Home /News /north-bengal /
Siliguri: টাকা নেই, কেউ দেখার-ও নেই, চোখের জল ফেলতে ফেলতে মানসিক ভারসাম্যহীন ছেলেকে শিকল দিয়ে বেঁধে কাজে যান মা

Siliguri: টাকা নেই, কেউ দেখার-ও নেই, চোখের জল ফেলতে ফেলতে মানসিক ভারসাম্যহীন ছেলেকে শিকল দিয়ে বেঁধে কাজে যান মা

ছেলে মানসিক ভারসাম্যহীন। মা পরিচারিকার কাজ করেন। বাড়িতে দেখার কেউ নেই, তাই কাজে যাওয়ার আগে ছেলেকে শিকল দিয়ে বেঁধে যান তিনি

  • Share this:

    #শিলিগুড়ি: ছেলে মানসিক ভারসাম্যহীন। মা পরিচারিকার কাজ করেন। বাড়িতে দেখার কেউ নেই, তাই কাজে যাওয়ার আগে ছেলেকে শিকল দিয়ে বেঁধে যান তিনি। ঘটনাটি শিলিগুড়ি সংলগ্ন এনজেপি থানার অন্তর্গত শান্তিপাড়ার। পিঙ্কি রায় লোকের বাড়িতে রান্নার কাজ করে সংসার চালান। এই জেলারই বাড়িভাষা এলাকার বাসিন্দা লালু রায়ের সঙ্গে ১৩ বছর আগে বিয়ে হয়েছিল পিঙ্কির। লালু ও পিঙ্কির ছেলে প্রলয়। জন্মের পর স্বাভাবিকই ছিল সে। কিন্তু ধীরে ধীরে সে বড় হতে থাকলে অস্বাভাবিক আচরণ করতে থাকে। মানসিক ভারসাম্যহীন ছেলে ও মাকে বাড়ি থেকে বের করে দেয় স্বামী-সহ শ্বশুরবাড়ির লোক। তারপর থেকেই ছেলেকে নিয়ে উঠে বাপের বাড়িতে রয়েছে পিঙ্কি।

    আরও পড়ুন: ধূপগুড়ির রাজপথে সাধারণ মানুষ, জাতীয় সড়ক অবরোধ করে চলল বিক্ষোভ, কেন জানেন?

    পিঙ্কি বলেন, ''কাজ তো করতেই হবে, কাজে না গেলে খাবো কী?'' ভাগ্যের নিষ্ঠুর পরিহাসে নিতান্ত বাধ্য হয়েই নিজের একমাত্র মানসিক ভারসাম্যহীন ছেলেকে শিকল দিয়ে বেঁধে রেখে কাজে যেতে হয় পিঙ্কিকে। তাঁর ভাষায়, '' কারও কাছ থেকে সাহায্য তেমন কিছু মেলেনি। শিলিগুড়ি শহরবাসীর কাছে সাহায্যের আবেদন রইল। অনেক জায়গায় চিকিৎসা করা হয়েছে, কিন্তু কিছু লাভ হয়নি। ডাক্তার বলেছেন ভিনরাজ্যে চিকিৎসা করালে হয়তো সুস্থ হতে পারে ছেলে, কিন্তু সে অনেক টাকার খরচ, আমি পাব কোথায়?''

    আরও পড়ুন: শুরু ডবল লাইনের কাজ, নিউ ফরাক্কা-ধুলিয়ান লাইনে নিয়ন্ত্রিত ট্রেন চলাচল, দেখে নিন বাতিল ট্রেনের তালিকা

    অন্যদিকে, পথকুকুরদের রাতের অন্ধকারে দুর্ঘটনা থেকে রক্ষা করতে রেডিয়াম বেল্ট (Radium Belt) লাগানোর উদ্যোগ নিল শিলিগুড়ির সংগঠন 'সিস্টার্স ব্রাদার্স সোসাইটি'।শুক্রবার সংগঠনের তরফে শিলিগুড়ি জংশন স্টেশনের (Siliguri Junction) সামনে থেকে শুরু করে প্রধান সড়কের পাশে সমস্ত পথ কুকুরদের বেল্ট পড়ানো হয়। সংগঠনের সভাপতি তথা সমাজসেবী বাপন দাস জানান,  ‘‘কুকুর অবলা ও প্রভুভক্ত হয়। বেশির ভাগ রাতের অন্ধকারেই দুর্ঘটনার শিকার হয় কুকুররা। নিজেদের বাঁচাতে না পেরে না ফেরার দেশে চলে যায় তারা। তাই এই উদ্যোগ! ’’ তিনি আরও বলেন, 'এই রেডিয়াম বেল্ট কুকুরদের গলায় থাকলে, রাতের অন্ধকারে দূর থেকে কোনও ছুটে আসা গাড়ি রাস্তায় থাকা কুকুরদের লক্ষ করতে পারবে। গাড়ির হেডলাইটের (Headlight) আলোতে জ্বলজ্বল করবে বেল্ট, গাড়ির চালক সচেতন হবেন এবং পথ দুর্ঘটনায় কুকুরের মৃত্যু কমবে।''

    Vaskar Chakraborty

    Published by:Rukmini Mazumder
    First published:

    Tags: Siliguri

    পরবর্তী খবর