corona virus btn
corona virus btn
Loading

করোনা আতঙ্ক ! হাসপাতালে জ্বর নিয়ে ট্রলিতে সারা রাত পড়ে থাকল রোগী ! হল না চিকিৎসা !

করোনা আতঙ্ক ! হাসপাতালে জ্বর নিয়ে ট্রলিতে সারা রাত পড়ে থাকল রোগী ! হল না চিকিৎসা !

রাজস্থান ফেরত শ্রমিকের চিকিৎসা নিয়ে টালবাহানার অভিযোগ।

  • Share this:

#মালদহ: রাজস্থান ফেরত শ্রমিকের চিকিৎসা নিয়ে টালবাহানার অভিযোগ। হাসপাতালের বাইরে ট্রলিতে ৫ ঘন্টা ধরে পড়ে থাকল রোগী। মালদহ চাঁচোল সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালের ঘটনা। হরিশ্চন্দ্রপুর এর বাসিন্দা ওই রোগীকে জ্বর , সর্দি, কাশির উপসর্গ নিয়ে চিকিৎসার জন্য চাঁচোল হাসপাতালে নিয়ে যান পরিবারের লোকজন। স্থানীয় যুবকদের অভিযোগ, অনেকটা করোনার মতো উপসর্গ দেখে রোগীকে নিয়ে আতঙ্কিত হয়ে পড়েন হাসপাতালের চিকিৎসক, নার্স, স্বাস্থ্যকর্মীরা। ওই রোগীকে অবিলম্বে মালদায় মেডিকেল কলেজে নিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দিয়ে সরে পড়েন তাঁরা। মালদায় আনার জন্য অ্যাম্বুলেন্স পাওয়া যায়নি। বুধবার সন্ধ্যা থেকে রাত পর্যন্ত ট্রলির মধ্যেই রোগীকে রেখে আগলে থাকেন পরিবারের লোকজন। পরে স্থানীয় যুবকদের একাংশ গিয়ে হইচই, প্রতিবাদ করলে একজন চিকিৎসক রোগীকে দেখেন।

এরপর রাত প্রায় সাড়ে দশটা নাগাদ তাঁকে পাঠানো হয় মালদা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে। চাঁচল হাসপাতালে 'অবজারভেশন ওয়ার্ড' থাকার পরেও চিকিৎসার অব্যবস্থা নিয়ে প্রশ্ন। জানাগিয়েছে, পেশায় নির্মাণ শ্রমিক ওই ব্যক্তি গত ২ এপ্রিল রাজস্থান থেকে মালদহের হরিশ্চন্দ্রপুরের বাড়িতে ফেরেন। এরপর থেকে তাঁর শরীরে জ্বর সহ অন্যান্য কিছু উপসর্গ দেখা দেয়। বাড়িতে অসুস্থতা বোধ করলে বুধবার বিকেলে পরিবারের লোকজন তাঁকে চাঁচোল সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে নিয়ে আসেন। কিন্তু, এখানেও চিকিৎসা না পেয়ে কার্যত দিশেহারা হয় পরিবার। হাসপাতাল চত্বরে থাকা কোনও অ্যাম্বুলেন্স ওই রোগীকে মালদহে আনতে রাজি হননি। শেষপর্যন্ত এলাকার একদল যুবককে এনিয়ে সরব হন। স্থানীয় যুবক অমিতেশ পান্ডে বলেন, বিষয়টি জানার পর স্থানীয় বিডিও এবং পুলিশকে আমরা ঘটনা জানায়। এরপর রাতের দিকে অ্যাম্বুলেন্স আনিয়ে তাঁকে পাঠানোর ব্যবস্থা হয়। কিন্তু, এত দীর্ঘসময় হাসপাতালের বাইরে রোগীর পড়ে থাকা অমানবিক ঘটনা। মালদহের মুখ্য স্বাস্থ্য আধিকারিক ভূষণ চক্রবর্তী বলেন, বিষয়টি আমার জানা নেই। তবে এমন হওয়া ঠিক নয়। এবিষয়ে খোঁজ নেব।

সেবক দেবশর্মা
Published by: Piya Banerjee
First published: April 9, 2020, 9:06 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर