corona virus btn
corona virus btn
Loading

ব্যাঙ্ক থেকে বেরিয়ে ছিনতাইকারীদের কবলে গ্রাহক! বাধা পেয়ে গুলি চালিয়ে পালাল দুষ্কৃতীরা

ব্যাঙ্ক থেকে বেরিয়ে ছিনতাইকারীদের কবলে গ্রাহক! বাধা পেয়ে গুলি চালিয়ে পালাল দুষ্কৃতীরা

রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাঙ্কের শাখা থেকে প্রায় সাড়ে তিন লক্ষ টাকা তুলে নিয়ে কেষ্টপুর গ্রাহকসেবা কেন্দ্রে ফিরছিলেন কর্মী সন্তোষ বর্মন।

  • Share this:

#মালদহ: ব্যাঙ্ক থেকে টাকা তুলে নিয়ে যাওয়ার সময় রাস্তা আটকে ছিনতাইয়ের চেষ্টা। ছিনতাইয়ে বাধা পেয়ে প্রকাশ্য রাস্তায় গুলি। কোনরকমে প্রাণে বাঁচেন রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাঙ্কের গ্রাহক সেবা কেন্দ্রের  কর্মী।  গুলি চালিয়ে এলাকা ছেড়ে পালালো দুষ্কৃতীরা। গাজোলে রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাঙ্কের  শাখা থেকে প্রায় সাড়ে তিন লক্ষ টাকা তুলে নিয়ে কেষ্টপুর গ্রাহকসেবা কেন্দ্রে ফিরছিলেন কর্মী সন্তোষ বর্মন। আচমকা গাজোল- বামন গোলা রাজ্য সড়কে একটি গাড়িতে চেপে এসে তাঁর পথ আটকায় দুই দুষ্কৃতী।

এরপর গাড়ি থেকে বেরিয়ে এসে টাকার ব্যাগ ছিনতাইয়ের চেষ্টা করা হয়। গ্রাহক সেবা কেন্দ্রে কর্মী ছিনতাইয়ে বাধা দিলে তাঁকে আগ্নেয়াস্ত্র দেখায় দুষ্কৃতীরা। দু'পক্ষের মধ্যে চলে ধস্তাধস্তি। আচমকা রাস্তার অন্যদিক থেকে মোটর ভ্যানে কয়েকজন চলে আসায় গুলি চালিয়ে এলাকা  ছাড়ে দুষ্কৃতীরা। ঘটনার তদন্তে গাজোল থানার পুলিশ। এদিকে প্রকাশ্য রাস্তায় দিন দুপুরে এভাবে ছিনতাইয়ের চেষ্টার ঘটনায় এলাকায় ছড়িয়েছে চাঞ্চল্য। ঘটনায় পুলিশের ভূমিকা নিয়েও প্রশ্ন উঠেছে। প্রাথমিক তদন্তে পুলিশ জানিয়েছে, একটি নম্বর প্লেট বিহীন গাড়িতে ছিল দুষ্কৃতীরা। ইতিমধ্যে ওই গাড়ির সূত্র ধরে দুষ্কৃতীদের খুঁজে বের করার চেষ্টা চলছে। এর আগেও গাজোলে ব্যাংকের সামনে থেকে টাকা ছিনতাইয়ের চেষ্টার ঘটনা ঘটে ।

এদিকে বিভিন্ন ব্যাঙ্কের শাখা থেকে গ্রামাঞ্চলে গ্রাহক সেবা কেন্দ্র গুলোতে প্রায় প্রতিদিনই লক্ষ লক্ষ টাকা নিয়ে যাতায়াত করেন কর্মীরা। এর আগে সহায়তা কেন্দ্রের কর্মীদেরকে পুলিশ সতর্ক করে জানিয়েছিল, বেশি মাত্রায় টাকা লেনদেন করার ক্ষেত্রে পুলিশকে আগাম জানাতে হবে । যদিও অধিকাংশ ক্ষেত্রে পুলিশকে সময়মতো টাকা আনা-নেওয়ার বিষয়ে জানানো হচ্ছে না বলেও অভিযোগ। মালদহের পুলিশ সুপার অলক রাজোরিয়া বলেন,  এর আগেও বিক্ষিপ্ত ঘটনা ঘটেছে। কিন্তু এবার দুষ্কৃতীদের সঙ্গে আগ্নেয়াস্ত্র  থাকার খবর মিলেছে। বিষয়টি উদ্বেগজনক । অত্যন্ত গুরুত্ব দিয়ে ঘটনার তদন্ত করা হচ্ছে।

Sebak DebSarma

Published by: Debalina Datta
First published: August 3, 2020, 8:01 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर