উত্তরবঙ্গজুড়ে বাড়ছে মানুষ-বন্যপ্রাণ সংঘাত, মানুষের সচেতনতার অভাবই এর জন্য দায়ী

উত্তরবঙ্গজুড়ে বাড়ছে মানুষ-বন্যপ্রাণ সংঘাত, মানুষের সচেতনতার অভাবই এর জন্য দায়ী
  • Share this:

#শিলিগুড়ি: উত্তরবঙ্গজুড়ে বাড়ছে মানুষ-বন্যপ্রাণ সংঘাত। মানুষের অত্যাচারে প্রাণ হারাচ্ছে বন্যপ্রাণীরা। বন্যপ্রাণীর আক্রমণে বাড়ছে মানুষের মৃত্যুর ঘটনাও। এই পরিস্থিতির জন্য মানুষের সচেতনতার অভাবকেই দায়ী করছেন বন্যপ্রাণ বিশেষজ্ঞরা। প্রশ্ন উঠছে বন দফতরের ভূমিকা নিয়েও।

ফালাকাটার বীরপাড়ার দলগাঁও চা-বাগান। কাছেই জলদাপাড়া জঙ্গল। সেই সবুজের বুক চিরে চলে গিয়েছে সতেরো নম্বর জাতীয় সড়ক। সোমবার এই রাস্তাতেই দ্রুতগতির গাড়ির ধাক্কায় প্রাণ হারাতে হল একটি পূর্ণবয়স্ক চিতাবাঘকে। তবে এটা কোনও বিচ্ছিন্ন ঘটনা নয়। সাম্প্রতিক অতীতে বারে বারে মানুষের সঙ্গে সংঘাতে প্রাণ হারাতে হয়েছে চিতাবাঘ-সহ বিভিন্ন বন্যপ্রাণকে। তাতে অবশ্য টনক নড়েনি সাধারণ মানুষ বা প্রশাসনের। এদিন ফালাকাটায় ফের একবার তার প্রমাণ মিলল।

বন্যপ্রাণ বিশেষজ্ঞরা বলছেন, মানুষ সচেতন না হলে এধরনের বিপদ অনিবার্য ৷ ফালাকাটার ঘটনায় প্রশ্ন উঠছে বন দফতরের ভূমিকা নিয়েও। নিউজ18 বাংলাকে ডিএফও জানিয়েছেন, এদিন সকাল এগারোটায় মৃত্যু হয়েছে চিতাবাঘটির।

অথচ রেঞ্জারের দাবি, খয়েরবাড়ি পুনর্বাসন কেন্দ্রে নিয়ে যাওয়া হয়েছে চিতাবাঘটিকে।দুর্ঘটনা ও তার জেরে বাঘের মৃত্যু নিয়ে ডিএফও এবং রেঞ্জারের কথায় স্পষ্ট বন দফতরের সমন্বয়ের অভাবের ছবিটা। এই সমন্বয়ের অভাবেই বেঘোরে মরতে হল না তো চিতাবাঘটিকে? প্রশ্ন থেকেই যাচ্ছে।

আরও দেখুন--
First published: August 20, 2019, 8:22 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर