• Home
  • »
  • News
  • »
  • north-bengal
  • »
  • দিদির শ্বশুরবাড়ি ঘুরতে এসেছিল বোন, পরদিন পুকুরে ভেসে উঠল দুই বোনের মৃতদেহ, খুনের অভি়যোগ পরিবারের

দিদির শ্বশুরবাড়ি ঘুরতে এসেছিল বোন, পরদিন পুকুরে ভেসে উঠল দুই বোনের মৃতদেহ, খুনের অভি়যোগ পরিবারের

মৃতের পরিবারের দাবি, তাঁদের দুই মেয়েকে খুন করে ফেলে দেওয়া হয়েছে।

মৃতের পরিবারের দাবি, তাঁদের দুই মেয়েকে খুন করে ফেলে দেওয়া হয়েছে।

মৃতের পরিবারের দাবি, তাঁদের দুই মেয়েকে খুন করে ফেলে দেওয়া হয়েছে।

  • Share this:

#মালদহঃ-পুকুরে দুই বোনের মৃতদেহ উদ্ধারের ঘটনায় রহস্য দানা বেঁধেছে মালদহের মানিকচকে। বড় বোনের শ্বশুর বাড়িতে বেড়াতে এসেছিল ছোট বোন। বড় বোনের ওপর শ্বশুর বাড়িতে অত্যাচার চলত বলেও অভিযোগ। এই অবস্থায় বুধবার দুপুরে মালদহের মানিকচক থানার পুরানি গ্রাম এলাকায় দুই বোনের দেহ উদ্ধার হয় শ্বশুর বাড়ির কাছেই গ্রামের পুকুরে।

পুলিশের প্রাথমিক ধারণা, স্নান করতে নেমে তলিয়ে গিয়ে থাকতে পারে দুই বোন। যদিও মৃতের পরিবারের দাবি, তাঁদের দুই মেয়েকে খুন করে ফেলে দেওয়া হয়েছে। ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে মানিকচক থানার পুলিশ। পুলিশ জানিয়েছে, মৃতরা হল কাশ্মীরা বিবি (২৫) ও সাবানা খাতুন (১৮)। কাশ্মীরার স্বামী সাদেক সেখ ভিন রাজ্যে শ্রমিকের কাজ করে। বর্তমানে ভিন রাজ্যেই রয়েছে সে। ঘটনার পর শ্বশুরবাড়ির লোকজনকে জিঞ্জাসাবাদ করে মানিকচক থানার পুলিশ।

গত চারবছর আগে কাশ্মীরার সঙ্গে সাদেকের বিয়ে হয়। মৃতের পরিবারের দাবি, সন্তান না হওয়ায় বিয়ের পর থেকে শ্বশুর  বাড়িতে মেয়ের ওপর অত্যাচার চালানো হত। একইসঙ্গে বাড়তি পনের দাবিও করা হয়। এই বিবাদ নিয়ে দুই পরিবারের মধ্যে একাধিক বার সালিশি মীমাংসাও হয়। মৃতের বাবা মোস্তালেব সেখের অভিযোগ, বড় মেয়ের ওপর অত্যাচার চলত বলেই দিদিকে দেখার জন্য ছোট মেয়েকেও কয়েকদিনের জন্য পাঠিয়েছিলাম। এদিন গ্রামবাসিরা দুই মেয়ের মৃত্যুর খবর দেয়। মেয়ের শ্বশুর বাড়ির লোকজন কোনো খবরই দেয়নি। ঘটনার উপযুক্ত তদন্ত দাবি করেছেন তিনি। পুলিশ জানিয়েছে, মৃতদেহের ময়না তদন্তের পরেই সঠিক কারন জানা যাবে। অভিযোগ প্রমানিত হলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Sebak Deb Sharma

Published by:Elina Datta
First published: