বাড়িতে গিয়ে ক্ষুদে পড়ুয়াদের পাঠদান তৃণমূল কংগ্রেসের প্রাথমিক শিক্ষক সংগঠনের

দুঃস্থ অসহায় ছাত্রছাত্রীদের বাড়িতে গিয়ে পাঠদানের নির্দেশ দিয়েছেন রাজ্যের শিক্ষা মন্ত্রী পার্থ চট্টাপাধ্যায়। তাঁর নির্দেশের দুদিনের মধ্যে আসরে নামল তৃণমূল কংগ্রেসের প্রাথমিক শিক্ষক সমিতি।

দুঃস্থ অসহায় ছাত্রছাত্রীদের বাড়িতে গিয়ে পাঠদানের নির্দেশ দিয়েছেন রাজ্যের শিক্ষা মন্ত্রী পার্থ চট্টাপাধ্যায়। তাঁর নির্দেশের দুদিনের মধ্যে আসরে নামল তৃণমূল কংগ্রেসের প্রাথমিক শিক্ষক সমিতি।

  • Share this:

#কালিয়াগঞ্জ: লকডাউন পিরিয়ডের ছাত্রদের বাড়িতে শিক্ষাদান শুরু করল তৃণমূল কংগ্রেসের প্রাথমিক শিক্ষক সমিতি উত্তর দিনাজপুর জেলা শাখা। দীর্ঘদিন বাদে খুদে পড়ুয়ারা শিক্ষাদানের সুযোগ পাওয়ায় খুশি ছাত্র থেকে অবিভাবকরা।

করোনা ভাইরাসের জেরে দেশ জুড়ে লকডাউন পিরিয়ড চলছে।লকডাউনের কারণে দীর্ঘদিন সমস্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ হয়ে রয়েছে।গৃহশিক্ষকরাও বাড়িতে গিয়ে শিক্ষাদান করাতে পারছেন না। দুঃস্থ অসহায় ছাত্রছাত্রীদের বাড়িতে গিয়ে পাঠদানের নির্দেশ দিয়েছেন রাজ্যের শিক্ষা মন্ত্রী পার্থ চট্টাপাধ্যায়। তাঁর নির্দেশের দুদিনের মধ্যে আসরে নামল তৃণমূল কংগ্রেসের প্রাথমিক শিক্ষক সমিতি।

উত্তর দিনাজপুর জেলার কালিয়াগঞ্জ ব্লকের বরুণা গ্রাম পঞ্চায়েতের কুশগ্রামের আদিবাসী পাড়ায় করোনা প্রতিরোধে ক্ষুদে পড়ুয়াদের হাতে সেনিটাইজার দিয়ে হাত পরিষ্কার করে শিক্ষাদান শুরু হয়। ছড়া পাঠ, অঙ্ক করানো হয়। কালিয়াগঞ্জ এক নম্বর চক্রের উদ্যোগে এই কর্মসূচী পালিত হয়। ১৪ জন ক্ষুদে পড়ুয়ারা এই পাঠদানে অংশ নিয়েছিল।

লকডাউনের কারণে পিছিয়ে পড়া আদিবাসী সমাজ চরম সমস্যায় পড়েছে।  ২০০ টি আদিবাসী পরিবারের হাতে বিনা পয়সায় ১৪ রকমের সবজি তুলে দেওয়া হয়। সংগঠনের জেলা সম্পাদক গৌরাঙ্গ চৌহান জানিয়েছেন, শিক্ষামন্ত্রীর নির্দেশে তারা শিক্ষাদান কর্মসূচী শুরু করলেন৷  আগামীতে তারা রায়গঞ্জ ব্লকের ভাটোল, বিন্দোল গ্রামের আদিবাসী পাড়ায় বাড়িতে গিয়ে এই শিক্ষাদান কর্মসূচী পালন করবেন। শিক্ষক সংগঠনের এই ভূমিকায় খুশি আদিবাসী সমাজ। মণিকা পাহান নামে এক অবিভাবক জানালেন, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় বাড়ির ছেলে মেয়েদের পড়াশুনা বন্ধ হয়ে গিয়েছে। এভাবে শিক্ষকরা বাড়িতে এসে  ছেলেমেয়েদের শিক্ষা দেওয়া তারা খুশি।

Published by:Pooja Basu
First published: