বেছে বেছে বাদ শুভেন্দু ঘনিষ্ঠদের নাম, প্রার্থীতালিকা ঘোষনা হতেই মালদহে ভাঙন সম্ভাবনা...

বেছে বেছে বাদ শুভেন্দু ঘনিষ্ঠদের নাম,  প্রার্থীতালিকা ঘোষনা হতেই মালদহে ভাঙন সম্ভাবনা...

মালদহে তৃণমূলে ভাঙনের সম্ভাবনা।

মালদহে টিকিট না পাওয়ার তালিকায় গুরুত্বপূর্ন নাম মালদহ জেলা পরিষদ সভাধিপতি গৌড়চন্দ্র মণ্ডল।

  • Share this:

মালদহ:  তৃণমূলের প্রার্থী তালিকার পরেই মালদহে তৃণমূলে ভাঙনের সম্ভাবনা দেখছেন রাজনৈতিক মহলের একাংশ । কারণ দলের বেশ কয়েকজন হেভিওয়েট এবার প্রার্থী তালিকায় ঠাঁই পাননি। বিশেষ করে ব্রাত্য হয়েছেন এমন বেশ কয়েকজন জেলা নেতা যাঁরা তৃণমূলে শুভেন্দু অধিকারী জেলা পর্যবেক্ষক থাকার সময় তাঁর ঘনিষ্ঠ হিসেবে পরিচিত ছিলেন । এর পাশাপাশি আরও কয়েকজন হেভিওয়েট নেতা বাদ পড়েছেন সম্ভাব্য প্রার্থী হিসেবে যাঁদের নাম ঘোরাফেরা করেছে। মালদহে টিকিট না পাওয়ার তালিকায় গুরুত্বপূর্ন নাম মালদহ জেলা পরিষদ সভাধিপতি গৌড়চন্দ্র মণ্ডল।

এবার মানিকচক বিধানসভা আসনে প্রার্থী পদের দাবিদার ছিলেন গৌড়চন্দ্র মণ্ডল । শোনা যাচ্ছিল মানিকচক আসন  বা অন্য কোনও আসনে তাঁকে প্রার্থী করা হতে পারে । কিন্তু মানিকচক আসনে গৌড়চন্দ্র মণ্ডলের বিরোধী শিবিরের সাবিত্রী মিত্র টিকিট পেয়েছেন । অথচ কোনও আসন জোটেনি গৌড়চন্দ্র মণ্ডলের।

অন্য দিকে মালদহের জেলা তৃণমূল কো অর্ডিনেটর তথা প্রাক্তন যুব সভাপতি অম্লান ভাদুড়ী বৈষ্ণবনগর আসনে প্রার্থী হবেন বলে জল্পনা চলছিল।  বৈষ্ণবনগরে জন সংযোগও বাড়িয়েছিলেন তৃনমূলের এই দাপুটে নেতা । কিন্তু প্রার্থী তালিকায় তাঁর নাম নেই । অম্লানবাবুও শুভেন্দুর সময়ে তাঁর অত্যন্ত ঘনিষ্ঠ বলে পরিচিত ছিলেন।

শুধু এঁরাই নন, প্রার্থী তালিকা থেকে উল্লেখ্যযোগ্য ভাবে বাদ পড়েছেন মালদহের তৃনমূল কংগ্রেসের প্রাক্তন সভাপতি ও চেয়ারম্যান বর্তমান রাজ্য সহ সভাপতি মোয়াজ্জেম হোসেন। এবার মালতিপুর বিধানসভা আসনে প্রার্থী হওয়ার দৌড়ে ছিলেন তিনি। মালতীপুরে বেশ কিছুদিন ধরেই প্রস্তুতিও শুরু করে দিয়েছিলেন তিনি। কিন্তু প্রার্থী তালিকায় ঠাঁই হয়নি তাঁর। মালদহে সম্ভাব্য প্রার্থী হিসেবে আলোচনার মধ্যে থাকলেও শেষ পর্যন্ত টিকিট পাননি জেলা তৃনমূল কো-অর্ডিনেটর দুলাল সরকার এবং জেলা তৃণমূল যুব সভাপতি প্রসেনজিৎ দাস ।

ইতিমধ্যেই  ব্রাত্য নেতাদের কয়েকজন গেরুয়া শিবিরে যেতে পারেন বলে জল্পনা তৈরি হয়েছে। যদিও নেতারা প্রকাশ্যে এ নিয়ে মন্তব্য করতে চাননি।

সেবক দেবর্শমা

Published by:Arka Deb
First published:

লেটেস্ট খবর