corona virus btn
corona virus btn
Loading

বয়স বালাই, ভোটের আবহাওয়াতেও বাড়িতে রাজীব গান্ধির প্রিয় মিঠুদা

বয়স বালাই, ভোটের আবহাওয়াতেও বাড়িতে রাজীব গান্ধির প্রিয় মিঠুদা
photo: collected
  • Share this:

#জলপাইগুড়ি: ভোটে আছেন। কিন্তু প্রচারে নেই। বাহান্ন বছরের রাজনৈতিক রুটিনে আমূল বদল। শারীরিক কারণে ঘরবন্দি গান্ধি পরিবারের ঘনিষ্ঠ সাংসদ-বিধায়ক দেবপ্রসাদ রায়।  টিভি দেখে, কাগজ পড়েই কাটছে অবসর। ভোটের মুখে যন্ত্রণা মুহূর্ত-যাপন এআইসিসির সদস্য, রাজীব গান্ধির প্রিয় মিঠুদার। তাঁর উপস্থিতি মানেই বাড়তি অক্সিজেন।  কংগ্রেসের সুসময়েই হোক.....বা দুঃসময়ে।  বামেদের সঙ্গে জোটের ঘোরতর বিরোধী দেবপ্রসাদ রায়ের কাছে কংগ্রেস মানে বিশ্বাস। উত্তরের মাঠে ময়দানে কংগ্রেসের অন্যতম ভরসা।  তবে এবার ব্যতিক্রম।  ১৯৬৭ সাল থেকে ভোট ময়দানের লড়াকু মানুষটাকে এবার দেখা যাচ্ছে না দলীয়সভায়। অনুপস্থিত প্রচারেও। শরীর বড় বালাই।  জটিল রোগ বাসা বেঁধেছে শরীরে।  ভোটের সমস্ত কর্মসূচি থেকে তাই এবার নিজেকে গুটিয়ে নিয়েছেন দোর্দন্ডপ্রতাপ দেবপ্রসাদ রায় টিভির ঘরেই বন্দি রাজীব গান্ধির প্রিয় মিঠুদা। একটা সময়ে গান্ধি পরিবারের অত্যন্ত ঘনিষ্ঠ ডি পি রায় রাজ্যসভার প্রাক্তন সাংসদ। আলিপুরদুয়ার ও জলপাইগুড়ির দুবারের বিধায়ক। বর্তমানে এ আই সি সির সদস্য। একই সঙ্গে প্রদেশ কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক। তাঁর বক্তব্য শুনতে এখনও মাঠ ভরে যায়। গত জানুয়ারিতেও কংগ্রেসের আইন অমান্য আন্দোলনে প্রদেশ নেতাদের পাশে দাঁড়িয়ে নেতৃত্ব দিয়েছিলেন। কিছুদিন আগেও জলপাইগুড়ি জেলা নির্বাচনি কার্যালয়ে দলীয় প্রার্থী মনি ডার্নালের মনোনয়নে হাজির ছিলেন।

কিন্তু তারপর?  কি এমন হল যে দোতলা বাড়ির নীচের তলার ঘরে নিজেকে বন্দি করে ফেলেছেন নিজেকেই? বর্ষীয়ান নেতা বলছেন, শরীর খারাপ। চিকিতসকের নির্দেশ।  তারপরই বিশ্রামের নিদান। ভোট ময়দানে না থাকলেও, মন পড়ে আছে কংগ্রেস শিবিরেই। কিছুক্ষণ হাঁটলেই অস্বস্তি শরীরে। দলীয় নেতা-কর্মীদের সঙ্গে ফোনেই যোগাযোগ। জানেন জলপাইগুড়িতে কঠিন লড়াই। দলীয় কর্মীদের মনোবল বাড়াতে তৈরি করে দিচ্ছেন রণকৌশল। উত্তরবঙ্গের মাটি থেকে উঠে আসা এক সাধারণ ছেলের দিল্লির রাজনীতিতে ছাপ রেখে যাওয়ার গল্প শুনিয়েছিলেন তিনি। জলপাইগুড়ির ভূমিপুত্রের সঙ্গী এখন শুধুই যন্ত্রণা। তবে প্রচারে না বেরলেও ভোটের দিন ঘনিষ্ঠদের হাত ধরে ভোটটা দিতে যাবেন-ই। আত্মবিশ্বাসী জলপাইগুড়ির মিঠুদা।

First published: April 1, 2019, 4:01 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर