যে ছেলেকে কষ্ট করে মানুষ করলেন, সেই ছেলেই গলায় কোপ বসাল, খুন হলেন মা!

representative image

ঘটনার পর হাতে ধারালো অস্ত্র(হাত দাঁ) এবং লাঠি নিয়ে দাঁড়িয়ে ছিল সে। এই ঘটনাতে তার কোন অনুতাপ ছিল না।

  • Share this:

#চোপড়া: নিজের মাকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে (Son killed mother) কুপিয়ে খুন করল ছেলে (sharp object)। ছেলেকে বাধা দিতে এসে প্রতিবেশী এক ব্যক্তি ধারালো অস্ত্রের আঘাতে আহত হয়েছে।ঘটনাটি ঘটেছে উত্তর দিনাজপুর জেলার চোপড়া থানার সোনাপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের বিলাতি বাড়ি গ্রামে। এই ঘটনায় এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়ায়। স্থানীয় বাসিন্দারা অভিযুক্ত ছেলেকে মারধোর করে পুলিশের হাতে তুলে দিয়েছে (son arrested)। আহত ছেলে ইসলামপুর মহকুমা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। পুলিশ ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে। ভাইয়ের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করেছে অভিযুক্তের বড় ভাই ।

পরিবার সুত্রে জানা গিয়েছে বৃহস্পতিবার রাতে মলিনা সরকার ও ছেলে নারায়ণ সরকারের মধ্যে  বচসা বাধে। বচসা চলাকালীন উত্তেজিত হয়ে পড়ে ছেলে নারায়ণ সরকার। উত্তেজিত অবস্থায় ধারালো অস্ত্র দিয়ে মায়ের গলায় একাধিক কোপ মারে বলে অভিযোগ।চিৎকার চেঁচামেচিতে প্রতিবেশীরা ছুটে এসে নারায়ণকে বাধা দেওয়ার চেষ্টা করেন। ধারালো অস্ত্রের আঘাতে এক প্রতিবেশী আহত হন। ঘটনাস্থলেই মলিনা সরকারের মৃত্যু হয়। ঘটনার খবর জানাজানি হতেই এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়। প্রতিবেশীরাই অভিযুক্তকে হাতেনাতে ধরে মারধর করে আটকে রাখে।চোপড়া থানার পুলিশ খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছায়।  পুলিশ মৃত দেহটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য  ইসলামপুর মহকুমা হাসপাতালে পাঠিয়েছে। অভিযুক্ত নারায়ণ সরকার বর্তমানে ইসলামপুর মহকুমা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। চোপড়া থানার পুলিশ ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে।

আরও পড়ুন Sushil Kumar: সুশীলের হাতে লাঠি, সঙ্গে দুষ্কৃতীরা, মাটিতে লুটিয়ে সাগর ধনখড়, ভিডিও ভাইরাল

মৃতার বড় ছেলে ফরিচাঁদ সরকার জানান, ঘটনার সময় তিনি বাড়িতে ছিলেন না।বাড়িতে ছিলেন তার মেঝো ভাই, তার স্ত্রী এবং ছেলে। ছোট ভাই নারায়ণ আচমকাই মায়ের উপর ক্ষেপে যায়। হঠাৎ করে ছোট ভাই মাথা গরম হওয়ার ঘটনা আগেও ঘটেছে।সেই সময় প্রত্যেকে তাকে আটকে রাখে।গতকাল রাতেও তার মাথা গরম হয়ে গেলে তার স্ত্রী এবং ছেলে তাকে বাধা দিতে আসে।ঘর থেকে ধারালো অস্ত্র বের করে এনে ছেলে ও স্ত্রীর উপর আক্রমণ করতে যায়।প্রাণ বাঁচাতে তারা দৌঁড়ে ঘরে ঢুকে দরজা আটকে দেয়।সেই সুযোগে মায়ের উপর ধারালো অস্ত্র দিয়ে খুন করে। ঘটনার পর হাতে ধারালো অস্ত্র(হাত দাঁ) এবং লাঠি নিয়ে দাঁড়িয়ে ছিল সে। এই ঘটনাতে তার কোন অনুতাপ ছিল না। মেজ ভাই চিৎকার চেচামেচি করলে প্রতিবেশীরা আসেন। তখন তারা মায়ের রক্তাক্ত অবস্থাটি দেখায়। কেউ বাধা দিতে এলে তাকেও খুনের হুমকি দেয় বলে অভিযোগ। প্রতিবেশীরাই একজোট হয়ে অভিযুক্ত ভাইকে ধরে ফেলে। যেভাবে মাকে খুন করল তাতে তার শাস্তির দাবি করবেন বড় দাদা ফরিচাঁদবাবু। ভায়ের কাজে চরম আতঙ্কের মধ্যে রয়েছেন তারা।

Published by:Pooja Basu
First published: