চায়ের ঠেকে পুরনো তৃণমূল কর্মীদের সঙ্গে জমিয়ে আড্ডা ওমপ্রকাশ মিশ্রের!

চায়ের ঠেকে পুরনো তৃণমূল কর্মীদের সঙ্গে জমিয়ে আড্ডা ওমপ্রকাশ মিশ্রের!

শহরে পৌঁছেই জনসংযোগে বেড়িয়ে পড়লেন শিলিগুড়ির তৃণমূল প্রার্থী বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ ওমপ্রকাশ মিশ্র। হিলকার্ট রোডের এমটি চায়ের দোকানে আচমকাই হাজির হন তিনি। সেই চায়ের দোকানেই জমিয়ে আড্ডা মারেন পুরনো তৃণমূল কর্মীদের সঙ্গে৷

শহরে পৌঁছেই জনসংযোগে বেড়িয়ে পড়লেন শিলিগুড়ির তৃণমূল প্রার্থী বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ ওমপ্রকাশ মিশ্র। হিলকার্ট রোডের এমটি চায়ের দোকানে আচমকাই হাজির হন তিনি। সেই চায়ের দোকানেই জমিয়ে আড্ডা মারেন পুরনো তৃণমূল কর্মীদের সঙ্গে৷

  • Share this:

#শিলিগুড়ি: শহরে পৌঁছেই জনসংযোগে বেড়িয়ে পড়লেন শিলিগুড়ির তৃণমূল প্রার্থী বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ ওমপ্রকাশ মিশ্র। তাঁর প্রার্থী পদ নিয়ে দলের একাংশের ক্ষোভ রয়েছে। নির্দল হিসেবে দাঁড়ানোর কথা ঘোষণা করেছেন নান্টু পাল। এসব কথা এসছে তাঁর কানে। আর তাই পুরনো তৃণমূল কংগ্রেস কর্মীদের ঠেকে ঢুঁ দলীয় প্রার্থীর।

তিনি বহিরাগত প্রার্থী, দলীয় কর্মীদের একটা বড় অংশ প্রচার করছে। সব শুনে দলীয় নেতা, কর্মীদের মন বুঝতে ময়দানে নেনে পড়েছেন পোড়খাওয়া রাজনীতিবিদ। আজ হিলকার্ট রোডের এমটি চায়ের দোকানে আচমকাই হাজির হন তিনি। সেই চায়ের দোকানেই জমিয়ে আড্ডা মারেন পুরনো তৃণমূল কর্মীদের সঙ্গে৷

টিভির পর্দায় রাজনীতি নিয়ে আলোচনা সভায় পুরনো মুখ তিনি। অনেকের কাছেই অতি পরিচিত। সেটাকেই কাজে লাগাতে চান ওমপ্রকাশ। ভোটের আবহ বুঝতেই নেমে পড়া রাস্তায়। সেভাবে একে প্রচার বলতে নারাজ প্রার্থী। তাঁর কথায়, সকলের সঙ্গে পরিচয় করতে আসা। দু'এক দিনের মধ্যে প্রচার শুরু করবেন ওমপ্রকাশ। তার আগে দলের অন্দরে ক্ষোভ, বিক্ষোভ সামলে উঠতে চান তিনি। সকলকে নিয়েই নির্বাচনী বৈতরণী পার করাই তাঁর লক্ষ্য। তাঁর দাবি, অশোক ভট্টাচার্য অপরাজেয় নন। ২০১১ সালে হেরেছেন এই আসনে। যার কাছে হেরেছিলেন সেই চিকিৎসক প্রাক্তন বিধায়ক রুদ্রনাথ ভট্টাচার্যের সঙ্গেও বৈঠক করেছেন।

নিজেদের প্রার্থীকে আচমকাই কাছে পেয়ে খুশি পুরনো ঘাসফুল নেতা, কর্মীরাও। অন্যদিকে প্রার্থীর নাম ঘোষণা না হলেও ঘরে বসে থাকতে নারাজ প্রতিপক্ষ বাম-কংগ্রেস-আইএসএফ সংযুক্ত মোর্চা। অশোক ভট্টাচার্য, শঙ্কর মালাকারের নেতৃত্বে প্রচারে নেমে পড়েছেন তাঁরা। ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে জনসংযোগ যাত্রা শুরু করে দিয়েছেন। আজ গিয়েছিলেন ১ নং ওয়ার্ডে। সাধারণ ভোটারদের সঙ্গে কথা বলেন। তাঁদের অভাব, অভিযোগ, সমস্যার কথা শোনেন। তার তালিকা লিপিবদ্ধ করেন। অশোকবাবু বলেন, ভালো সাড়া মিলছে। ভোটারদের সঙ্গে সরাসরি কথা বলে সমস্যার কথা শোনা হচ্ছে। শিলিগুড়ি বিধানসভার অন্তর্ভুক্ত ৩৩টি ওয়ার্ডেই চলবে জনসংযোগ যাত্রা। একইভাবে লাগোয়া বাকি তিন আসন ডাবগ্রাম-ফুলবাড়ি, মাটিগাড়া-নকশালবাড়ি এবং ফাঁসিদেওয়ায় প্রচার চলবে। তিনি বলেন, বিজেপিকে কেউ চায় না। আর তৃণমূলকে গত ১০ বছর দেখেছে রাজ্যবাসী। এবারে সরকার গড়ার লক্ষ্যে এগিয়ে সংযুক্ত মোর্চা।

(পার্থ সরকার)

Published by:Subhapam Saha
First published: