আত্মীয়ের বাড়িতে পিকনিকের বিরিয়ানি পৌঁছতে গিয়ে খুন যুবক! মিলল ক্ষতবিক্ষত রক্তাক্ত দেহ

আত্মীয়ের বাড়িতে পিকনিকের বিরিয়ানি পৌঁছতে গিয়ে খুন যুবক!  মিলল ক্ষতবিক্ষত রক্তাক্ত দেহ

শরীরে একাধিক ধারালো অস্ত্রের কোপ। মৃত সায়েম মোমিন পেশায় প্যাথলজি ল্যাবের কর্মী।

  • Share this:

#মালদহ: আত্মীয়ের বাড়িতে পিকনিকের বিরিয়ানি পৌঁছে দিতে গিয়ে নিখোঁজ যুবক। পরের দিন সকালে বাড়ির কাছে মিলল রক্তাক্ত দেহ।মালদহের কালিয়াচকের ডাঙ্গা এলাকার ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়াল । হদিশ নেই যুবকের মোবাইলেরও। শরীরে একাধিক ধারালো অস্ত্রের কোপ। মৃত সায়েম মোমিন পেশায় প্যাথলজি ল্যাবের কর্মী। ঘটনার তদন্তে নেমেছে  কালিয়াচক থানার পুলিশ। খুনের পিছনে পরিচিত কেউ যুক্ত বলে প্রাথমিক অনুমান পুলিশের।

পরিবারের লোকজনের দাবি, রবিবার রাতে পারিবারিক পিকনিকের আয়োজন করা হয়। সেখানে পরিবারের সমস্ত লোকজন বিরিয়ানি তৈরি করে খান। এরপর ওই যুবক বিরিয়ানি  নিয়ে গ্রামে আরেক আত্মীয়ের বাড়িতে সেটি দিতে যান ।

এরপর রাত পর্যন্ত তার খোঁজ না পেয়ে ফোন করেন পরিবারের লোকজন। সেই সময় ফোন বন্ধ ছিল।  পরে জানা যায়, যে আত্মীয়ের বাড়িতে যাওয়ার কথা বলে বাড়ি থেকে বেরিয়ে ছিল সেই আত্মীয়ের বাড়িতেও পৌঁছাননি তিনি। রাতে খোঁজাখুঁজি করেও তাকে পাওয়া যায়নি । সোমবার সকালে জালালপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের বড়নগর ডাঙ্গা এলাকায় ৩৪ নম্বর জাতীয় সড়কের ধারে ক্ষতবিক্ষত অবস্থায় দেহ পড়ে থাকতে দেখেন স্থানীয়রা। মৃত যুবকের পেটে একাধিক ধারালো অস্ত্রের আঘাত রয়েছে । খবর পেয়ে কালিয়াচক থানার পুলিশ মৃতদেহ উদ্ধার করে মালদহ মেডিকেল কলেজে পাঠায়।

খুনের কারণ নিয়ে দানা বেঁধেছে রহস্য। পরিবারের দাবি ,মৃত যুবকের সঙ্গে কারোর কোনও রকম শত্রুতা বা গোলমাল ছিল বলে তাদের জানা নেই।খুনের পিছনে  প্রেম বা বিবাহ বহির্ভূত সম্পর্ক থাকার সম্ভাবনাও উড়িয়ে দিচ্ছে না পুলিশ। তবে খুনি পরিচিত বলে প্রাথমিক ধারণা পুলিশের।

First published: 06:36:23 PM Jan 13, 2020
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर