শিলিগুড়ি থেকে গ্রেফতার ব্রাউন সুগার পাচারের ২ চক্রী, মাদক পাওয়া যেত ওষুধের দোকানে!

গ্রেফতার করার পর আজ তাদের শিলিগুড়ু মহকুমা আদালতে তোলা হয়। সোমবারই ধৃতদের ট্রানজিট রিমাণ্ডে সিকিম নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

গ্রেফতার করার পর আজ তাদের শিলিগুড়ু মহকুমা আদালতে তোলা হয়। সোমবারই ধৃতদের ট্রানজিট রিমাণ্ডে সিকিম নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

  • Share this:

    Partha Sarkar

    #শিলিগুড়ি: ব্রাউন সুগার পাচারের মূল পাণ্ডা শিলিগুড়ি থেকে গ্রেফতার! সিকিম পুলিশ ও শিলিগুড়ির গোয়েন্দা পুলিশের যৌথ অভিযানে গ্রেফতার ২ পাণ্ডা! সম্প্রতি সিকিমের সিংতামে ব্রাউন সুগার সহ এক দম্পতিকে গ্রেফতার করে সিকিম পুলিশ। তাদের জেরা করে সিকিম থেকেই আরও কয়েকজনকেও গ্রেফতার করে পুলিশ। ধৃতদের জেরা করে সিকিম পুলিশ জানতে পারে পাচার চক্রের মূল অভিযুক্তরা লুকিয়ে রয়েছে শিলিগুড়িতে। শিলিগুড়ুর প্রধাননগরের একটি ওষুধের দোকান থেকেই ব্রাউন সুগার কেনা হত। সেইমতো সিকিম পুলিশ যোগাযোগ করে আহিলিগুড়ি পুলিশের সঙ্গে। শিলিগুড়ি পুলিশও গত কয়েক মাস ধরে মাদকের চোরা কারবারের বিরুদ্ধে লাগাতার অভিযান চালিয়ে আসছে। পুলিশের জালে বহু মাদক কারবারী ধরা পড়েছে। উদ্ধারও হয়েছে বেআইনি মাদক। দার্জিলিং পুলিশও জেলার পাহাড় ও সমতলের বিভিন্ন জায়গায় হানা দিয়ে মাদক কারবারীদের গ্রেফতার করেছে। এবং শিলিগুড়ি পুলিশের স্লোগানও "নো ড্রাগ"!

    ধারাবাহিকভাবে বেআইনি নেশার বিরুদ্ধে অভিযান চালিয়ে যাবে শিলিগুড়ি পুলিশ বলে সূত্রের খবর। বিভিন্ন থানা এলাকা থেকে গ্রেফতারও হয়েছে। এ বারে সিকিম পুলিশ ও শিলিগুড়ি পুলিশের গোয়েন্দা শাখা যৌথ অভিযান চালিয়ে বাঘাযতীন কলোনি থেকে দুই মূল অভিযুক্তকে গ্রেফতার করে। ধৃতদের নাম কামারুল হুড্ডা ও মুমতাজ আলম মহম্মদ। গ্রেফতার করার পর আজ তাদের শিলিগুড়ু মহকুমা আদালতে তোলা হয়। সোমবারই ধৃতদের ট্রানজিট রিমাণ্ডে সিকিম নিয়ে যাওয়া হয়েছে। পুলিশের দাবি, ধৃতদের জেরা করে এই চক্রের সঙ্গে আর কে কে জড়িত রয়েছে তা এ বারে বের করা হবে। কী ভাবে চলতো এই চোরা কারবার? সিকিম ছাড়াও অন্য কোনও রাজ্যে কি পাচার হত ব্রাউন সুগার? সব দিকই খতিয়ে দেখবে তদন্তকারীরা। কেননা শিলিগুড়ি লাগোয়া বিহার, অসম যেমন রয়েছে। তেমনি নেপালও রয়েছে। কার্যত শিলিগুড়িকে করিডর করেই বেআইনি মাদক কারবারি চলছে বলে পুলিশের দাবি। করোনাকালে মাদকের রমরমা বেড়েছে। অনেকেই জড়িয়ে পড়েছে এই কারবারে। ইতিমধ্যেই শিলিগুড়িতে কয়েক কোটি টাকার মাদক ধরা পড়েছে।

    Published by:Simli Raha
    First published: