Alipurduar Barbaric Incident: আলিপুরদুয়ারে মধ্যযুগীয় বর্বরতা! সালিশির নামে আদিবাসী মহিলাকে নগ্ন করে মারধর, Viral...

আলিপুরদুয়ারে লিশির নামে আদিবাসী মহিলাকে নগ্ন করে মারধর। প্রতীকী ছবি।

বিবাহবহির্ভূত সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েছেন এক আদিবাসী মহিলা। সবক শেখাতে সালিশি সভা বসিয়ে সকলের সামনে তাঁকে নগ্ন করে ব্যাপক মারধর করা হয়।

  • Share this:

    #আলিপুরদুয়ার: মধ্যযুগীয় বর্বরতা আলিপুরদুয়ারে! বিবাহবহির্ভূত সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েছেন এক আদিবাসী মহিলা। সবক শেখাতে সালিশি সভা বসিয়ে সকলের সামনে তাঁকে  নগ্ন করে  ব্যাপক মারধর করা হয়। এমনকি গোটা ঘটনা ক্যামারাবন্দী করে রাখেন অনেকেই। নির্মম অত্যাচারের লজ্জাজনক সেই ভিডিও ভাইরাল হয়ে গিয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। ইতিমধ্যেই সেই ভিডিও ফরেনসিক পরীক্ষার জন্য পাঠিয়েছে পুলিশ। গ্রেফতার করা হয়েছে তিন অভিযুক্তকে।

    আলিপুরদুয়ারের কুমারগ্রাম থানার পশ্চিম চেংমারী এলাকায় ঘটনাটি ঘটে গত বুধবার। তারপর থেকে নিখোঁজ ওই মহিলা। ঘটনায় এলাকারই বেশ কয়েকজন জড়িত বলে স্থানীয়দের একাংশের অভিযোগ। স্থানীয় বাসিন্দারা জানিয়েছেন, মাস ছ'য়েক আগে ওই মহিলা বিবাহবহির্ভূত সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েছিলেন। তাঁকে বিয়ে করে স্বামীর ঘরও ছাড়েন। কিন্তু, পরবর্তীতে যাকে তিনি বিয়ে করে তিনি স্বামীকে ছেড়েছিলেন, সেই ব্যক্তিই তাঁকে ত্যাগ করে। ঘটনার কথা জানতে পারেন তাঁর স্বামীও। এরপর নিজেদের মধ্যে কথা বলে  বৃহস্পতিবার স্ত্রীকে পশ্চিম চেংমারীর বাড়িতে ফিরিয়ে নিয়ে আসেন। অভিযোগ, ঘটনাটি স্বামী-স্ত্রীর মেনে নিলেও এলাকার মাতব্বরেরা মেনে নেননি। এমনকি সালিশি বসিয়ে বিচার শুরু করেন বৃহস্পতিবার।

    স্থানীয়রাই জানিয়েছেন,  রাতে ওই মহিলাকে ঘর থেকে টেনে বের করে নগ্ন করে মারধর করা হয় এবং মোবাইলেও তুলে রাখে ওই ন্যাক্কারজনক ঘটনা। যদিও মারধরের পর থেকে ওই মহিলা নিখোঁজ । ওই ঘটনার পর কেউ তাঁকে আর এলাকায় দেখেনি। স্থানীয় পঞ্চায়েত সদস্য-সহ অনেকেই চারদিকে খোঁজ করেও কোনও হদিস পাননি তাঁর। পরে অবশ্য মহিলার স্বামী জানান তাঁকে উদ্ধার করা হয়েছে।

    এ দিকে, রবিবার লজ্জাজনক ঘটনাটির ভিডিও এলাকায় চড়িয়ে যায়। তাতেই নড়েচড়ে বসে প্রশাসন। ঘটনার কথা জানাজানি হয়। নিন্দার ঝড় ওঠে সোশ্যাল মিডিয়াতেও। ঘটনা প্রসঙ্গে কুমারগ্রাম ব্লকের তৃণমূল কংগ্রেসের ব্লক সভাপতি ধীরেশ চন্দ্র রায় বলেন, "অত্যন্ত নিন্দনীয় ঘটনা। সভ্য সমাজে বর্বরতার কাজ চলছে, দলীয় ভাবেও তদন্ত হবে। প্রশাসনকে অনুরোধ করব উপযুক্ত ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য। আলিপুরদুয়ার জেলা পুলিশ সূত্রে খবর , ওই ভিডিওর সত্যতা যাচাই চলছে। ঘটনা সত্যি হলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে। ঘটনার পর ওই মহিলাকে উদ্ধার করে কামাখ্যাগুড়ি ফাঁড়ির পুলিশ। নির্যাতিত আদিবাসী মহিলার স্বামী মঙরা কুজুর জানান, দোষীদের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ করা হয়েছে। তাঁর স্ত্রীকে উদ্ধার করা হয়েছে। নিগৃহীতা তাঁর বয়ানে ১১ জনের নাম জানিয়েছেন।

    তথ্য সহায়তাঃ রাজকুমার কর্মকার।

    Published by:Shubhagata Dey
    First published: