মুখ্যমন্ত্রীকে 'জয় শ্রীরাম' বলে অপমানের পাল্টা জবাব! 'নেতাজি ক্ষমা করে দাও' কর্মসূচি তৃণমূলের

মুখ্যমন্ত্রীকে 'জয় শ্রীরাম' বলে অপমানের পাল্টা জবাব! 'নেতাজি ক্ষমা করে দাও' কর্মসূচি তৃণমূলের
নেতাজির জন্মজয়ন্তী অনুষ্ঠানে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় মঞ্চে উঠতেই একদল দর্শক 'জয় শ্রীরাম' ধ্বনি তোলেন। এই 'অপমানের' পাল্টা জবাব দিল এবার তৃণমূল। আয়োজন করল 'ক্ষমা করে দাও নেতাজি' কর্মসূচি।

নেতাজির জন্মজয়ন্তী অনুষ্ঠানে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় মঞ্চে উঠতেই একদল দর্শক 'জয় শ্রীরাম' ধ্বনি তোলেন। এই 'অপমানের' পাল্টা জবাব দিল এবার তৃণমূল। আয়োজন করল 'ক্ষমা করে দাও নেতাজি' কর্মসূচি।

  • Share this:

#শিলিগুড়ি: ভিক্টোরয়ায় নেতাজি জন্মজয়ন্তী পালনের অনুষ্ঠানে এক মঞ্চে ছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী, মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়, রাজ্যপাল জগদীপ ধনকড়। ওই মঞ্চেই মুখ্যমন্ত্রীকে বক্তব্য রাখার জন্যা আহ্বান করা হয়। আর মুখ্যমন্ত্রীর নাম ঘোষণা হতেই দর্শকাসন থেকে "জয় শ্রীরাম" ধ্বনি তোলে একদল দর্শক। এতেই ক্ষুব্ধ হয়ে ওঠেন মুখ্যমন্ত্রী। প্রতিবাদস্বরূপ ভাষণ না দিয়ে নিজের ক্ষোভ উগড়ে দেন তিনি।

এনিয়ে রাজ্য রাজনীতি তোলপাড় হয়। এখনও তার রেশ কাটেনি। রাজ্যজুড়েই চলে তৃণমূলের প্রতিবাদ কর্মসূচি। আজ বৃহস্পতিবার অভিনব উপায়ে তারই প্রতিবাদে শিলিগুড়িতে সামিল হল জেলা তৃণমূল ছাত্র পরিষদ। তাদের দাবি, ওইদিন নেতাজি ও হিন্দুদের দেবতা রামকে অপমান করা হয়েছে। আর তাই আজ শিলিগুড়িতে নেতাজি মূর্তির সামনেই নেতাজির কাছে ক্ষমা চাইলেন দার্জিলিং জেলা তৃণমূল ছাত্র পরিষদের সদস্যরা।

সুভাষপল্লী মোড়ে নেতাজি সুভাষ চন্দ্র বসুর পূর্ণাবয়ব মূর্তির সামনে হাঁটু গেঁড়ে বসে হাত জোড় করে ক্ষমা চাওয়া হয়। মূর্তির পায়ে ফুলও ছড়ানো হয়। দার্জিলিং জেলা তৃণমূল ছাত্র পরিষদের সভাপতি নির্ণয় রায় বলেন, "গত ২৩ জানুয়ারি কলকাতায় নেতাজির জন্ম জয়ন্তী অনুষ্ঠানে "জয় শ্রীরাম" স্লোগান দিয়ে নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসুর পাশাপাশি রামকেও অপমান করা হয়েছে। তাই আজ নেতাজির মূর্তির সামনে হাঁটু গেড়ে বসে ক্ষমা চাওয়া হলো। বাংলার রাজনৈতিক সংস্কৃতি এমন নয়। তাই ঘটনার প্রতিবাদ করা হয়েছে।"


অন্যদিকে বিজেপি যুব মোর্চার সাধারন সম্পাদক অরিজিৎ দাস পালটা বলেন, "বিজেপিকে ক্ষমা করা হবে কেন। কী এমন করা হয়েছিল ওইদিন? "জয় শ্রীরাম" তো আর বিজেপির স্লোগান নয়? এটা ধ্বনি। কাউকেই অপমানিত করা হয়নি। অযথা এই ইস্যু নিয়ে রাজনৈতিক নাটক করছে তৃণমূলীরা। আসলে পায়ের তলার জমি দিন দিন সরছে। তাই এই ধরনের নাটুকে রাজনৈতিক কর্মসূচী। "

যদিও বিজেপির দাবিকে গুরুত্ব দিতে নারাজ তৃণমূল ছাত্র পরিষদ। তাদের দাবি, এই ধরনের কর্মসূচী ফের করলে রাজনৈতিভাবেই জবাব ফিরিয়ে দেওয়া হবে। প্রসঙ্গত, নেতাজির জন্মজয়ন্তী অনুষ্ঠানের ঘটনা বিভিন্ন রাজনৈতিক মহলে নিন্দিত হয়।

Published by:Swaralipi Dasgupta
First published: