দুুপুরের শেষভাগ থেকে শুরু হচ্ছে দিনের অশুভ যোগ, এড়িয়ে চলুন

পঞ্চাঙ্গ ১৬ মার্চ: দেখে নিন নক্ষত্রযোগ, শুভ মুহূর্ত, রাহুকাল এবং দিনের অন্য লগ্ন!

পঞ্চাঙ্গ ১৬ মার্চ: দেখে নিন নক্ষত্রযোগ, শুভ মুহূর্ত, রাহুকাল এবং দিনের অন্য লগ্ন!

  • Share this:

#কলকাতা: পঞ্চ অঙ্গের সমাহার, তাই জ্যোতিষশাস্ত্রের ভাষায় একে বলা হচ্ছে পঞ্চাঙ্গ। আদতে এটি গ্রহ-নক্ষত্র, বিশেষ করে চাঁদের অবস্থানের উপরে ভিত্তি করে রচিত প্রাচীন বৈদিক দিনপঞ্জি। যেখানে উল্লেখ থাকে নানা শুভ এবং অশুভ মুহূর্তের। প্রচলিত বিশ্বাস- এই মুহূর্তগুলিতে যে কাজ করা হচ্ছে, সেই অনুসারে শুভাশুভ ফললাভ হয়ে থাকে।

এই সংক্রান্ত আলোচনায় আসার আগে আরেকটি কথা একটু ব্যাখ্যা না করলেই নয়। বলা তো হচ্ছে পাঁচটি অঙ্গ, কিন্তু এগুলো আসলে কী?

ভারতীয় দিনপঞ্জির এই পাঁচটি অঙ্গ হল তিথি, বার, নক্ষত্র, যোগ এবং করণ। সেই অনুসারে ১৬ মার্চের কিছুটা পড়েছে ২০৭৭ বিক্রম সম্বতের ফাল্গুন মাসের শুক্লপক্ষের তৃতীয়া তিথিতে। রাজা বিক্রমাদিত্য যে বছর গণনার রীতি প্রবর্তন করেছিলেন, সেই বিক্রম সম্বত মেনেই এই পঞ্চাঙ্গ বর্তমানে নির্ধারণ করা হয়ে থাকে। বার হল মঙ্গল এবং এই তৃতীয়া তিথি থাকবে ১৬ মার্চ রাত ৮টা ৫৮ মিনিট পর্যন্ত। এর পরে শুরু হয়ে যাবে শুক্লপক্ষের চতুর্থী তিথি।

মঙ্গলবার দিনটি বজরঙ্গবলী হনুমানের উদ্দেশে নিবেদিত। অনেকে বলেন, এই বারে তিনি জন্মগ্রহণ করেছিলে। তাই ভক্তরা অনেকেই এই দিনটি উপবাস ও শুদ্ধাচারে কাটান।

পঞ্চাঙ্গ মতে আজ সূর্যোদয় হয়েছে সকাল ৬টা ৩০ মিনিটে, সূর্যাস্ত হবে সন্ধ্যা ৬টা ৩০ মিনিটে। অন্য দিকে, চন্দ্রোদয় হবে ১৭ মার্চ সকাল ৮টা ১৩ মিনিটে । চন্দ্র অস্ত যাবে ১৭ মার্চ রাত ৯টা ০৯ মিনিটে।

এই ২০৭৭ বিক্রম সম্বতের ফাল্গুন মাসের শুক্লপক্ষের তৃতীয়া তিথির নক্ষত্র হল অশ্বিনী। ১৭ মার্চ, বুধবার রাট ১১টা ২৯ মিনিট পর্যন্ত অশ্বিনী নক্ষত্রের অবস্থান থাকবে।

সূর্য অবস্থান করবে মীন রাশিতে। চন্দ্রও অবস্থান করবে মেষ রাশিতে।

শুভ মুহূর্ত- ১৬ মার্চ অভিজিৎ মুহূর্ত শুরু হচ্ছে দুপুর ১২টা ০৬ মিনিটে, শেষ হচ্ছে দুপুর ১২টা ৫৪ মিনিটে। অমৃতকাল শুরু হচ্ছে ১৬ মার্চ রাত ১১টা ২৮ মিনিটে, শেষ হচ্ছে রাত ১টা ১৫ মিনিটে। এই অভিজিৎ মুহূর্ত এবং অমৃতকালকে ভারতীয় জ্যোতিষশাস্ত্রের অন্যতম পুণ্যলগ্ন বলে বিবেচনা করা হয়ে থাকে। যে কোনও নতুন কাজ, শুভ কাজ শুরু করার এটি প্রকৃষ্ট সময়।

অশুভ মুহূর্ত- পঞ্চাঙ্গ মতে ১৬ মার্চ রাহুকাল শুরু হচ্ছে দুপুর ৩টে ৩০ মিনিটে, শেষ হচ্ছে বিকেল ৫টা ০০ মিনিটে। এই সময়ে নতুন কোনও কাজ শুরু করাটা ঠিক হবে না।

Published by:Debalina Datta
First published: