করোনা আবহে চাঁদা ছাড়াই দুর্গা পুজো করছে মালদহের নামী ক্লাব !

করোনা আবহে চাঁদা ছাড়াই দুর্গা পুজো করছে মালদহের নামী ক্লাব !

অন্য বছরের তুলনায় এবার পুজো বাবদ বাজেট নামিয়ে আনা হয়েছে চার ভাগের এক ভাগে।

অন্য বছরের তুলনায় এবার পুজো বাবদ বাজেট নামিয়ে আনা হয়েছে চার ভাগের এক ভাগে।

  • Share this:

 #মালদহ: করোনা আবহে এবার ভিন্নধর্মী দুর্গা পুজোর পরিকল্পনা নিল মালদহের নামী ক্লাব। মালদহের বিগ বাজেটের পুজো বলে পরিচিত শান্তি ভারতী পরিষদের এবার পুজোর কোনরকম চাঁদা তোলা হবে না। পুজোর খরচ যোগাবেন শুধুমাত্র ক্লাব সদস্যরাই। আড়ম্বরের পরিবর্তে এবার জোর দেওয়া হল রকমারি সামাজিক পরিষেবায়।মালদহ তথা উত্তরবঙ্গে বিগ বাজেটের পুজো গুলির অন্যতম মালদহের শান্তি ভারতী পরিষদ। প্রতিবছর দুর্গাপূজা দৈনিক লাখো মানুষের সমাগম হয় এখানকার পুজো দেখতে। শান্তি ভারতীর পুজো পরিকল্পনা নিয়ে অনেক আগে থেকেই জল্পনা শুরু হয় শহরে। শনিবার ক্লাবের ৫৭ তম  দুর্গাপুজোর খুঁটি পুজো হল। আর এদিনই পুজো প্রস্তুতি আরম্ভ করে সামাজিক পরিষেবা কর্মসূচি ঘোষণা করেছে এই নামী ক্লাব।

খুঁটি পুজোর সঙ্গেই এদিন  দশটি অক্সিজেন সিলিন্ডার কিনে করোনা আবহে অক্সিজেন পরিষেবার বাড়ানোর পরিকল্পনা নিয়েছেন এখানকার উদ্যোক্তারা। অন্য বছরের তুলনায় এবার পুজো বাবদ বাজেট নামিয়ে আনা হয়েছে চার ভাগের এক ভাগে। ঠিক হয়েছে, দুর্গাপূজায় সাধারণ গরীব মানুষদের নতুন জামা কাপড় দেবে এই পুজো কমিটি। ক্লাবের চারশতাধিক সদস্যের স্বেচ্ছায় আর্থিক সাহায্যে পুজোর যাবতীয় খরচ মেটানো হবে। পুজোর জন্য  সাধারণের বাড়িতে বা কোন প্রতিষ্ঠানে গিয়ে চাঁদার জন্য  আবেদন করা হবে না। পুজো প্যান্ডেলে এবার ভেতরের কোন সাজসজ্জা রাখা হবে না। শুধুমাত্র বাইরে থেকেই প্রতিমা ও মণ্ডপে দেখার ব্যবস্থা রাখা হবে। পুজো মণ্ডপে যাঁরাই আসবেন প্রত্যেকের থার্মাল স্ক্রিনিং করা হবে। পুজো মণ্ডপে সমস্ত রাস্তাতেই বসানো হবে একাধিক স্যানিটাইজার টানেল। এখানকার পুজোর  উদ্যোক্তারা অক্সিজেন পরিষেবা, অ্যাম্বুলেন্স পরিষেবা এবং ক্লাব সদস্যদের নিয়মিত রক্তদানের জন্য একটি ব্লাড গ্রুপ রেজিস্টার তৈরি করা হয়েছে। করোনা  আবহে কারও রক্ত সংকট হলে পৌঁছাবেন এখানকার কোন না কোন সদস্য। উদ্যোক্তারা জানিয়েছেন, ইতিমধ্যেই করোনা মোকাবেলায় মুখ্যমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে   সদস্যদের সংগৃহীত ২৫০০০ টাকা সাহায্য দেওয়া হয়েছে।

সেবক দেবশর্মা
Published by:Piya Banerjee
First published: