Home /News /purba-bardhaman /
Purba Bardhaman: নাইলনের দড়িতে ফাঁস লেগে মৃত্যু আট বছরের শিশুর

Purba Bardhaman: নাইলনের দড়িতে ফাঁস লেগে মৃত্যু আট বছরের শিশুর

ঘরের মাঁচা থেকে ঝুলে থাকা একটি নাইলনের দড়িতে চেপে দোল খেতে গিয়ে মর্মান্তিক পরিনতি হল পূর্ব বর্ধমান জেলার আউশগ্রামের গোপীনাথবাটি গ্রামের এক শিশুর ।

  • Share this:

    #পূর্ব বর্ধমান : ঘরের মাঁচা থেকে ঝুলে থাকা একটি নাইলনের দড়িতে চেপে দোল খেতে গিয়ে মর্মান্তিক পরিনতি হল পূর্ব বর্ধমান জেলার আউশগ্রামের গোপীনাথবাটি গ্রামের এক শিশুর । জানা গিয়েছে, ওই দড়ির ফাঁস লেগে যায় শিশুর গলায় । কিন্তু সেই সময় বাড়িতে কেউ না থাকায় তাকে ফাঁস মুক্ত করা সম্ভব হয়নি। পরে স্থানীয় এক ব্যক্তির নজরে পড়লে শিশুকে উদ্ধার করে দ্রুত হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয় । তবে শেষ রক্ষা হয়নি । খবর পেয়ে গুসকরা ফাঁড়ির পুলিশ গিয়ে শিশুর মৃতদেহটি ময়নাতদন্তের জন্য পাঠায়। মৃত শিশুর নাম রাজদীপ বাগদি (৮) বলে জানিয়েছে পুলিশ। জানা গিয়েছে, রাজদীপরা দু’ভাইবোন। সে ছোট। দিদি মিতা দিগনগর উচ্চ বিদ্যালয়ে সপ্তম শ্রেণীর ছাত্রী। তাঁদের বাবা ধনেশ্বর বাগদি ও মা মন্দিরাদেবী জনমজুরির কাজ করেন। এদিন সকালে মাঠে চাষের কাজে বেরিয়ে গিয়েছিলেন রাজদীপের বাবা ও মা। আর দিদি গিয়েছিল স্কুলে। বাড়িতে একাই ছিল রাজদীপ।

    প্রথমে কিছুটা সময় সে পাড়ার বন্ধুদের সাথে খেলাধুলা করে। তারপর সে বাড়ি ফিরে আসে। আপন মনেই সে বাড়িতে খেলা করছিল। তারই মাঝে বারান্দায় টাঙানো নাইলনের একটি দড়িতে দোল খাওয়ার চেষ্টা করছিল। আর তখনই ঘটে যায় মর্মান্তিক ঘটনাটি।

    আরও পড়ুনঃ এশিয়ান যোগাসন স্পোর্টস চ্যাম্পিয়নশিপে জোড়া স্বর্ণ পদক জিতল রামিশা 

    জানা গেছে, ওই দড়িতে ঝোলানো ছিল শুকনো পাতা ভর্তি কয়েকটি বস্তা। তার মধ্যে একটি বস্তার উপরে বসে দোল খাচ্ছিল রাজদীপ। সেই সময় বস্তা সরে গিয়ে নাইলনের দড়ির ফাঁস লেগে যায় ওই শিশুর গলায়। কিছুক্ষণের মধ্যেই সে নিস্তেজ হয়ে পড়ে।

    আরও পড়ুনঃ স্কুলে যাওয়ার রাস্তা বেহাল! মেরামতের দাবিতে অবরোধ পড়ুয়াদের

    বেশ কিছুক্ষন পরে প্রতিবেশী কিশোর বাগদির বিষয়টি নজরে পড়ে। শিশুটিকে নিস্তেজ অবস্থায় ঝুলতে দেখে তাঁর সন্দেহ হয়। তিনি গিয়ে প্রথমে দড়ি কেটে শিশুটিকে উদ্ধার করেন। তারপর তাকে তড়িঘড়ি গুসকরা হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। কিন্তু চিকিৎসকরা শিশুটিকে মৃত বলে ঘোষণা করেন।

    Malobika Biswas
    Published by:Soumabrata Ghosh
    First published:

    Tags: Purba bardhaman

    পরবর্তী খবর