Siliguri : ভ্যাকসিন নিয়ে দুর্ভোগ বাড়ছে শিলিগুড়িতে, নকশালবাড়িতে ব্যাপক ক্ষোভ, চলল ধাক্কাধাক্কিও

সোমবার ফের টিকা নিয়ে ভোগান্তির শিকার সাধারণ মানুষ

টিকা নিয়ে দুর্ভোগ যেন কেটেও কাটছে না শিলিগুড়িতে (Siliguri) । প্রতিদিনই টিকাকেন্দ্রে গণ্ডগোল ৷ মূলত একটাই অভিযোগ, দিনের পর দিন লাইনে দাঁড়িয়েও মিলছে না টিকা (Vaccination) ।

  • Share this:

শিলিগুড়ি : টিকা নিয়ে দুর্ভোগ যেন কেটেও কাটছে না শিলিগুড়িতে (Siliguri) । প্রতিদিনই টিকাকেন্দ্রে গণ্ডগোল ৷ মূলত একটাই অভিযোগ, দিনের পর দিন লাইনে দাঁড়িয়েও মিলছে না টিকা (Vaccination) । রাতভর জেগে দাঁড়িয়েও ফিরতে হচ্ছে হতাশ হয়ে । আজ খড়িবাড়ি তো কাল নকশালবাড়ি । এ যেন নিত্যদিনের রুটিন হয়ে দাঁড়িয়েছে । সোমবার ফের টিকা নিয়ে ভোগান্তির শিকার সাধারণ মানুষ । এ বার ঘটনাস্থল স্বাস্থ্য দপ্তরের নকশালবাড়ির রথখোলা সাব সেন্টার । অভিযোগ, ঘন্টার পর ঘন্টা রাত জেগে লাইনে দাঁড়ানোর পর কর্তৃপক্ষ বলছে টিকা মিলবে না । এ নিয়েই শুরু উত্তেজনা ।

নকশালবাড়ি ব্লকের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে মহিলারা এসে লাইনে দাঁড়ান । আসেন লাগোয়া জেলা উত্তরদিনাজপুরের ইসলামপুর থেকেও । কিন্তু সকাল হতেই কর্তৃপক্ষ ঘোষণা করে সোমবার সাব সেন্টার লাগোয়া এলাকার বাসিন্দাদেরই টিকা দেওয়া হবে । এরপরই উত্তেজনা ছড়ায় । লাইন তখন ভিড় থিকথিক করছে । এক জনের ঘাড়ে অন্যজনে নিঃশ্বাস ফেলছেন ভ্যাকসিনের জন্যে । অনেকেই নাক এবং মুখ ঢাকেননি মাস্কে। দূরত্ববিধির বালাই নেই । বরং,  সংক্রমণ ছড়ানোর আশঙ্কায় বাসিন্দারা । প্রকাশ্যেই ক্ষোভ উগড়ে দেন টিকা গ্রহীতারা। চলে ধাক্কাধাক্কি। যার জেরে কাঠের একটি বোর্ড ভেঙে পড়ে জখম হন এক আশা স্বাস্থ্যকর্মী। তাঁর মাথায় দুটি সেলাইও পড়েছে। অন্য এলাকা থেকে আসা গ্রহীতাদের মাইকিং করে সরিয়ে দেয় প্রশাসন।

এদিকে শিলিগুড়িতে টিকা নিয়ে শাসক দলের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ তুলে সরব হন বিজেপি বিধায়ক শঙ্কর ঘোষ। তিনি বলেন, ‘‘শহর ও লাগোয়া এলাকায় সব টিকাকেন্দ্রেরই দখল নিয়েছে তৃণমূল। তাদের নেতারাই লাইন ঠিক করাচ্ছে, কুপন বিলি করছে পছন্দের লোকেদের ।’’ এ নিয়ে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রীর কাছে নালিশ জানাবেন বলে বলেন।

অন্যদিকে টিকা নিয়ে ভোগান্তি দূর করতে এ বার মোবাইল ভ্যান পরিষেবা চালু করছে পুরসভা । শহরে দুটি ভ্যান ঘুরবে । পাশাপাশি নির্বিঘ্নে টিকাকরণ প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে তিন দিন আগে কুপন বিলি করা হবে বলেও জানান পুর প্রশাসক গৌতম দেব। তিনি এও জানান, চলতি মাসের মধ্যেই পুর এলাকার ১৮ঊর্ধ্ব সকলের প্রথম ডোজ সম্পন্ন করার টার্গেট নেওয়া হয়েছে। ১১ সেপ্টেম্বর থেকে এই প্রক্রিয়া শুরু হবে।

Published by:Arpita Roy Chowdhury
First published: