উত্তরবঙ্গ

corona virus btn
corona virus btn
Loading

‘দাদার পুরনো খেলা শুরু হয়েছে...’ ফেসবুকে এবার রহস্যময় পোস্ট তৃণমূল বিধায়ক উদয়ন গুহের

‘দাদার পুরনো খেলা শুরু হয়েছে...’ ফেসবুকে এবার রহস্যময় পোস্ট তৃণমূল বিধায়ক উদয়ন গুহের
File Photo

একদিকে যখন দলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সবাইকে একসঙ্গে কাজ করার নির্দেশ দিচ্ছেন তখন সোশ্যাল মিডিয়াতে একের পর এক ‘রহস্য’ময় পোস্ট তৃণমূল বিধায়কের।

  • Share this:

#কলকাতা: "দাদার পুরনো খেলা শুরু হয়েছে"। সবুজ ব্যাকগ্রাউন্ডে, সাদা হরফে সোশ্যাল মিডিয়ার একটা পোস্ট নাড়াচাড়া ফেলে দিয়েছে রাজনৈতিক মহলে। পোস্ট যিনি করেছেন তিনি দীর্ঘদিনের রাজনীতিবিদ উদয়ন গুহ।

কোচবিহার জেলার এই বিধায়কের এই ফেসবুক পোস্ট নিয়ে রাজনৈতিক মহলে শুরু হয়েছে আগ্রহ। প্রসঙ্গত, এই মুহূর্তে উত্তরবঙ্গ সফরে কোচবিহার জেলায় রয়েছেন তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। উত্তরবঙ্গে দলের কোর কমিটির সঙ্গে ইতিমধ্যেই বৈঠক করেছেন। গত  সোমবার বিকেলেই হয় সেই বৈঠক। সেখানে সবাইকে মিলেমিশে কাজ করার নির্দেশ দিয়েছেন দলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। একদিকে যখন দলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সবাইকে একসঙ্গে কাজ করার নির্দেশ দিচ্ছেন তখন সোশ্যাল মিডিয়াতে একের পর এক ‘রহস্য’ময় পোস্ট তৃণমূল বিধায়কের।

উদয়ন গুহর ফেসবুক পোস্ট উদয়ন গুহর ফেসবুক পোস্ট

সোশ্যাল মিডিয়ায় যা নিয়ে নতুন করে জল্পনা তৈরি হয়েছে রাজনৈতিকমহলে। রাজনৈতিকমহলের একাংশের মতে, উদয়ন গুহের মতো বর্ষীয়ান রাজনীতিবিদের যে ধরণের রহস্যময় পোস্ট করছেন তার মধ্যে নিশ্চিত কোনও ইঙ্গিত রয়েছে। বিশেষ কাউকে সেই ইঙ্গিত করা হচ্ছে কিনা সেটাই এখন প্রশ্ন। কিন্তু কাকে টার্গেট করতে চাইলেন তিনি? তা নিয়ে রাজ্য রাজনীতিতে শুরু হয়েছে জোর চর্চা। আরও পরিষ্কার করে লিখলে কে এই দাদা। সেই দাদা কোন পুরনো খেলায় মাতলেন। এরই পাশাপাশি উদয়নবাবু সোমবার রাতে একটি ফেসবুক পোস্ট করেন। যেখানে তিনি লেখেন, “এমন বন্ধু থাকলে শত্রুর দরকার নেই। পারলে এক কোপে কাটবে।”

হঠাৎ করে তৃণমূল বিধায়ক কেন এমন পোস্ট করলেন? এই পোস্ট দেখে অনেকেই চমকে ওঠেন। ‘এমন বন্ধু’ বলে তিনি কাকে বোঝাতে চাইলেন তিনি? তা নিয়ে শুরু হয়েছে জোর জল্পনা। দলেরই কি কাউকে টার্গেট করছেন তিনি? এমন চর্চার মধ্যেই আরও একটি পোস্ট করেন উদয়ন গুহ। দিনহাটার বিধায়ক ফেসবুকে লেখেন, “দাদার পুরনো খেলা শুরু।” এতেই নতুন মাত্রা পেয়েছে জল্পনাআগে একাধিকবার প্রকাশ্যে তাঁর ক্ষোভ উগরে দিয়েছেন। এর আগে দলীয় সভা থেকে নেতা-কর্মীদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেছিলেন যে, “অনেক খেয়েছেন, ভবিষ্যতেও খেতে পারবেন। ছ’মাস যদি না খান তবে পরবর্তীতে খাওয়ার অনেক সুযোগ পাবেন।’’‌

এই মন্তব্যে রাজ্য–রাজনীতিতে শোরগোল পড়ে যায়। দলের খারাপ ফলের কারণ ব্যাখ্যা করতে গিয়ে বলেছিলেন, “গত লোকসভা ভোটে আমরা হেরেছিলাম, কারণ আমাদের নেতা-কর্মীরা মানুষের খাবার কেড়ে নিয়েছিল। তার জন্য আমিও কিছুটা দায়ী। কিন্তু একুশের বিধানসভায় জিততে গেলে মানুষের খাবার কেড়ে নিলে চলবে না”। বিধায়ক উদয়ন গুহের এই মন্তব্যে রীতিমত অস্বস্তিতে পড়ে যায় শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেস। এছাড়াও তিনি দলের বিরুদ্ধে গিয়েছেন মাঝে বেশ কয়েকবার। কিছুদিন আগেই দলের নেতাদের নিশানা করে উদয়ন গুহ বলেছিলেন, “তৃণমূলের লোকেরাই দলের ক্ষতি করছেন। তাঁদের একাংশের উপর ক্ষোভ থেকেই দলত্যাগের ঘটনা ঘটছে।” তাঁর কাছেও বিজেপিতে যোগদানের অফার রয়েছে বলে ঘনিষ্ঠ মহলে জানিয়েছিলেন দিনহাটার এই বিধায়ক। তবে তিনি বিজেপি যোগ দিতে চান না বলে নিজেই জানিয়েছিলেন। তিনি জানান, “আমি তৃণমূলের আদর্শ দেখে দলে আসিনি। আমি এসেছি একমাত্র মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে দেখে। তাই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কোনওদিন বিজেপিতে গেলে আমিও যাব নাহলে নয়!”।

এত কিছুর পরেও উদয়ন গুহের রহস্যময় একের পর এক পোস্টের কারণ কি তা নিয়ে চলছে জোর চর্চা। সোশ্যাল মিডিয়ায়  এই পোস্ট দলকে সতর্ক করার জন্যে! নাকি তাঁর মনেও ধীরে ধীরে ক্ষোভ ক্রমশ বাড়ছে। বেশ কয়েকজনের মতো তিনিও বেসুরো গাইছেন কিনা তা নিয়ে উঠছে প্রশ্ন। দলীয় সূত্রে খবর, দলনেত্রী যখন বিধায়কের জেলায় হাজির তখন এই পোস্ট ভালোভাবে নিচ্ছে না দল। প্রয়োজনে এই পোস্টের কারণ জানতে চাইবে দল বা উদয়ন গুহকে ডেকে আলোচনা করতে পারে তারা।

আবীর ঘোষাল

Published by: Siddhartha Sarkar
First published: December 16, 2020, 8:25 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर