পাঁচমিশালি

corona virus btn
corona virus btn
Loading

জলবায়ুর পরিবর্তনে গলছে বরফ, ফুঁসছে সমুদ্র!‌ ভেসে যেতে পারে অনেক বড় শহর

জলবায়ুর পরিবর্তনে গলছে বরফ, ফুঁসছে সমুদ্র!‌ ভেসে যেতে পারে অনেক বড় শহর

এছাড়াও গ্রিনল্যান্ডও দ্রুত বরফের পরিমাণ হারাচ্ছে। এর ফল কি হতে পারে?‌ আগামী ৮০ বছরের মধ্যে অর্থাৎ ২১০০ সালের মধ্যে সমুদ্রতল বা সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা বাড়তে পারে এক থেকে চার ফুট।

  • Share this:

জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে উত্তর মেরু এবং দক্ষিণ মেরু, পৃথিবীর দুই শীতলতম অংশেই বরফ গলার খবর বিজ্ঞানীরা বহু বছর ধরেই দিচ্ছেন। মানুষের তবুও হুঁশ ফেরেরিন। ফলে বাড়তি দূষণে সেই বরফ গলার পরিমাণ বাড়ছে বৈ কমছে না। মেরু অঞ্চলের প্রাণীদের জীবন ধারণ একান্তই অসম্ভব হয়ে পড়ছে। বিপদ রয়েছে মানুষেরও। অনেকেই হয়ত জানেন না বরফ গলার ফলে কি হচ্ছে!‌

সাধারণত দুই মেরুর বরফ গলে পাহাড়-পর্বত পেরিয়ে নদীতে এসে পড়ে। সেই নদী জলবে পরে সাগরে। ফলে মেরুর বরফ গলে যদি প্রচুর পরিমাণে জলের সৃষ্টি হয় তাহলে আরও বেশি করে জল নদীর থেকে সমুদ্রে গিয়ে পড়তে পারে। তার ফলে তৈরি হতে পারে জলোচ্ছ্বাস এবং সমুদ্র পৃষ্ঠের উচ্চতা বৃদ্ধি। আন্তর্জাতিক সংগঠনের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, এই আবহাওয়া পরিবর্তনের ঘটনা যত বাড়তে থাকবে ততই সমুদ্রতল তার উচ্চতা বাড়াতে থাকবে। বাড়তে থাকবে কার্বন-ডাই-অক্সাইড। আগের থেকে বেশি দ্রুত মেরু অঞ্চলের বরফ গলে যাবে। শেষ পাঁচ বছরে প্রতি বছর ৫ মিলিমিটার মতো সমুদ্রতলের উচ্চতা বেড়েছে, কিন্তু ২০০৭ থেকে ১৬, প্রতিবছর চার মিলিমিটার করে উচ্চতা বাড়চয ফলে বোঝাই যাচ্ছে দ্রুত বেড়ে যাচ্ছে সমুদ্রতলের উচ্চতা। ২০১৫ থেকে ১৮ সালের মধ্যে দেখা গিয়েছে, মেরু অঞ্চলে গ্রীষ্মকালে সবচেয়ে কম অংশে রয়েছে বরফ। ২০১০ পর্যন্ত অঞ্চল গুলি গ্রীষ্মকালেও বরফে ঢাকা থাকতো, সে অঞ্চলের বরফ গলতে শুরু করেছে। আন্টার্টিকায়ও দেখা যাচ্ছে একই ঘটনা ঘটছে। ২০১৭–১৮ সালের গ্রীষ্মে এখানে সবচেয়ে কম বরফ দেখা গিয়েছে যা পূর্বকালীন ইতিহাসে কোন দিন দেখা যায়নি।

এছাড়াও গ্রিনল্যান্ডও দ্রুত বরফের পরিমাণ হারাচ্ছে। এর ফল কি হতে পারে?‌ আগামী ৮০ বছরের মধ্যে অর্থাৎ ২১০০ সালের মধ্যে সমুদ্রতল বা সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা বাড়তে পারে এক থেকে চার ফুট। আর সমুদ্রতলের উচ্চতা বাড়ার ফলে বহু অংশে বন্যা হতে পারে, জলে ভেসে যেতে পারে বহু বড় বড় সমুদ্র উপকূলবর্তী শহর, তৈরি হতে পারে সাগরে ঘূর্ণিঝড়, অত্যধিক মাত্রায় ঘূর্ণিঝড় তৈরি হওয়া সাগরতলের উষ্ণতা বৃদ্ধির অন্যতম একটা কারণ। আ সেই কারণেই মার্কিন উপকূল হোক বঙ্গোপসাগর, একের পর এক ঘূর্ণিঝন মানুষকে দেখতে হচ্ছে।

Published by: Uddalak Bhattacharya
First published: October 9, 2020, 11:45 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर