প্র‍য়াত সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়ের বাড়িতে গিয়ে কথা বলার আলাদা অনুভূতি জানালেন রায়গঞ্জের নাট্যকার হরিনারায়ণ

প্র‍য়াত সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়ের বাড়িতে গিয়ে কথা বলার আলাদা অনুভূতি জানালেন রায়গঞ্জের নাট্যকার হরিনারায়ণ

রায়গঞ্জ ছন্দম নাট্য গোষ্টী অন্যতম নাট্যকার হরিনারায়ণ রায়।

রায়গঞ্জ ছন্দম নাট্য গোষ্টী অন্যতম নাট্যকার হরিনারায়ণ রায়।

  • Share this:

#রায়গঞ্জ: কাছ থেকে আবৃত্তি শুনেছেন সেটা যেমন পরম তৃপ্তির, তেমনই সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়ের মত মানুষের বাড়িতে যাওয়া আলাদা একটা নষ্টালজিয়া। আজও সে কথা ভুলতে পারেননি রায়গঞ্জ ছন্দম নাট্য গোষ্টীর নাট্যকার হরিনারায়ণ রায়। সৌমিত্র চট্টাপাধ্যায়ের স্মৃতিচারনণ করতে গিয়ে বারবার সেই নষ্টালজিয়ার কথা তুলে ধরলেন বামপন্থী নেতা নাট্যকার হরিনারায়ণ রায়।

রায়গঞ্জ ছন্দম নাট্য গোষ্টী অন্যতম নাট্যকার হরিনারায়ণ রায়। আপদমস্তক বামপন্থী। সালটা ১৯৬৮ বা ৬৯। বয়স কম। বামপন্থী আন্দোলনকে আরও এগিয়ে নিয়ে যেতে বামপন্থী আন্দোলনের পথিকৃত সৌমিত্র চট্টাপাধ্যায়ের দ্বারস্থ হন হরিনারায়ণ রায় সহ আরও দুইজন।একজন অশোক বন্দ্যোপাধ্যায় অন্যজন সুধাংশু দে । প্রত্যেকেই বামপন্থী নেতা হিসেবে পরিচিত। বেলা বারোটার নাগাদ সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়ের বাড়িতে পৌঁছালেন তখন তিনি বাড়িতেই শারীরিক কসরত করছিলেন। সৌমিত্রবাবু তাদের কাছে এসে উপস্থিত হয়েছিলেন। যে আবেদন নিয়ে সৌমিত্রবাবুর কাছে তারা গিয়েছিলেন সেই আবেদন তিনি রাখতে পারেননি। পূর্ব নির্ধারিত কর্মসূচী থাকায় সেই সময় তিনি রায়গঞ্জে আসতে পারেননি। পরবর্তী সালটা ১৯৮২ বা ৮৩ সালে রায়গঞ্জে একটি অনুষ্ঠানে যোগ দেবার জন্য তার কাছে আমন্ত্রণ জানালে তিনি সেই আমন্ত্রণ প্রত্যাখান করেননি।

প্রবাদপ্রতিম সঙ্গীতশিল্পী ভুপেন হাজারিকা এবং সৌমিত্র চট্টাপাধ্যায় রায়গঞ্জ ছন্দম মঞ্চে এক অনুষ্ঠানে যোগ দিয়েছিলেন। ভূপেন হাজারিকার গান এবং সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায় আবৃত্তি দুই জনই অনুষ্ঠানকে অন্য শিখরে পৌঁছে দিয়েছিলেন। ছন্দম মঞ্চে প্রবেশ করে  সর্ব সাধারণের জন্য নয় নম্বর আসনে বসেছিলেন। সেখান থেকে মঞ্চে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল।সৌমিত্রবাবুর ছায়াসঙ্গী ছিলেন হরিনারায়ণ। আজ তাঁর মৃত্যুর পর সেই দিনগুলোর মনে পড়ছে বলে জানালেন হরিনারায়ণ রায়। "৬৮ বা ৬৯ সালের পর রায়গঞ্জের প্রত্যেকেই রাজনীতি এবং কর্মজীবনে প্রতিষ্ঠিত হলেও সৌমিত্রবাবুর মত এমন একজন ব্যক্তিত্বের বাড়িতে যাওয়ার সুযোগ হয়নি। আজ বেলা ১২.১৫ নাগাদ সৌমিত্রবাবুর মৃত্যুর ঘোষণার পরই খানিকটা বাকরুদ্ধ হয়ে পড়েছিলেন হরিনারায়ণ রায়। তাঁর স্মৃতিচারণে বারবার সেই দিনটার কথা তুলে ধরেছেন হরিনারায়ণ রায়। হরিনারায়ণবাবু জানালেন, সৌমিত্র রায়ের মৃত্যু দেশ তথা রাজ্য৷

Published by:Pooja Basu
First published: