উত্তরবঙ্গ

corona virus btn
corona virus btn
Loading

নম্বর প্লেটহীন টোটোর দাপটে যানজটে জেরবার শিলিগুড়ি, বিনা রেজিস্ট্রেশনের টোটোর সংখ্যা প্রচুর !

নম্বর প্লেটহীন টোটোর দাপটে যানজটে জেরবার শিলিগুড়ি, বিনা রেজিস্ট্রেশনের টোটোর সংখ্যা প্রচুর !
  • Share this:

#শিলিগুড়ি: শিলিগুড়ি, উত্তরের অলিখিত রাজধানী। প্রতিদিনই লাখ লাখ লোকের সমাগম। পাহাড় থেকে ডুয়ার্স, নেপাল, ভুটান কিংবা অসম, বিহার, সিকিম থেকে হাজারো মানুষের ঢল নামে এই শহরে। দিন দিন বাড়ছে গাড়ির সংখ্যা। সেই শহরে যানজট নিত্যসঙ্গী। আর এই যানজটের জন্যে যেমন দায়ী নো পার্কিংং জোনে পার্কিংয়ের সারি। তেমনি অন্য একটি কারণ হল বেআইনি টোটোর দাপাদাপি!

শহরের অলি, গলির কথা ছেড়েই দিন। প্রধান রাস্তাগুলির দখলেও সেই টোটো। নেই কোনও সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনা। মাঝেমধ্যে ধরপাকড়ই সার! বহাল তবিয়তে শহরজুড়ে দাপিয়ে বেড়াচ্ছে নম্বর প্লেটহীন টোটো। হিলকার্ট রোড, সেবক রোড, বর্ধমান রোড, বিধান রোডের একাধীক জায়গায় টোটো চলাচলে নিষেধাজ্ঞার নোটিস! তাতে কি এসে যায়! সেই নোটিসকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে চলছে তিন চাকার টোটোর দৌরাত্ম্য! ২০১৮ সালে টোটোর নিয়ন্ত্রণে সরকার সিদ্ধান্ত নেয়, TIN নং অর্থাৎ টেম্পোরারি আইডেনটিফিকেশন নম্বর দেবে।

কাজ শুরু করে পুরসভা। প্রায় হাজার আটেক ফর্ম বিলি করা হয়। কয়েক দফায় চার হাজারের কাছাকাছি টোটো TIN নং পায়। পরবর্তীতে পরিবেশ দূষণের কথা মাথায় রেখে টোটোর পরিবর্তে ই-রিকশ চালুর সিদ্ধান্ত নেয় প্রশাসন। সেইমতো ৮ হাজার টোটো বাজেয়াপ্ত করে পে লোডার দিয়ে গুঁড়িয়ে দেয় প্রশাসন। ব্যাস! এই মূহূর্তে চার হাজারের কাছাকাছি টোটো রেজিস্টার্ডভুক্ত। অথচ শহরের প্রধান রাস্তাগুলিতে চলছে তার চেয়ে কয়েকগুন বেশী! যার জেরে যানজটে নাকাল হতে হচ্ছে পথচলতিদের। নির্দিষ্ট গন্তব্যে পৌঁছতে কালঘাম ছুটছে। গতি কমছে শহরের। কার্যত মাথাব্যাথার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে বেআইনি টোটো! প্রশাসনিক সূত্রেই জানা গিয়েছে, কয়েকগুন বেশী রেজিস্ট্রেশন ছাড়াই টোটো চলছে শহরে। অথচ হেলদোল নেই কোনো পক্ষেরই। করোনা, লকডাউনে সমস্যা আরো বেড়েছে বই কমেনি! টোটো চালকদের কথায়, প্রশাসন তাদের নিয়ে ছিনিমিনি খেলছে। শহরের প্রধান রাস্তায় চলাচলের অনুমতি নেই জেনেও তারা চালাচ্ছে। জবাবে নানা আছিলার কথা তুলে ধরছেন। আর এই টোটো রাজের জেরে নাভিশ্বাস উঠছে শহরবাসী থেকে বহিরাগতদের।

ট্যুর অপারেটার সন্দীপন ঘোষের কথায়, একটা সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনা দরকার। অন্যদিকে শিলিগুড়ি পুরসভার প্রশাসক অশোক ভট্টাচার্য জানান, টোটো নিয়ে নৈরাজ্য চলছে। সরকারের এনিয়ে ভাবা উচিৎ। সবমিলিয়ে যানজটে নাকাল শহরবাসীও চায় একে অপরের ঘাড়ে দোষারোপের পালা বন্ধ করে সুচিন্তিত পদক্ষেপ নিয়ে শহর হয়ে উঠুক প্রানবন্ত।

Partha Pratim Sarkar

Published by: Siddhartha Sarkar
First published: October 12, 2020, 9:00 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर