখানায় কর্মী নিয়োগের ক্ষেত্রে শ্রমিক সংগঠনের প্রভাব ছিল বিস্তর। টাকা নিয়ে শ্রমিক সংগঠন এক প্রকার প্রভাব খাটিয়ে কর্মী নিয়োগ করত। পূর্ব মেদিনীপুর জেলার দুই শিল্পাঞ্চল শহরে সেই সব দিন এবার অতীতের পৃষ্ঠায়। প্রশাসনের হলদিয়া শিল্পাঞ্চলের নজরদারির লক্ষ্যে হলদিয়া মহকুমাশাসকের অফিসে জেলাশাসকের বৈঠক।

    আরও পড়ুন: কেন্দ্র ও রাজ্যের রিপোর্টে কালাজ্বর নির্মূল হয়েছে বাংলার এই জেলা থেকে

    সরকারি নির্দেশে শিল্পাঞ্চল নজরদারি শুরু করল জেলা প্রশাসন। কারখানা ও শ্রমিক সম্পর্ক বজায় রাখতে ইতিপূর্বে হলদিয়া ও কোলাঘাট শিল্পাঞ্চলের জন্য সরকারি নির্দেশে একটি কমিটি তৈরী হয়েছে। হলদিয়া শিল্পাঞ্চলে আগামীদিনে কীভাবে নিয়োগ করা সহ সমস্যা সমাধান করা হবে তার খসড়া করা হয়। হলদিয়ায় বেকার যুবক যুবতীদের কর্মসংস্থান কীভাবে করা হবে সে বিষয় আলোচিত হয়। হলদিয়ায় ১১ টি শিল্পসংস্থায় সিওডি আটকে রয়েছে, তা দ্রুত সম্পন্ন করতে কড়া পদক্ষেপ জেলাপ্রশাসকের।

    শিল্পাঞ্চলের বিভিন্ন কারখানার সমস্যা দূরীকরণের লক্ষ্যে বৈঠক হয়। বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন পূর্ব মেদিনীপুর জেলাশাসক পূর্নেন্দু কুমার মাজী, হলদিয়া মহকুমাশাসক সুপ্রভাত চট্টোপাধ্যায়, হলদিয়া উন্নয়ন পর্ষদের চেয়ারম্যান জ্যোতির্ময় কর, অতিরিক্ত জেলাশাসক সৌভিক চট্টোপাধ্যায় সহ হলদিয়া ফ্যাক্টরী ইন্সপেক্টর, রাজ্য লেবার কমিশনার, শ্রমদপ্তরের ও প্রশাসনের কর্মকর্তরা। বৈঠকের শেষে জেলাশাসক পূর্নেন্দু কুমার মাজী জানান, হলদিয়ায় বিভিন্ন কারখানায় শ্রমিকদের টাকা আটকে রাখা যাবে না। কোনও রকমের দুর্নীতি মানা হবে না। বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়েছে, হলদিয়া শিল্পাঞ্চলে ১১ টি কারখানার সিওডি বাকি রয়েছে। এক একটি কারখানাকে ডেকে সিওডি সম্পন্ন করা হবে। তালিকায় রয়েছে আইভিএল বানসারি পেট্রোকেম, ইমামি এগ্রাটেক, হিন্দুস্থান ইউনিলিভার, পেট্রোকার্বন কেমিক্যালস, অ্যাজিস লজিস্টিকস, মানকসিয়া অ্যালুমিনিয়াম, মানকসিয়া স্টিল, ইলেক্ট্রো স্টিল কাস্টিং, আদানি, আরডিবি রসায়ন, ইন্দোরামা কেমিক্যাল।

    আরও পড়ুন: গ্রামে ঢোকার রাস্তা যেন কাদামাখা পুকুর! ক্ষোভ গ্রামবাসীদের, নির্বিকার প্রশাসন

    প্রথমে ২৬ জুলাই ধানসেরি পেট্রোকেমিক্যালকে ডাকা হয়েছে। এই কারখানার প্রায় ২ বছর ধরে সিওডি আটকে রয়েছে। সেই কাজ নিস্পত্তি করতে পদক্ষেপ নেওয়া হবে। এই চুক্তি সম্পন্ন করতে ত্রিপাক্ষিক বৈঠক করা হবে। মালিক পক্ষ, শ্রমিক পক্ষ তথা রেজিস্টার্ড ইউনিয়ান ও শ্রম দফতরের সঙ্গে জেলা প্রশাসন। এই মর্মে কমিটি বিভিন্ন কারখানার সিওডি এর কাজ করবে। মূল উদ্দেশ্য শিল্পাঞ্চল তার উৎপাদন সঠিক রেখে সমস্ত শ্রমিকের স্বার্থ দেখা হবে। সঠিক কাজের জন্য সঠিক মূল্য শ্রমিকরা পাবে। এই বেতন চুক্তির আওতায় হলদিয়ার ৩১৫০ জন শ্রমিক সুবিধা পাবে। কারুর কোন অভিযোগ থাকলে তা ডেস্ক কিংবা নির্দিষ্ট থানায় অভিযোগ করতে পারে। পারে বসে সমাধন করা হবে। হলদিয়ার যুবক যুবতিরা যাতে কাজের সুযোগ পায়, স্বচ্ছতার সঙ্গে কাজ পায়, পুরোপুরি ফ্রি এ্যান্ড ফেরার পদ্ধতিতে করা হয় সেদিকে নজর রাখা হবে।

    সৈকত শী

    Published by:Ananya Chakraborty
    First published:

    Tags: Haldia, Purba medinipur

    পরবর্তী খবর