corona virus btn
corona virus btn
Loading

অনাহারে, অর্ধাহারে কাটছে দিন, জন্মদিনে ভবঘুরেদের নিজে হাতে খাবার পরিবেশন করল ছোট্ট সৌনভ

অনাহারে, অর্ধাহারে কাটছে দিন, জন্মদিনে ভবঘুরেদের নিজে হাতে খাবার পরিবেশন করল ছোট্ট সৌনভ

মেনুতে ছিল ডাল, ভাত, মাংস। আর শেষ পাতে রসগোল্লা।

  • Share this:

#শিলিগুড়িঃ করোনা রুখতে লক ডাউনে দেশ। বন্ধ স্কুল, কলেজ থেকে বহু অফিস, আদালত। বাকী যা খোলা তার অর্ধেক কাজ চলছে বাড়ি বসে। অত্যাবশ্যকীয় পণ্য এবং জরুরী পরিষেবা ছাড়া বাড়ির বাইরে যাওয়ার ক্ষেত্রে জারি নিষেধাজ্ঞা। এমতাবস্থায় সবথেকে সমস্যায় আর্থিকভাবে পিছিয়ে পড়া শ্রেণির মানুষরা। দিনের পর দিন অর্ধাহারে, আবার কখনও অনাহারে কাটছে ভবঘুরেদের দিন। মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশে পুলিশ এবং প্রশাসনের তরফে তাঁদের দুবেলা খাওয়ার ব্যবস্থা করা হলেও,  সঠিক জায়গাতে পৌছতে না পাড়ায় খেতে পাচ্ছেন না অনেকে। এরকমই অর্ধাহারে, অনাহারে থাকা ভবঘুরেদের সঙ্গে শুক্রবার নিজের জন্মদিন কাটাল ছোট্ট সৌনভ। নিজের হাতে খাবার পরিবেশন করেছে সে।

করোনা প্রতিরোধে সামাজিক দূরত বজায় রাখার বার্তা দিয়েছে রাজ্য এবং কেন্দ্র। জনসমাগম এড়াতে তাই বন্ধ মন্দির, মসজিদ, গির্জা, বৌদ্ধ মঠ। করোনা রুখতে মুল দাওয়াই ভিড় এড়িয়ে চলতে হবে। লক ডাউনের জেরে বহু বিবাহ অনুষ্ঠানও পিছিয়ে দেওয়া হয়েছে। জন্মদিনের অনুষ্ঠানেও আত্মীয়স্বজন, বন্ধু-বান্ধবদের ভিড় আর নেই। ঘটা করে অনুষ্ঠানে ফুলস্টপ! ঘরোয়া অনুষ্ঠানের মধ্যেই আটকে জন্মদিন থেকে বিবাহ বার্ষিকী। তবে শিলিগুড়ির বিধাননগরের সৌনভের জন্মদিনের অনুষ্ঠানটা কাটল একটু অন্যভাবে। বাড়িতে কেক কেটে সোজা বেড়িয়ে পড়েছিল সে।

বিধাননগর বাজার থেকে ৩১ নং জাতীয় সড়কের ধারে মুরলীগছ। সঙ্গে তার বাবা শিবেশ ভৌমিক আর পুলিশকর্মী বাপন দাস। বাজার থেকে জাতীয় সড়কের ধারে বসে থাকা ভবঘুরেদের হাতে তুলে দিল নিজের জন্মদিনের খাবার। মেনুতে ছিল ডাল, ভাত, মাংস। আর শেষ পাতে রসগোল্লা।  জন্মদিনটা বাড়িতে নয়, ভবঘুরেদের সঙ্গে কাটালো ১৪ বছরের সৌনভ। এদিন নিজে হাতে খাবার পরিবেশন করেছে সে।

কেন এই ভাবনা? সৌনভের মা মিতাদেবী জানান, লক ডাউন চলছে। রাস্তার ভবঘুরেরা দু'বেলা খেতে পারছে না। এটা মেনে নিতে পারিনি। তাই ছোটো ছেলের জন্মদিনটা ওদের নিয়েই কাটানোর কথা মনে হয়েছিল। সেটাই করেছি। ওই মানুষগুলোর আশীর্বাদটাই ছেলের জীবনের পাথেয় হোক। সৌনভের বাবা শিবেশ ভৌমিক জানান, অন্যেরাও এভাবে এগিয়ে এলে আর কেউ এই লক ডাউনে অভুক্ত থাকবে না। মন খারাপ নয় ছোট্ট সৌনভেরও। বন্ধু-বান্ধব নেই তো কি হয়েছে! প্রতিবছরই তো ওদের নিয়ে মেতে উঠি। এবার রাস্তায় ভবঘুরেদের সঙ্গে জন্মদিন পালন সেরা প্রাপ্তি। এটাই তাঁর জীবনের সেরা জন্মদিন বলছে সৌনভ। তার এই এগিয়ে আসাকে কুর্ণিশ জানিয়েছে শিলিগুড়িবাসী। আর খাবার খেয়ে হাসি ফুটেছে ভবঘুরেদের মুখেও।

Partha Pratim Sarkar

Published by: Shubhagata Dey
First published: April 3, 2020, 10:03 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर