মেয়রকে হেনস্থার প্রতিবাদ, শিলিগুড়ির রাস্তায় নাগরিক সমাজ

মেয়রকে হেনস্থার প্রতিবাদ, শিলিগুড়ির রাস্তায় নাগরিক সমাজ
সংগৃহীত ছবি

পুরভোটের আগে শক্তি প্রদর্শন বাম-কংগ্রেস জোটের

  • Share this:

#শিলিগুড়ি: মেয়রকে হেনস্থার প্রতিবাদে শিলিগুড়ির রাস্তায় নামল নাগরিক সমাজ। আন্দোলনের নামে তৃণমূল কাউন্সিলর রঞ্জন শীল শর্মার নেতৃত্বে  টানা সাড়ে চার ঘন্টা মেয়র অশোক ভট্টাচার্যকে চেম্বারেই আটকে রাখা হয়। তার জেরে ইনস্যুলিনও নিতে পারেননি মেয়র। অসুস্থ বোধ করেন মেয়র।

অভিযোগ, মেয়রের সঙ্গে অভব্য আচরণ করেছে তৃণমূল নেতা, কর্মী, সমর্থকেরা। হেনস্থা করা হয়েছে। এই অভিযোগ তুলে মঙ্গলবার মিছিল করল নাগরিক সমাজ। নেতৃত্বে বাম-কংগ্রেস জোট। মিছিলে হাঁটেন জেলা বামফ্রন্টের আহ্বায়ক জীবেশ সরকার, কংগ্রেস বিধায়ক শঙ্কর মালাকার। যোগ দেন প্রাক্তন কংগ্রেসি মেয়র গঙ্গোত্রী দত্ত। ছিলেন বাম এবং কংগ্রেসের একাধিক কাউন্সিলর। প্রসঙ্গ মেয়রকে হেনস্থা। কার্যত এর মধ্য দিয়ে ফের বাম-কংগ্রেস জোটের শক্তি প্রদর্শন ছিল দুই দলের নেতাদের অন্যতম লক্ষ্য।

সামনেই পুরভোট। এবারে জোট বেঁধেই লড়বে বাম এবং কংগ্রেস। তাই ইস্যু হাতছাড়া করতে নারাজ দুই দলের শীর্ষ জেলার নেতারা। জেলা বামফ্রন্টের আহ্বায়ক জীবেশ সরকারের অভিযোগ, আন্দোলনের নামে মেয়রকে হেনস্থা করেছে তৃণমূল। মেয়র আলোচনার আহ্বান জানালেও তাতে সাড়া দেননি। কংগ্রেস বিধায়ক শঙ্কর মালাকারের অভিযোগ, যেখানে বিরোধীদের অত্যাচার হবে তার প্রতিবাদ হবে।  মেয়রের সঙ্গে অভব্য আচরণ করা হয়েছে। তাই ওই প্রতিবাদের পথ। এই ধরনের ইস্যুতে জোটবদ্ধভাবেই আন্দোলনে নামবে বাম এবং কংগ্রেস।

চূড়ান্ত সংরক্ষন তালিকা প্রকাশিত হয়েছে। পুরভোটের আগে নাগরিক সমাজের নামে বাম এবং কংগ্রেসের যৌথ প্রতিবাদ লড়াইয়ে এগিয়ে রাখল জোটকে। তৃণমূল এবং বিজেপিকে হারাতেই জোট গড়ে লড়বে কংগ্রেস এবং বামেরা। এক ইঞ্চি জমি ছাড়া হবে না বলে হুঁশিয়ারি জোটের। অন্যদিকে তৃণমূলের পালটা দাবি, নাগরিক পরিষেবা মিলছে না। বকেয়া বিধবা ভাতা, বার্ধক্য ভাতা। তা আদায়ে লাগাতার আন্দোলন হবে। মেয়রকে হেনস্থা করা হয়নি, সাফ দাবী তৃণমূলের।

First published: February 11, 2020, 7:51 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर